পৃথিবীর এমন কয়েকটি দরজা, যা আজ পর্যন্ত কেউ খুলতে পারেনি

3175
পৃথিবীর এমন কয়েকটি দরজা, যা আজ পর্যন্ত কেউ খুলতে পারেনি
পৃথিবীর এমন কয়েকটি দরজা, যা আজ পর্যন্ত কেউ খুলতে পারেনি

অজানা রহস্যে মোড়া; আমাদের এই বিশাল পৃথিবী। সারা পৃথিবী জুড়ে এমন কয়েকটি দরজা আছে; যা আজ পর্যন্ত কেউ খুলতে পারেনি। এগুলির কোনটাকে আজও; মনে করা হয় অভিশপ্ত। আবার মনে করা হয়, এমন কিছু দরজা আছে; যেগুলো খুললে পৃথিবীতে নেমে আসবে অশান্তির কালো ছায়া। এই সমস্ত দরজাগুলো; খোলার সাহস করে না অনেকেই। অনেকে আবার খুলতে গিয়ে; বারবার ব্যর্থ হয়েছেন। জেনে নিন, পৃথিবীর সেই বিখ্যাত দরজাগুলি সম্পর্কে।

শ্রী পদ্মনাভস্বামী মন্দির: শ্রী পদ্মনাভস্বামী মন্দিরটির ইতিহাস; খৃষ্টীয় অষ্টম শতাব্দীর। দেশের অন্যতম ধনী মন্দিরের মধ্যে; কেরালার এই মন্দিরটি অন্যতম। সম্পত্তির কারণে নয়, রহস্যজনক অনেক ঘটনার কারণেও; এই মন্দির চিরকাল আলোচনা থাকে। এই মন্দিরের একটি দরজা; এখনো খোলা যায়নি। মন্দিরে সাতটি গোপন তল রয়েছে; এবং প্রতিটি তলে একটি দরজা রয়েছে। এক লক্ষ কোটিরও বেশি মুল্যের; সোনা ও হীরার গহনা পাওয়া গেছে এই মন্দির থেকে।

সুপ্রিম কোর্টের তত্ত্বাবধানে; ছয়টি দরজা খোলা হয়েছে। এই মন্দিরের সবথেকে রহস্যজনক দরজা হল; এর সপ্তম দরজা। কতগুলো কৃত্রিম সাপ; সেটা জড়িয়ে রয়েছে শুধু না; নেই কোনও হাতল, না কোনও তালা; না কোনও ছিটকানি জাতীয় কিছু। তাও অনেক চেষ্টা করেও; এই দরজা খোলা যায়নি। অনেকেরই মতে দরজাটি, স্বয়ং ভগবান বিষ্ণু দ্বারা রক্ষিত; এবং এটি খুললে বিপদ হতে পারে বলে মনে করা হয়।

আরও পড়ুনঃ ৪৫টি পাক গোলাতেও ধ্বংস হয়নি, ভারতীয় সেনার রক্ষাকর্তা হিন্দু মন্দির

তাজমহলঃ তাজমহল প্রেমের নিদর্শন হলেও; এর সঙ্গে কয়েকটি আশ্চর্য বিষয় লুকিয়ে আছে। শাহজাহান স্ত্রী মমতাজের স্মৃতির উদ্দেশে; তাজমহল বানাতে শুরু করেন। ২২ বছর লেগেছিল; তাজমহল বানাতে। মনে করা হয়, তাজমহলে হাজারের বেশি; গোপন ঘর রয়েছে। তার বেশিরভাগই; আজ পর্যন্ত কেউ খুলতে পারেননি। এই গোপন দরজার ওপারে কী রয়েছে; তা রহস্যই থেকে গিয়েছে।

টেরাকোটা সেনা: ১৯৭৪ সালে চিনের জিংওয়ার এক কৃষক পরিবার; বাড়ির কাছেই পাতকুয়োর জন্য গর্ত খুঁড়ছিল। মাটি থেকে দু’মিটার নীচে; অপেক্ষাকৃত শক্ত এবং লাল রঙের মাটি ছিল। সেখান থেকেই; টেরাকোটা সেনার আবিষ্কার। পরে ভূতত্ত্ববিদেরা প্রায় ২০ হাজার বর্গ মিটার এলাকা জুড়ে; খনন করে ৮ হাজার সেনা; ১৩০টি রথ; ৫২০টি ঘোড়া এবং ১৫০ ঘোড়সওয়ার সেনার মূর্তি বার করেন। টেরাকোটা সেনার মাঝে; একটি দরজাও পেয়েছেন ভূতত্ত্ববিদেরা। তবে সেই দরজার পিছনে কী রয়েছে; তা আজও জানা যায়নি।

আরও পড়ুনঃ মহিলার সম্মানরক্ষায় মুখ্যমন্ত্রীর ছেলেকে গাড়ির পেছনে বেঁধে এনেছিলেন বাঙালি কর্নেল

স্ফিংস অব গিজা : মিশরের পিরামিড বা স্ফিংস মানুষের এমন একটা সৃষ্টি; যা আজকের যুগেও আর্কিটেক্টরা কল্পনাতেও আনতে পারেন না। কী ভাবে এর সৃষ্টি? কারা বানিয়েছিল? এ নিয়ে নানা মতবাদ রয়েছে। অনেকের বিশ্বাস, বাইরের দুনিয়া থেকে এসে; এলিয়েনরা বানিয়ে গিয়েছে। অনেকে মনে করেন; মিশরের বালির নীচেই কোথাও একটা লাইব্রেরি রয়েছে। আর সেখানেই রহস্যময় পিরামিড বানানোর; খুঁটিনাটির উল্লেখ রয়েছে।

গিজার গ্রেট স্ফিংসের আগাগোড়া; সবটাই রহস্যে মোড়া। তার উপর অনেকেই হয়তো জানেন না; আরও একটি রহস্য ঘাপটি মেরে রয়েছে এর ভিতরে। একটি বন্ধ ঘর, যে ঘরে কী রয়েছে; তা কেউ জানতে পারেননি। প্রশাসনও সেই রহস্যের; উদ্ঘাটন করতে চায় না। তাই দরজা খোঁড়ার কাজ; বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে।

বান্ফ স্প্রিং হোটেল:- কানাডার এই হোটেলের একটি ঘর নিয়েও; রহস্য রয়ে গিয়েছে। হোটেলের ৮৭৩ নম্বর ঘরটি; কখনও কেউ খোলে না। হোটেলের নতলায়; এই ঘরটি রয়েছে। অনেক বছর আগে নাকি; এই ঘরে উঠেছিল একটি পরিবার। বাবা-মা আর; তাঁদের ছোট শিশু। ঘুমের মধ্যে স্ত্রী আর সন্তানকে খুন করে; নিজেও নাকি আত্মহত্যা করেছিলেন ওই ব্যক্তি। তারপর এই ঘরে কোনও পর্যটক; থাকতে পারেননি। রাতে চিৎকারের আওয়াজ; শিশুর কান্নার আওয়াজ শোনা যায়। এই ঘরটি সেই থেকেই তালাবন্ধ।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন