বিরুদ্ধে বললেই, হল থেকে উধাও হয় সিনেমা, কেবল থেকে উধাও নিউজ চ্যানেল

3121
বিরুদ্ধে বললেই, হল থেকে উধাও হয় সিনেমা, কেবল থেকে উধাও নিউজ চ্যানেল
বিরুদ্ধে বললেই, হল থেকে উধাও হয় সিনেমা, কেবল থেকে উধাও নিউজ চ্যানেল

বাক স্বাধীনতা! সেটা আবার কি! বিরুদ্ধে বললেই, হল থেকে উধাও হয় সিনেমা; কেবল থেকে উধাও নিউজ চ্যানেল! অভিযোগ এমনটাই। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর বর্তমান তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে কিছু বললেই; ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এমনটাই অভিযোগ বিরোধীদের। মঙ্গলবার থেকেই কেবল চ্যানেলে বন্ধ হয়ে গেল; CN নিউজ চ্যানেলের সম্প্রচার। রাজ্যের সবচেয়ে বড় কেবল পরিষেবা SITI cable সহ; প্রায় সব কেবল পরিষেবা থেকেই হঠাৎ করেই; উধাও হয়েছে এই নিউজ চ্যানেল। অভিযোগ, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারের বিরুদ্ধে বলাতেই; সরকারের কোপ দৃষ্টিতে পড়েছে এই নিউজ চ্যানেল। সাধারণ মানুষ থেকে বিরোধী দল; অভিযোগ সবার। তবে, সিটি কেবলের তরফে বলা হয়েছে; “যান্ত্রিক ত্রুটির কারণেই এটা হয়েছে”।

করোনা বিপদে চরম ব্যর্থ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা WHO, এবার ভারতের নিয়ন্ত্রণে

এই নিয়ে অনেকেরই, ফিল্ম পরিচালক অনীক দত্তের; ‘ভবিষ্যতের ভুত’ এর কথাও মনে পড়ছে। নন্দন চত্বরে ফিল্ম উৎসবে; নির্লজ্জের মত মমতার কাট আউট দেখে; শালীন ভাবে তীব্র প্রতিবাদ করেছিলেন অনীক দত্ত। অন্যান্য তথাকথিত বুদ্ধিজীবীরা তখন এটা ওটা পাওয়ার লোভে; দেখেও না দেখার ভান করছিলেন। ফলে সব রাগ জমা হয় অনীক দত্তের ওপর। রাতারাতি তাঁর ‘ভবিষ্যতের ভূত’; উধাও হয় বাংলার সিনেমা হল থেকে। অবশ্য, ভবিষ্যতের ভূতের প্রযোজক; আদালতে ল্যাজেগোবরে করেছিলেন রাজ্য সরকারকে। হাইকোর্ট, সুপ্রিম কোর্ট দৌড়ে; ২০ লক্ষ টাকার ক্ষতিপূরণও আদায় করেছিলেন রাজ্য সরকারের কাছ থেকে।

EXCLUSIVE: কলকাতার গা ঘেঁষে আমফান ল্যান্ডফল করছে সাগরদ্বীপে

এর আগেও ২০১৬ ভোটে জেতার পরেই; রাতারাতি বাংলার কেবল থেকে; উধাও হয়ে গিয়েছিল কলকাতা টিভি। সেবারও সরকারের বিরুদ্ধে মুখ খোলার জন্যই; ও তৃণমূলের হেরে যাওয়ার এক্সিট পোল করায়; কেবল থেকে উধাও হয়ে যায় কলকাতা টিভি। তবে এখন ফের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হয়ে কথা বলায়; ও মোদী বিরধিতা শুরু করায়; কেবলে ফিরে এসেছে কলকাতা টিভি; এমনটাই বলছেন সমালোচকরা।

ঝড়ের আগেই নিয়ম মেনে, সুন্দরবনের মানুষের পাশে কান্তি গাঙ্গুলি, নিখোঁজ বিধায়ক

প্রেস ফ্রিডমের আওয়াজ তোলা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর বিরুদ্ধেই; কেন এই অভিযোগ তোলেন বিরোধীরা। কারণ, নিউজ চ্যানেল বন্ধ হয়ে যাওয়া; বিরুদ্ধে বললেই পুলিশি হেনস্থা; এই আমলেই ঘটে চলেছে। মিডিয়ার মুখ বন্ধ করার জন্য মমতার চরম সমালোচনা করেছে; বিজেপি কংগ্রেস ও বাম। তৃণমূলের তরফ থেকে বলা হয়েছে; “মমতা মিডিয়ার স্বাধীনতার পক্ষে; সরকার থেকে কোন নির্দেশ দেয়া হয় নি; সবটাই বিরোধীদের রাজনীতি”। তবে, অভিযোগ- পাল্টা অভিযোগ যাই থাকুক; মিডিয়ার মুখ বন্ধ করে দেবার অভিযোগ থেকে মুক্ত হচ্ছে না; মা মাটি মানুষের সরকার।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন