শিল্পীকে হেনস্থা, মঞ্চে উঠে শুনতে হল অশ্রাব্য গালিগালাজ

850
শিল্পীকে হেনস্থা, মঞ্চে উঠে শুনতে হল অশ্রাব্য গালিগালাজ/The News বাংলা
শিল্পীকে হেনস্থা, মঞ্চে উঠে শুনতে হল অশ্রাব্য গালিগালাজ/The News বাংলা

শিল্পীকে হেনস্থা; মঞ্চে উঠে শুনতে হল অশ্রাব্য গালিগালাজ। কলেজের অনুষ্ঠান মঞ্চে হেনস্থার শিকার শিল্পী। শুনতে হয়েছে; অকাট্য ভাষায় গালিগালাজও। তবে এত দিনের শিল্পী জীবনে এমন অভিজ্ঞতা এই প্রথম জানালেন; মর্মাহত শিল্পী কার্তিক দাস বাউল। বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের থেকে এমন দুর্লভ স্বীকৃতি; শিল্পী জীবনে ভুলবেন না; জানালেন তিনি। এবার থেকে অনুষ্ঠান করতে গেলে; অবশ্যই দুবার ভাবব জানিয়েছেন সে কথাও।

৫ নভেম্বর বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠান করতে যান তিনি। রাস্তা খারাপ থাকায়; গুসকরা থেকে আরামবাগ হয়ে মেদীনিপুরে পৌঁছানের কথা ছিল তার। মাঝ রাস্তায় গাড়ি খারাপ হয়ে যাওয়ায় ঘটে বিপত্তি। গাড়ি সারিয়ে কলেজের অনুষ্ঠানে পৌঁছাতেও দেরি হয়ে যায়।

আরও পড়ুনঃ অবাক কাণ্ড, অযোধ্যায় রামমন্দির রায় দেবার আগেই আইনশৃঙ্খলা নিয়ে বৈঠক প্রধান বিচারপতির

দেরি হওয়ার জন্য মঞ্চে উঠেই; ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে ক্ষমাও চান কার্তিক দাস বাউল। কিন্তু মঞ্চের নীচ থেকে শিল্পীকে; অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে ছাত্র-ছাত্রীরা। তবে তিনি অনুষ্ঠান থামাননি। দু ঘণ্টা ধরে অনুষ্ঠান চালিয়ে গিয়ে; সকলকে আনন্দ দেন। অনুষ্ঠান বেশ উপোভোগও করে পড়য়ারা।

আরও পড়ুনঃ ব্যর্থ প্রেমের সত্যি গল্প, নবনীতা দেব সেনের প্রেমে পড়েছিলেন বুদ্ধদেব

গানের অনুষ্ঠান শেষ হলে; ফের তাঁকে ঘিরে ধরে কয়েকজন ছাত্র ছাত্রী। কয়েকজন কলেজ ছাত্র-ছাত্রী তাকে ঘিরে; বিক্ষোভ দেখাতে থাকে। গালিগালাজ করা হয়; প্রবি এই শিল্পীকে। পরে অন্যান্য কয়েকজন এসে; তাঁকে উদ্ধার করে। ঘটনায় দুঃখপ্রকাশ করে তিনি বলেন; “এমন অভিজ্ঞতা আগে হয়নি। ইচ্ছে করে দেরি করিনি। কোনদিন করিও না। গাড়ি খারাপ হয়ে গিয়েছে; তা জানিয়েও দিয়েছিলেম। কিন্তু ছেলেমেয়ের বয়সী ছাত্র ছাত্রীরা এত অপমান করবে কোনদিন আশা করি নি”।

আরও পড়ুনঃ মায়ের জন্য পাত্র চাই, সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট দিয়ে প্রশংসায় ভাসল মেয়ে

শিল্পী আরও বলেন, “সময় নিয়েই বেরিয়েছিলাম; কিন্তু রাস্তায় গাড়ি খারাপ হয়ে যাওয়ায় দেরি হয়ে যায়। ছাত্রছাত্রীদের গান শোনাতে গিয়ে এমন অপমানিত হব আশা করিনি”। এর আগে ইমন চক্রবর্তীকে এরকমই হেনস্থার শিকার হতে হয়। ফেসবুক লাইভে এসে ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন ইমন। বাংলার কলেজ গুলোর হাল; এই ঘটনায় আরও একবার প্রকাশ্যে এসে গেল। এটাই কি বাংলার কলেজ কালচার? প্রশ তুলেছেন শিল্পীরা।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন