বিদ্যাসাগর মূর্তি ভাঙার তদন্ত কমিটির প্রধান আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়, দুবছরেও প্রকাশ্যে আসেনি রিপোর্ট

3777
বিদ্যাসাগর মূর্তি ভাঙার তদন্ত কমিটির প্রধান আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়, দুবছরেও প্রকাশ্যে আসেনি রিপোর্ট
বিদ্যাসাগর মূর্তি ভাঙার তদন্ত কমিটির প্রধান আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়, দুবছরেও প্রকাশ্যে আসেনি রিপোর্ট

বিদ্যাসাগর মূর্তি ভাঙার তদন্ত কমিটির প্রধান; আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু দুবছর কেটে গেলেও; প্রকাশ্যে আসেনি কোন রিপোর্ট। ২০১৯ সালের ১৪ মে, লোকসভা ভোটের শেষদফা ভোটের আগে; বিজেপির তৎকালীন সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহর রোড শো-কে কেন্দ্র করে; র’ণ-ক্ষেত্র হয়ে ওঠে কলকাতা। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে ও বিদ্যাসাগর কলেজের ভেতরে; শুরু হয় তৃণমূল বিজেপির সং’ঘর্ষ। সেই সময়েই ভাঙা হয়; বিদ্যাসাগর কলেজের ভিতরের বিদ্যাসাগর মূর্তি। অভিযোগের তীর ওঠে; বিজেপি কর্মীদের বিরুদ্ধে। তৎকালীন স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে; মুখ্যমন্ত্রী মমতা গঠন করেন; ৫ সদস্যের এক তদন্ত কমিটি।

কারা ভেঙেছে বিদ্যাসাগর মূর্তি? মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে রাজ্য সরকারের তরফে; বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার বিষয়টা খতিয়ে দেখতে; একটি তদন্ত কমিটি গঠিত হয়। তৎকালিন স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে; পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিতে আলাপন ছাড়াও ছিলেন; কলকাতা পুলিশের নগরপাল অনুজ শর্মা; জাভেদ শামিম এবং বিদ্যাসাগর কলেজের প্রিন্সিপাল। তবে দুবছর কেটে গেলেও; এখনও কোন রিপোর্ট জমা পড়েনি।

বিদ্যাসাগর কলেজের ভেতরে থাকা; ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের পুরোনো মূর্তি কারা ভাঙল? তদন্ত কি চলছে? না বন্ধ হয়ে গেছে? কেউ জানে না। ঘটনায় মোট ৩৫ জনকে গ্রেফতার করা হলেও; ঘটনার জন্যে কারা আসলে দায়ী; তা এখনও প্রকাশ্যে আসেনি। আলাপনের নেতৃত্বে তদন্ত কমিটি; মূর্তি ভাঙার রিপোর্ট দেবে; আশাবাদী ছিল সব মহল। সেদিন ঘটনাস্থলে পৌঁছে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা জানিয়েছিলেন; “এই বিষয়টি নিয়ে তদন্ত হবে; কাউকে ছাড়া হবে না”।

আরও পড়ুনঃ ঘনিষ্ঠ স্বাস্থ্যকর্তার পরামর্শে, মমতা সরিয়েছিলেন বাংলার নবজাতক চিকিৎসার জনক অরুণ সিংকে

তদন্তে নেমে কলকাতা পুলিশ; প্রায় ৫০টিরও বেশি ভিডিয়ো ফুটেজ সংগ্রহ করে। তবে বিদ্যাসাগর কলেজের; কোনও সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ পুলিশ পায়নি। কলেজ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, পুরোনো একটি তদন্তের স্বার্থে; সিসিটিভি ক্যামেরাগুলি যে কম্পিউটারের সঙ্গে যুক্ত ছিল; তার ‘হার্ড ডিস্ক’ পুলিশকে দিয়েছিলেন তাঁরা। নতুন করে কোন হার্ড ডিস্ক; লাগানোই হয়নি।

ঘটনায় তৃণমূল থেকে শুরু করে বুদ্ধিজীবীরা; দেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রের নামীদামী ব্যক্তিত্বরাও; তীব্র আ’ক্রমণ করেছিলেন বিজেপিকে। তবে মুখ্যমন্ত্রী মমতার তৈরি করা আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের তদন্ত কমিটির রিপোর্ট; এখনও প্রকাশ্যে আসেনি! কিন্তু কেন? কেন প্রকাশ্যে এল না; বিদ্যাসাগর মূর্তি ভাঙার তদন্ত রিপোর্ট? প্রশ্ন কিন্তু উঠছে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন