ভারতের বিএসএফের উদ্যোগে মাকে শেষ দেখা দেখতে পেল বাংলাদেশি কন্যারা

44
ভারতের বিএসএফের উদ্যোগে মাকে শেষ দেখা দেখতে পেল বাংলাদেশি কন্যারা
ভারতের বিএসএফের উদ্যোগে মাকে শেষ দেখা দেখতে পেল বাংলাদেশি কন্যারা
Simple Custom Content Adder

ভারতের বিএসএফের উদ্যোগে; মাকে শেষ দেখা দেখতে পেল বাংলাদেশি কন্যারা। বিএসএফের সৌজন্যেই, মৃত মাকে শেষ দেখা দেখতে পেল; বাংলাদেশে অবস্থানরত কন্যারা। ঘটনাটি ঘটেছে নদীয়া জেলার সীমান্ত গ্রাম হাটখোলায়। গ্রামের বাসিন্দা নিওথালি হালসানা, বিএসএফের ৮২ ব্যাটালিয়নের সীমান্ত চৌকি হাটখোলার কোম্পানি কমান্ডারকে বলেন যে; তার মা আনোরা হালসানা ০৭ মে, ২০২২ তারিখে রাত ৯ টায় মারা গেছেন। তার বোনেরা সীমান্তের ওপারে বাংলাদেশে থাকে। বিএসএফ সাহায্য করলে; বোনেরা মায়ের শেষ দেখা দেখতে পাবে। মাকে শেষবারের মত দেখতে; বোনেদের জন্য এক ভাই অনুরোধ করেছিল বিএসএফ-কে।

নদীয়া জেলার সীমান্ত এলাকার, মাটিয়ারী গ্রামের বাসিন্দা নিওথালি হালসানা; হাটখোলার কোম্পানি কমান্ডারকে জানায় যে, তার মা আনোরা হালসানার মৃত্যু হয়েছে। তার দুই বোন ডলিয়া বিবি ও ওমেহার বিবি; বাংলাদেশের চুয়াডাঙ্গা জেলার, সীমান্ত গ্রাম কুতুবপুরে বাস করে। যা ভারত বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সীমান্ত থেকে; প্রায় এক কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। তিনি বিএসএফকে অনুরোধ করেন যে, তার বোনেরা যদি তার মায়ের শেষ দেখা দেখতে পায় তবে তারা খুব খুশি হবে।

এরপর কোম্পানি কমান্ডার অবিলম্বে মানবিক ও আবেগগত দিকটি মাথায় রেখে; কোন বিলম্ব না করে এ বিষয়ে তার সমকক্ষ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সঙ্গে যোগাযোগ করেন। বিএসএফের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে; বিজিবি-ও মানবিক দৃষ্টিভঙ্গির কথা বিবেচনা করে এগিয়ে আসে। উভয় দেশের সীমান্ত নিরাপত্তা বাহিনী, পারস্পরিক সহযোগিতার কথা মাথায় রেখে; মানবতাকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়। বাংলাদেশে বসবাসকারী বোনদের, ০৮ মে ২০২২ তারিখে; সকাল সাড়ে ১০ টা থেকে এগারোটা পর্যন্ত; আন্তর্জাতিক সীমান্তের কাছে জিরো লাইনে তাদের মায়ের শেষ দর্শনের ব্যবস্থা করে। এভাবেই মায়ের শেষ দেখা কন্যাদের পক্ষে সম্ভব হয়।

কন্যারা যখন মায়ের শেষ দেখা দেখতে পান; তখন সেখানকার পরিবেশ হয়ে উঠেছিল খুবই শোকাকুল। মাকে শেষবার দেখে, মৃতের কন্যারা সীমান্তরক্ষী বাহিনীর এই উদ্যোগের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন; “আপনাদের মানবিকতার কারণে; আমরা মায়ের শেষ দর্শন পেয়েছি”।

“বিএসএফ সর্বদা সামাজিক ও মানবিক মূল্যবোধের যত্ন নেয়”; ঘটনার পর জানিয়েছেন কমান্ডিং অফিসার এসপিসিং। তিনি আরও বলেন, “সীমান্ত নিরাপত্তা বাহিনী অসৎ উদ্দেশ্য যুক্তদের বিরুদ্ধে থাকলেও; মানবতা এবং মানবিক মূল্যবোধের ক্ষেত্রে সর্বদাই প্রস্তুত থাকে”।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন