আসাম এনআরসি-তে বাদ যাওয়া ৯০ শতাংশই হিন্দু, এনআরসি কাল হবে বিজেপির

312
আসাম এনআরসি-তে বাদ যাওয়া ৯০ শতাংশই হিন্দু, বাংলায় আশঙ্কার মুখে বিজেপি/The News বাংলা
আসাম এনআরসি-তে বাদ যাওয়া ৯০ শতাংশই হিন্দু, বাংলায় আশঙ্কার মুখে বিজেপি/The News বাংলা

আসাম এনআরসি-তে বাদ যাওয়া ৯০ শতাংশই হিন্দু; এনআরসি কাল হবে বিজেপির; বলছে রাজনৈতিক মহল। ভারতের উত্তরপূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামের ১৯ লাখেরও বেশি মানুষের নাম; জাতীয় নাগরিক পঞ্জী বা এনআরসি থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। রাজনৈতিক মহল বলছে; বিজেপির টার্গেট ছিল উদ্বাস্তু মুসলমানরা। কিন্তু তাদের সংখ্যা মাত্র দেড় লক্ষ। বাকি সাড়ে ১৭ লক্ষ্যই হিন্দু ও অন্যান্য ধর্মের। অর্থাৎ বাদ যাওয়া মানুষের ৯৩ শতাংশ হিন্দু। আর এটাই সমস্যায় ফেলে দিয়েছে; বাংলার বিজেপিকেও।

আসাম এনআরসি-র রাজ্য সমন্বয়ক প্রতীক হাজেলা জানিয়েছেন; “চূড়ান্ত তালিকায় মোট আবেদনকারীদের মধ্যে ৩ কোটি ৩০ লাখের মধ্যে; ৩ কোটি এগারো লাখ ২১ হাজার ৪ জন; ভারতের নাগরিক পঞ্জীতে অন্তর্ভূক্ত হয়েছেন; আর ১৯ লাখ ৬ হাজার ৬৫৭জন ওই তালিকায় স্থান পান নি”। গতবছর প্রকাশিত খসড়া এনআরসি তালিকায়; প্রায় ৪১ লক্ষ লোকের নাম বাদ পড়েছিল। তার মধ্যে প্রায় ৪ লক্ষ মানুষ; তালিকায় নাম তোলার জন্য পুনর্বিবেচনার আবেদন করেন নি।

আরও পড়ুনঃ কাশ্মীর ও বিক্রম কতদিন দৃষ্টি ঘুরিয়ে রাখতে পারবে, দেশে চাকরি যাচ্ছে লক্ষ লক্ষ মানুষের

সেই প্রায় ৪ লক্ষ মানুষ সহ; মোট ১৯ লক্ষের নাম বাদ গেছে। যদিও আসাম সরকার জানিয়েছে; এনআরসি থেকে বাদ পড়া মানুষদের এখনই বিদেশী বলে ঘোষণা করা হবে না; অথবা গ্রেপ্তারও করা হবে না। এদের বিদেশী ট্রাইবুনালে আবেদন করতে হবে; আজ থেকে ১২০ দিনের মধ্যে। তারা যদি বিচার করে বিদেশী বলে রায় দেন; তারপরেও হাইকোর্ট আর সুপ্রীম কোর্টের কাছে যে কেউ আবেদন জানাতে পারবেন।

গত কয়েকদিন ধরেই এই তালিকা প্রকাশকে কেন্দ্র করে; ব্যাপক সমস্যা কাজ করছে এনআরসি থেকে বাদ পড়া মানুষদের মধ্যে। কাজকর্ম ছেড়ে নতুন করে লড়ার প্রস্তুতি নিতে হচ্ছে। ব্যপক ক্ষোভ ছড়িয়েছে হিন্দুদের মধ্যেই। বিজেপির চাল সম্পূর্ণ উল্টো পড়েছে।

আরও পড়ুনঃ সর্বহারা চাষির ছেলের হাতে ভারতের চাঁদে নামার স্বপ্ন, মন্দির যাওয়া ও কান্না নিয়েই ব্যস্ত বাম

এনআরসি তালিকা থেকে বাদপড়া ১৯ লক্ষের মধ্যে; ১৭ লক্ষ হিন্দু ও অন্যান্য ধর্মের মানুষ রয়েছেন; তাই এই তালিকাটি ত্রুটিপূর্ণ; দাবী নেতাদের। এই ব্যাপারে আসামের বিভিন্ন নেতারা মুখ খুললেও; অদ্ভুতভাবে নীরব বরাক উপত্যকার বিজেপি বিধায়ক ও সাংসদরা। “নির্বাচনের সময় হিন্দুদের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়ে ভোট পেয়েছিলেন; তাই আমরা দাবি করছি হিন্দুদের সুরক্ষার দাবিতে আপনারা পদত্যাগ করুন”; এমনটাই দাবি সারা আসাম হিন্দু বাঙালি অ্যাসোসিয়েশন; গৈরিক ভারত-সহ বিভিন্ন হিন্দু সংগঠনের।

৩১ আগস্ট এনআরসি-র চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশের পর থেকেই; বিভিন্ন উপত্যকার বিভিন্ন হিন্দু সংগঠন এনআরসির কো-অর্ডিনেটর প্রতীক হাজেলার বিরুদ্ধে সরব হয়েছে। মানুষের অভিযোগ; এনআরসি নিয়ে হিন্দুদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হয়েছে; আর সেটা করেছে বিজেপি সরকার

আরও পড়ুনঃ মন্দিরে সুভাষ ধর্মে সীতারাম সিপিএম, ইসরোর বিজ্ঞানীকে সমালোচনা করে দ্বিমুখী নীতিতেই শেষ বাম

সারা আসাম বাঙালি হিন্দু এসোসিয়েশনের সভাপতি বাসুদেব শর্মা বলেন; “১৯ লক্ষের মধ্যে মাত্র দেড় লক্ষ মুসলমান এবং এর দ্বিগুণ হিন্দু রয়েছেন। ২০১৪ ও ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচন এবং ২০১৬ আসাম বিধানসভা নির্বাচনে; বিজেপির একমাত্র প্রতিশ্রুতি ছিল হিন্দুদের সুরক্ষা দেওয়া। আমরা বারবার তাদের কথায় কান দিয়েছি এবং আজ মনে হচ্ছে আমরা এক ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছি।

সাধারণ হিন্দুদেরও দাবী; “গতবছর এনআরসির খসড়া প্রকাশের পর থেকেই আমরা বুঝতে পেরেছিলাম; হিন্দুদের বাদ দেওয়ার এক বিশাল ষড়যন্ত্র চলছে। অথচ এনআরসি তৈরি করার মূল উদ্দেশ্য ছিল; বাংলাদেশ থেকে অবৈধভাবে ভারতে ঢুকে পরা মুসলমানদের চিহ্নিত করা”। মানুষের ক্ষোভ যত বাড়বে; বিজেপির তত ক্ষতি। এই ক্ষতির মাসুল না বাংলাতেও দিতে হয় বিজেপিকে; এটাই আশঙ্কা বাংলার নেতাদেরও।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন