মমতার ঘোষণার আগেই, একনজরে দেখে নিন তৃণমূলের সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকা

1456
মমতার ঘোষণার আগেই, একনজরে দেখে নিন তৃণমূলের সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকা
মমতার ঘোষণার আগেই, একনজরে দেখে নিন তৃণমূলের সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকা

ভোটের দিন ঘোষণা হয়ে গেছে। তবে কোন দলই এখনও প্রার্থী তালিকা; ঘোষণা করে নি। ভোটের দিন ঘোষণার পরেই; প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করে দেন, তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে এবার তিনিও ব্যতিক্রম। বুধবার ৩ তারিখ প্রার্থী তালিকা; ঘোষণা করতে পারেন মমতা। তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায়; জায়গা পেতে পারেন কোন কোন নেতা? কোন বিধায়কের কেন্দ্র; অপরিবর্তিত থাকতে পারে? কাদের কেন্দ্র পাল্টাতে পারে? প্রার্থী তালিকায় নতুন মুখ হিসেবে; উঠে আসতে পারেন কারা? বাদ পড়তে পারেন; কোন কোন নাম? প্রার্থী তালিকা ঘোষণার আগে; সেসব নিয়েই এখন চলছে জোর জল্পনা। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি; তৃণমূলের নিচুতলার নেতা ও কর্মী সমর্থকদের আগ্রহ দেখার মতো।

আজ বুধবার বিকালেই; তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করে দেবেন নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল সূত্রে এমনটাই খবর। তার আগে রাজনৈতিক মহলে, ও সাধারণ মানুষের মনে; এখন ঘুরপাক খাচ্ছে শুধুই কয়েকটা প্রশ্ন। তৃণমূলের এবারের প্রার্থী তালিকায়; কারা থাকছেন? কারা নতুন আসছেন? বাদই বা পড়ছেন কারা? সব নিয়ে রহস্য জমজমাট।

এই প্রথমবার কাশীপুর বেলগাছিয়া আসন থেকে; প্রার্থী হতে পারেন অতীন ঘোষ। তৃণমূলের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য; বর্তমানে পুর প্রশাসক পদে থাকা অতীন ঘোষ এর নামই রয়েছে; কাশীপুর বেলগাছিয়া কেন্দ্র থেকে। কয়েকজন হেভিওয়েট বিধায়ক-মন্ত্রী; পুরনো কেন্দ্র থেকেই প্রার্থী হতে পারেন। তৃণমূল সূত্রে খবর, ব্রাত্য বসু প্রার্থী হতে পারেন; নিজের দমদম কেন্দ্র থেকেই। এছাড়া, সুব্রত মুখোপাধ্যায় বালিগঞ্জ কেন্দ্রে। নয়না বন্দ্যোপাধ্যায় এবারও চৌরঙ্গীতে প্রার্থী হতে পারেন।

সুজিত বসু বিধাননগর; জাভেদ খান কসবা; অরূপ বিশ্বাস টালিগঞ্জ; পার্থ চট্টোপাধ্যায় বেহালা পশ্চিম; ফিরহাদ হাকিম কলকাতা বন্দর; শশী পাঁজা শ্যামপুকুর; তাপস রায় বরানগর; পার্থ ভৌমিক নৈহাটি; অরূপ রায় হাওড়া মধ্য; ইন্দ্রনীল সেন চন্দননগর; রবীন্দ্রনাথ ঘোষ নাটাবাড়ি; গৌতম দেব ডাবগ্রাম ফুলবাড়ি; জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক হাবড়া; দীপেন্দু বিশ্বাস বসিরহাট দক্ষিণ; সওকত মোল্লা ক্যানিং পূর্ব; বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় বারুইপুর পশ্চিম কেন্দ্রে প্রার্থী হতে পারেন।

আরও পড়ুনঃ বাংলা বিধানসভা নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই; মমতা বনাম শুভেন্দু, পার্থ বনাম শোভন

উপ নির্বাচনে জয়ী প্রদীপ সরকার খড়গপুর সদর এবং তরুণ মুখ দেবাংশু ভট্টাচার্য; বৈশালী ডালমিয়ার জায়গায় বালি থেকে প্রার্থী হতে পারেন; বলেই জানা যাচ্ছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে, ইতিমধ্যেই নন্দীগ্রাম থেকে; প্রার্থী হওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন। তৃণমূল সূত্রে খবর, তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায় নতুন চমক হিসেবে থাকতে পারেন; বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁর স্ত্রী সুজাতা মণ্ডল; সিপিএম থেকে বহিষ্কৃত, প্রাক্তন সাংসদ ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়; কংগ্রেস ছেড়ে আসা দেবরাজ চক্রবর্তী; সদ্য তৃণমূলে যোগ দেওয়া প্রাক্তন সিপিএম বিধায়ক লগনদেও সিং।

কয়েকজন বিধায়কের এবারও প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা থাকলেও; তাঁদের কেন্দ্র পাল্টাতে পারে। এই তালিকায় থাকতে পারেন শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়; চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য; পূর্ণেন্দু বসু; সমীর চক্রবর্তী; সৌরভ চক্রবর্তী। শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়কে মমতার ভবানীপুর কেন্দ্র থেকে; দাঁড় করানো হতে পারে বলেই জানা যাচ্ছে।

তৃণমূল সূত্রে খবর, যে বিধায়করা তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে গেছেন বা পদত্যাগ করেছেন; সেখানে কোন নতুন মুখকে প্রার্থী করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মমতা। যেমন, ব্যারাকপুর; বীজপুর; ডোমজুড়; হাওড়া উত্তর; কালনা; শান্তিপুর; উত্তরপাড়া; রাজারহাট নিউটাউন; রায়দিঘি; ভাঙড়; সিঙ্গুর, ভাটপাড়া, পাণ্ডবেশ্বর, বালি।

আরও পড়ুনঃ ‘বাংলার ছেলেকেই বাঙালিরা বাংলার সিংহাসনে দেখতে চায়’, বিজেপির মুখ্যমন্ত্রীর মুখ শুভেন্দুর পোস্টার

জানা যাচ্ছে, তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সভাপতি তৃণাঙ্কুর ভট্টাচার্য; প্রাক্তন সভানেত্রী জয়া দত্ত-সহ গৌতম ভট্টাচার্য; দেবাংশু ভট্টাচার্য; সুদীপ রাহার মতো বেশ কিছু নাম রয়েছে প্রার্থী তালিকায়। বালি থেকে দেবাংশুকে প্রার্থী করা হচ্ছে। জয়া আর গৌতমকে; উত্তর ২৪ পরগনার কোনও আসন থেকে প্রার্থী করা হচ্ছে। আর তৃণাঙ্কুর-কে; নৈহাটি লাগোয়া কোন বিধানসভায়। প্রার্থী হচ্ছেন; প্রাক্তন ছাত্রনেতা বৈশ্বানর চট্টোপাধ্যায়ও। দক্ষিণ ২৪ পরগনার কোনও একটি আসনে; তাঁকে প্রার্থী করা হচ্ছে।

উত্তরবঙ্গের ক্ষেত্রেও কিছু যুবনেতার নাম; এই তালিকায় থাকছে। কোচবিহার, আলিপুরদুয়ারে প্রবীণ নেতাদের অভিজ্ঞতার সঙ্গে; যুব শক্তিকে অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে। প্রার্থী তালিকায় থাকছেন; কোচবিহারের যুব নেতা তথা প্রাক্তন সাংসদ পার্থপ্রতিম রায়ের নাম। জঙ্গলমহল, ডুয়ার্সের তালিকায় রয়েছে; স্থানিয় মানুষদের প্রতিনিধির নাম। পাহাড়ে অবশ্য যথারীতি সেখানকার দলকেই; গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।

এবারের তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা থেকে; অনেক বিধায়ক বাদ যেতে পারেন। তাঁদের মধ্যে বর্ষীয়ান ও অসুস্থ বিধায়কদেরই; বাদ যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তুলনামূলক ভাবে এ বার অনেক নতুন মুখের উপর; আস্থা রাখতে চলেছে দল। অভিজ্ঞদের সঙ্গে নতুনদের মিশ্রণ থাকবে; এ বারের প্রার্থী তালিকায়। বর্তমানে তৃণমূলের বিধায়ক সংখ্যা ২০৭। সবাইকে যে টিকিট দেওয়া হবে না; সে বিষয়ে নিশ্চিত।

আরও পড়ুনঃ নন্দীগ্রামে মমতা বনাম শুভেন্দু ল’ড়াইয়ের আগেই

উল্লেখ্যযোগ্য ভাবে এ বার বাদ যেতে পারেন; সিঙ্গুরের বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য; শিবপুরের বিধায়ক জটু লাহিড়ী; বাসন্তীর বিধায়ক গোবিন্দ নস্কর ও হাওড়া দক্ষিণের বিধায়ক ব্রজমোহন মজুমদার। মমতাকে চিঠি লিখে, আগেই ভোট প্রক্রিয়া থেকে; সরে দাঁড়িয়েছেন প্রাক্তন মন্ত্রী তথা বর্ধমান দক্ষিণের অশীতিপর বিধায়ক রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়। এঁদের প্রত্যেকের বয়স আশির ঊর্ধ্বে। তাই নেতৃত্ব মনে করছে, এমন প্রবীণ বিধায়কদের বিশ্রাম দিয়ে; নতুনদের সুযোগ দেওয়া দরকার।

তবে গোটাটাই এখন জল্পনা। আসল ঘোষণা করবেন; তৃণমূল নেত্রী নিজের মুখেই। তাই এর অর্থ এটা নয় যে; সব আসনেই এমনটা ভাবা হয়েছে। যে জায়গায় দলীয় কোন্দল বা বর্তমান বিধায়কের নামে, দলীয় কর্মসূচিতে না থাকার অভিযোগ রয়েছে; সেখানেই এই ধরনের বদলের চমক থাকতে পারে। আবার অনেক বিধায়কের আসন বদলে দেওয়ার; কথাও সামনে এসেছে। সব মিলিয়ে প্রবল উত্তেজনায় ফুটছেন; তৃণমূলের নেতা, কর্মী ও সমর্থকরা। কার নাম চূড়ান্ত হবে? তা তালিকা প্রকাশ হলেই সামনে আসবে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন