বাল ঠাকরের নাতি আদিত্য ঠাকরে এবার মুখ্যমন্ত্রী পদের দাবিদার

98
বাল ঠাকরের নাতি আদিত্য ঠাকরে এবার মুখ্যমন্ত্রী পদের দাবিদার/The News বাংলা
বাল ঠাকরের নাতি আদিত্য ঠাকরে এবার মুখ্যমন্ত্রী পদের দাবিদার/The News বাংলা

শিবসেনা বিজেপি জোট নিয়ে; এখনও জল্পনা তুঙ্গে। আসন বন্টন তালিকাও বের করেনি কোন দল। জোট নিয়েও ধোঁয়াশা বাড়ছে ধীরে ধীরে। মহারাষ্ট্র বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে সমস্ত জল্পনার অবসান ঘটালেন; শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরের ছেলে আদিত্য ঠাকরে। এবারের বিধানসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন তিনি। পরিবারের মধ্যে তিনিই প্রথম সদস্য হিসেবে ভোটে দাঁড়াচ্ছেন। দলের ভাবী নেতা তিনিই। ওরলি বিধানসভা কেন্দ্র থেকে দাঁড়াবেন আদিত্য। এলাকাটি মুম্বইয়ের শিবসেনার শক্তঘাঁটি বলে পরিচিত। বর্তমানে আসনটি দখলে রয়েছে শিবসেনার।

শিবসেনা যুব সম্পাদক আদিত্য ঠাকরে বলেন; “এটা আমার কাছে শুধুই নির্বাচনে লড়ার সময় নয়; রাজ্য থেকে বেকারত্ব মুছে ফেলে নতুন রাজ্য গড়ব আমি”। শিবসেনার পক্ষ থেকে আদিত্যকে মুখ্যমন্ত্রী পদের মুখ করা হচ্ছে বলে খবর।

আরও পড়ুনঃ দুর্গা পুজোর বোনাস দিতে বাংলায় আসছেন অমিত শাহ

শিবসেনার এই অবস্থানে একমত নয়; বলে জানিয়েছে তাদের দীর্ঘদিনের জোটসঙ্গী বিজেপি। দলের মুখপাত্র সঞ্জয় রাউত বলেন; “কিছু প্রযুক্তিগত ত্রুটির কারণে; চাঁদে অবতরণ করতে পারেনি চন্দ্রযান-২, তবে আমরা নিশ্চিত করব যাতে; আদিত্য ঠাকরে ২১ অক্টোবর মুখ্যমন্ত্রীর দফতর পর্যন্ত পৌঁছাতে পারেন”।

আরও পড়ুনঃ অমিত শাহর দুর্গা পুজো উদ্বোধন ঘিরে জোর বিতর্ক, তৃণমূল বিজেপি লড়াই

এখন প্রশ্ন উঠছে তাহলে এবার কী জোট ভেঙে যাচ্ছে? পৃথক পৃথকভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে বিজেপি–শিবসেনা? কারণ ১৯৬৬ সালে বাল ঠাকরে দল প্রতিষ্ঠার পর; আজ পর্যন্ত কখনও তাঁদের পরিবারের কেউ ভোটে দাঁড়াননি বা কোনও সাংবিধানিক পদেও যাননি।

আরও পড়ুনঃ প্রধানমন্ত্রী মোদীকে অপমান করতে, ইমরানের নিমন্ত্রন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংকে

বাল ঠাকরেকে দেওয়া “প্রতিশ্রুতি” স্মরণ করেন উদ্ধব ঠাকরে বলেন যে; মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে “শিব সৈনিক” তৈরি করবেন। মহারাষ্ট্রের সার্বিক উন্নতির কথা ভেবেই ঠাকরে পরিবারের এই সিদ্ধান্ত বলে জানানো হয়।

অন্যদিকে, বিজেপির পক্ষ থেকে জোর দিয়ে বলা হয়েছে; বিজেপি–শিবসেনা জোট ক্ষমতায় ফিরলে; মুখ্যমন্ত্রী হবেন দেবেন্দ্র ফড়ণবীশ। সেক্ষেত্রে আদিত্য ঠাকরের জন্য; উপ-মুখ্যমন্ত্রী পদ ছাড়তে পারে তারা। কিন্তু তা মানতে নারাজ শিবসেনা।

তাদের বক্তব্য; ফড়ণবীশ সরকারে থেকে রাজ্যের কোনও উন্নতি হয়নি। মানুষের দাবি শিবসেনার পক্ষ থেকে এবার মুখ্যমন্ত্রী করা হোক। আর তাই এই সিদ্ধান্ত। এখন দেখার এই পরিস্থিতির শেষ কোথায়!

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন