তন্ময় ঘোষের পর ‘ঘর ওয়াপসি’ বিশ্বজিৎ দাসের, ‘মামলার ভয় দেখিয়ে’ পাল্টা অভিযোগ

1853
তন্ময় ঘোষের পর ‘ঘর ওয়াপসি’ বিশ্বজিৎ দাসের, 'মামলার ভয় দেখিয়ে' পাল্টা অভিযোগ
তন্ময় ঘোষের পর ‘ঘর ওয়াপসি’ বিশ্বজিৎ দাসের, 'মামলার ভয় দেখিয়ে' পাল্টা অভিযোগ

তৃণমূলে ‘ঘর ওয়াপসি’ অব্যহত; বিজেপির একের পর এক বিধায়ক ঘর ছাড়া। তন্ময় ঘোষের পর ‘ঘর ওয়াপসি’ বিশ্বজিৎ দাসের; ‘মামলার ভয় দেখিয়ে’ পাল্টা অভিযোগ বঙ্গ বিজেপির। তন্ময় ঘোষের পর এবার আরও এক বিজেপি বিধায়ক; যোগ দিলেন মমতার তৃণমূলে। সোমবার তন্ময় ঘোষের পর, মঙ্গলবার তৃণমূলে ‘ঘর ওয়াপসি’ হল; বাগদার বিধায়ক বিশ্বজিৎ দাসের। এদিন তৃণমূলে যোগ দিয়ে বিধায়ক বিশ্বজিৎ দাস বলেন; “একটা ভুল বোঝাবুঝির জন্য; দল পরিবর্তন হয়েছিল। মানুষের উন্নয়ন করতে গেলে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের থেকে; বড় শক্তি আর কেউ নন”।

“আমি ঘরের ছেলে; ঘরে ফিরে এসেছি। মানুষের পাশে থাকতেই; এই সিদ্ধান্ত”। তৃণমূলে যোগ দিয়েই বিশ্বজিত বলেন; “যাঁরা মানুষের জন্য কাজ করতে চান; তাঁদের জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিকল্প কেউ নেই। বাগদার বিজেপি বিধায়ক এদিন, তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের উপস্থিতিতে; তৃণমূলের পতাকা হাতে তুলে নেন।

গতকালই বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে ফিরেছেন; বিষ্ণুপুরের বিধায়ক তন্ময় ঘোষ। পাঁচ মাসের মধ্যেই বিজেপি ছেড়ে ফের তৃণমূলে যোগ দিলেন; বিষ্ণুপুরের বিজেপি বিধায়ক। এবার একই পথে হাঁটলেন; বাগদার বিজেপি বিধায়ক বিশ্বজিৎ দাস। বিতর্ক শুরু হয়েছিল গত ৮ ফেব্রুয়ারি; বিধানসভার বাজেট অধিবেশনের শেষ দিনে। বিধানসভার লবিতে বিধায়ক বিশ্বজিৎ দাস, সটান পায়ে হাত দিয়ে প্রণাম করেছিলেন; মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। এরপর বিধানসভায়; মুখ্যমন্ত্রীর ঘরেও যান তিনি; শুরু হয় জল্পনা।

আরও পড়ুনঃ খরচা মাসে ২ কোটি ২৫ লাখ টাকা, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্য বিমান ভাড়া নিল রাজ্য সরকার

ছমাস পর অবসান হল; সেই জল্পনার। ‘ঘরের ছেলে ঘরে ফিরলেন’; তবে বিজেপি ক্ষমতায় এলে এই ঘটনা কি দেখা যেত? উঠে গেছে প্রশ্ন। সম্প্রতি বিষ্ণুপুর পুরসভায় দুর্নীতির অভিযোগে; গ্রেফতার করা হয় রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়কে। তিনিও ভোটের আগে তৃণমূল ছেড়ে; বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। শ্যামাপ্রসাদের গ্রেফতারের কয়েকদিনের মধ্যেই; বিষ্ণুপুরের বিজেপি বিধায়কের দলবদলের নেপথ্যে; তৃণমূলের চাপসৃষ্টিকেই দায়ী করেছে বিজেপি।

রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন; “শ্যামাপ্রসাদ যে কেসে যুক্ত; সেই কেসে জুড়ে দেওয়া হয়েছিল; বাধ্য করা হয়েছে পার্টি ছাড়তে”। তবে এই অভিযোগ; উড়িয়ে দিয়েছে তৃণমূল। বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী, এমএলএ হস্টেলে গিয়ে; বিশ্বজিৎ দাসের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন; তবে তাতে বরফ গলেনি।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন