আজ ‘বাংলাদেশি’ নিশীথ প্রামানিককে প্রথমে স্কুল শিক্ষক ও পরে পঞ্চায়েত উপপ্রধান করেছিল মমতার তৃণমূল

2254
আজ 'বাংলাদেশি' নিশীথ প্রামানিককে প্রথমে স্কুল শিক্ষক ও পরে পঞ্চায়েত উপপ্রধান করেছিল মমতার তৃণমূল
আজ 'বাংলাদেশি' নিশীথ প্রামানিককে প্রথমে স্কুল শিক্ষক ও পরে পঞ্চায়েত উপপ্রধান করেছিল মমতার তৃণমূল

মানব গুহ, কলকাতাঃ আজ ‘বাংলাদেশি’ নিশীথ প্রামানিককে; প্রথমে স্কুল শিক্ষক ও পরে পঞ্চায়েত উপপ্রধান করেছিল মমতার তৃণমূল। নিশীথ বিতর্কে এবার প্রশ্ন উঠেছে; এইভাবে কতজন ‘বাংলাদেশি’কে স্কুল শিক্ষক ও দলের নেতা বানিয়েছে তৃণমূল? কংগ্রেস সাংসদ রিপুন ভোরা যে প্রশ্ন তুলেছিলেন; সেই প্রশ্ন নিয়েই এবার সংসদে ঝড় তুলেছে তৃণমূল। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিশীথ প্রামাণিক কি; বাংলাদেশের নাগরিক? অথচ এই তৃণমূলই নিশীথ প্রামাণিককে প্রথমে স্কুল শিক্ষক; ও পরে দলের বড় নেতা বানিয়েছিল। তখন কি তাঁর নাগরিকত্ব দেখে নেয়নি; মমতার তৃণমূল? উঠে গেছে প্রশ্ন।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার স্বরাষ্ট্র ও যুব ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া; নিশীথ প্রামাণিকের নাগরিকত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে কংগ্রেস ও তৃণমূল। তাদের দাবি; নিশীথ বাংলাদেশের নাগরিক। তবে এমন দাবিকে ভিত্তিহীন বলেছেন; বিজেপি ও নিশীথের বড় জ্যাঠা দক্ষিণারঞ্জন প্রামাণিক। তিনি বলেন, “দেশভাগের অনেক আগেই, নিশীথের বাবা বিধুভূষণ প্রামাণিক; ২৬ বছর বয়সে ভারতে যান।

বিধু ভারতেই বিয়ে করেন; নিশীথের জন্মও ভারতে; তাঁর বিয়ে সংসার ছেলেপুলে সব ভারতে। কোচবিহারের দিনহাটা শহরেই; নিশীথের বর্তমান বাড়ি। তবে তাঁর আদি বাড়ি বা দেশ; স্বাধীনতার আগে থেকেই বর্তমান বাংলাদেশ। তার পিতৃভূমি বাংলাদেশের গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার; হরিনাথপুর ইউনিয়নের ভেলাকোপা গ্রামে।

এই বিষয়ে আরও পড়ুনঃ ‘বিদেশি নাগরিক’ দেশের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, তদন্ত করতে প্রধানমন্ত্রী মোদীকে চিঠি

নিশীথ প্রামাণিক পেশায় শিক্ষক ছিলেন; তাঁকে চাকরি দিয়েছিল তৃণমূল সরকার। ২০১৩ সালে তিনি ছিলেন, কোচবিহারের দিনহাটার ভেটাগুড়ি-১ পঞ্চায়েতের; তৃণমূলের উপপ্রধান। কোচবিহার জেলা তৃণমূলের; যুব সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তিনি। ক্রমে কোচবিহারে যুব তৃণমূলের; শক্তিশালী মুখ হয়ে উঠেছিলেন। তৃণমূলে থাকাকালীন কোচবিহারে তাঁর দাপটে; অনেক বড় নেতার রাতের ঘুম উড়ে গিয়েছিল। সেই নিশীথ গত লোকসভা নির্বাচনের আগে; বিজেপিতে যোগ দেন। বিজেপির টিকিটে; সাংসদও হন। এবার তাঁকেই করা হয়েছে; কেন্দ্রীয় মন্ত্রী।

বাংলাদেশের হরিনাথপুর ইউনিয়নের মেম্বার, জিয়াউর রহমান বলেছেন; “নিশীথের বড় জ্যাঠা মহিমারঞ্জন প্রামাণিক; ভারতে যাত্রাগান করতেন। মহিমারঞ্জন মারা গেছেন; তিনিও ভারতের নাগরিক ছিলেন। নিশীথ প্রামাণিক জন্মসূত্রেই; ভারতীয় নাগরিক। কিন্তু যতদিন নিশীথ প্রামাণিক তৃণমূলে ছিল, ততদিন সে ভারতীয় ছিল; আর বিজেপির মন্ত্রী হবার পরেই সে বাংলাদেশি হয়ে গেল? উঠে গেছে প্রশ্ন।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন