বাংলা বিধানসভা ভোটের আগে, মিঠুন চক্রবর্তীর বাড়িতে মোহন ভাগবত

3304
বাংলা বিধানসভা ভোটের আগে, মিঠুন চক্রবর্তীও কি গেরুয়া শিবিরে
বাংলা বিধানসভা ভোটের আগে, মিঠুন চক্রবর্তীও কি গেরুয়া শিবিরে

বাংলা বিধানসভা ভোটের আগে; মিঠুন চক্রবর্তীর বাড়িতে মোহন ভাগবত। আরএসএস প্রধানের এইভাবে মিঠুন চক্রবর্তীর বাড়িতে যাওয়ার পরেই; বেড়েছে জল্পনা। তাহলে কি, বাংলা বিধানসভা ভোটের আগে; মিঠুন চক্রবর্তীও কি গেরুয়া শিবিরে? উঠে গেছে প্রশ্ন। মঙ্গলবার, মিঠুন চক্রবর্তীর বাড়িতে গেলেন; মোহন ভাগবত। মিঠুন চক্রবর্তীর মালাডের বাংলোতে; প্রায় একঘণ্টা বৈঠক হয় তাঁদের। বাংলায় বিধানসভা ভোটের ঠিক আগেই; মিঠুন চক্রবর্তীর সঙ্গে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের প্রধান মোহন ভাগবতের বৈঠক নিয়ে; বাংলার রাজনীতিতে জল্পনা তুঙ্গে উঠেছে। যদিও মিঠুন চক্রবর্তী জানিয়েছেন; তাঁদের মধ্যে আধ্যাত্মিক আলোচনা হয়েছে। এর বাইরে আর কিছু আলোচনা হয় নি।

মিঠুন চক্রবর্তীর বাড়িতে; মোহন ভাগবত। মঙ্গলবার বসন্ত পঞ্চমীর সকালে মুম্বইয়ে; অভিনেতার বাড়িতে দু-জনের মধ্যে বৈঠক হয়। এর আগেও নাগপুরে মোহন ভাগবতের সঙ্গে; দেখা করেন মিঠুন চক্রবর্তী। সূত্রের খবর, তখনই ভাগবতকে নিজের বাড়িতে আসার জন্য; আমন্ত্রণ জানান মিঠুন। সেই আমন্ত্রণে সাড়া দিয়েই; ‘ডিস্ক ড্যান্স’ খ্যাত অভিনেতার বাংলোতে; হাজির হন আরএসএস প্রধান। বেশ কিছুক্ষণ কথা হয় দুজনের।

আরও পড়ুনঃ ভোটের মুখে রাজ্যে মেডিক্যাল কলেজে শিক্ষক নিয়োগে, ব্যাপক দুর্নীতি ও স্বজনপোষণের অভিযোগ

এই বৈঠক অরাজনৈতিক বলেই দাবি করা হয়েছে; দুজনের তরফ থেকেই। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মিঠুন জানান; তাঁদের মধ্যে আধ্যাত্মিক আলোচনা হয়েছে। অবশ্য এই বৈঠক নিয়ে কোনও মন্তব্য করেননি; মোহন ভাগবত নিজে। মিঠুন চক্রবর্তী দীর্ঘদিন তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে; যুক্ত ছিলেন। তৃণমূলের তরফে তাঁকে; রাজ্যসভার সদস্যও করা হয়। একটা সময় এ রাজ্যে তৃণমূলের হয়ে; ভোটের প্রচারেও দেখা গিয়েছে মিঠুনকে।

আরও পড়ুনঃ মইদুল ইসলামের পরিবার সরকারি চাকরি পেলে, উলেন রায়ের পরিবার কেন পাবে না

তবে, বছর পাঁচেক আগে একটি চিটফান্ড মামলায় নাম জড়িয়ে যাওয়ায়; রাজনীতির ময়দান থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন মিঠুন। অসুস্থতার কারণে ২০১৬ সালের শেষদিকে; সাংসদ পদও ত্যাগ করেন মিঠুন। দীর্ঘদিন রাজনীতি থেকে দুরে থাকার পর; আরএসএস প্রধানের সঙ্গে এই সাক্ষাৎ; স্বাভাবিক ভাবেই জল্পনা বাড়িয়েছে। নির্বাচনের মুখে মিঠুনের সমর্থন; বাংলায় গেরুয়া শিবিরকে বাড়তি অক্সিজেন দিতে পারে; বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন