বাংলায় ভোটের সূচি পরিবর্তনের রাস্তায় হাঁটল না নির্বাচন কমিশন

430
করোনা চুলোয় যাক, বাংলায় ভোট যেমন হচ্ছে তেমনই হবে
করোনা চুলোয় যাক, বাংলায় ভোট যেমন হচ্ছে তেমনই হবে

করোনা চুলোয় যাক; বাংলায় ভোট যেমন হচ্ছে তেমনই হবে। কোনরকমেই ভোটের শিডিউল; পরিবর্তন হচ্ছে না। শেষ তিন দফার ভোট একসঙ্গে নয়; ভোট হবে সূচি অনুযায়ীই; সব জল্পনা উড়িয়ে জানিয়ে দিল দিল্লি নির্বাচন কমিশন। বুধবার রাত থেকেই জল্পনা চলছিল, ১৭ তারিখের পঞ্চম দফা ভোটের পর; ২২, ২৬ ও ২৯ তারিখের শেষ তিন দফার ভোট নাকি হবে একদফায়। শোনা যাচ্ছিল, আগামী ২৪ এপ্রিল; শেষ তিন দফার ভোট একসঙ্গে হতে পারে। তৃণমূল ও সংযুক্ত মোর্চা; এই প্রস্তাব মেনে নিয়েছিল। তবে বিজেপির তরফে এই প্রস্তাব নিয়ে; তেমন কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি। তবে শেষ পর্যন্ত, নির্বাচন কমিশন পরিষ্কার জানিয়ে দিল; বাংলায় ভোটের সূচির কোন পরিবর্তন হচ্ছে না।

গত বৃহস্পতিবার দিল্লিতে নির্বাচন কমিশনের দপ্তর থেকে; রাজ্যের বিভিন্ন জেলাশাসকদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে; আলোচনা করেন নবনিযুক্ত মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুশীল চন্দ্র। বৈঠকে ছিলেন ডেপুটি কমিশনার সুদীপ জৈন। সূত্রের খবর, একদফায় নয়; পূর্বনির্ধারিত সূচি মেনে ১৭ তারিখের পর; আরও ৩ দফায় ভোট হবে।

দেশজুড়ে করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কা; ক্রমশই গুরুতর আকার নিচ্ছে। বাংলাও তার ব্যতিক্রম নয়। দৈনিক সংক্রমণ; লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। করোনার এই আবহেই; বাংলায় ৮ দফায় ভোট চলছে। ১৭, ২২, ২৬ এবং ২৯ এপ্রিল; বাকি চারদফার ভোটগ্রহণ পর্ব। শেষ এক সপ্তাহে; করোনার প্রকোপ আরও বেড়েছে। এই কারণেই জল্পনা উঠেছিল; ১৭ তারিখ ভোটের পরে; বাকি তিনদফার ভোট, একসঙ্গে ২৪ তারিখ হতে পারে।

আরও পড়ুনঃ ভারতের সাট্টা বাজারও জানাচ্ছে, বাংলায় জিতছে বিজেপি

কিন্তু সেই জল্পনা উড়িয়ে দিল কমিশন। জানানো হল, পূর্বনির্ধারিত সূচি মেনেই; বাংলায় বাকি দফাগুলোয় ভোট হবে। এক দফায় ভোট করাতে হলে, কমিশনের আগের সমস্ত বিজ্ঞপ্তি বাতিল করে; নতুন করে বিজ্ঞপ্তি জারি করতে হবে। তাতে সময়ও লাগবে। সেই জটিলতা এড়াতেই, ভোটের সূচি অপরিবর্তিত রাখা হল; বলেই মনে করা হচ্ছে।

কমিশন সূত্রে আরও খবর, তিনদফার নির্বাচন একদফায় করাতে হলে; অন্তত ১৫০০ অতিরিক্ত আধাসেনা প্রয়োজন। আরও বেশি পুলিশ পর্যবেক্ষকও দরকার। সেই সব এই শেষ মুহূর্তে ব্যবস্থা করাটা; একেবারেই অসম্ভব। তাই, বাংলায় বিধানসভা ভোটের সূচি পরিবর্তনের রাস্তায়; হাঁটল না নির্বাচন কমিশন।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন