সিঙ্গুরে শিল্প হবে, চাকরি হবে, সিঙ্গুরের মাটিতে ঘোষণা মমতার

656
সিঙ্গুরে শিল্প হবে, চাকরি হবে, সিঙ্গুরের মাটিতে ঘোষণা মমতার
সিঙ্গুরে শিল্প হবে, চাকরি হবে, সিঙ্গুরের মাটিতে ঘোষণা মমতার

সিঙ্গুরে শিল্প হবে, চাকরি হবে; সিঙ্গুরের মাটিতে দাঁড়িয়ে ঘোষণা মমতার। নন্দীগ্রামের পর সিঙ্গুর। মমতাকে ক্ষমতায় আনা; দুটো উল্লেখযোগ্য নাম। মঙ্গলবার নন্দীগ্রামের ভোট প্রচার সেরে; এদিন সিঙ্গুরে পৌঁছে যান তৃণমূল নেত্রী। আর সিঙ্গুরে দাঁড়িয়েই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করলেন; “আমার সঙ্গে কথা হয়েছে। সিঙ্গুরে শিল্প হবেই। অনেক কর্মসংস্থান হবে”। সিঙ্গুরে মমতার এই প্রতিশ্রুতি শুনে, বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা পাল্টা বলেন; “১০ বছরে কি করলেন মমতা; ভোটের সময় মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন”। সবমিলিয়ে নন্দীগ্রামে বৃহস্পতিবারের ভোটের আগেই; এবার শুরু হয়ে গেল পরিবর্তনের আর এক অধ্যায় সিঙ্গুর নিয়েও।

নন্দীগ্রামে যেমন মুখোমুখি আন্দোলনের দুই মুখ; মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও শুভেন্দু অধিকারী। ঠিক তেমনই সিঙ্গুরে এবার মুখোমুখি; জমি আন্দোলনের প্রথম সারিতে থাকা দুই মুখ। একদিকে তৃণমূলের বেচারাম মান্না আর অন্যদিকে; সদ্য তৃণমূল থেকে বিজেপি যোগ দেওয়া রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়। অর্থাৎ, সিঙ্গুরের ভোটে যে শিল্প ইস্যু উঠে আসবেই; তা বলাই বাহুল্য। আর সেই কারণেই সিঙ্গুরে দাঁড়িয়ে; মমতা এদিন বললেন; “আমি কথা দিচ্ছি, আগামী দিনে সিঙ্গুরে; শিল্পাঞ্চল গড়ে উঠবে। আগে অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রি হবে। তারপর এখানে বড় শিল্প হবে। আমার কথা হয়েছে”।

আরও পড়ুনঃ মুসলিম ভোটের ভরসায়, নন্দীগ্রামে শুভেন্দুকে হারাতে পারবেন মমতা

এরপরেই নিজের পুরনো সহকর্মীকে; একহাত নেন মমতা। তৃণমূলের টিকিট না পেয়ে, অভিমানেই দল ছেড়েছেন সিঙ্গুরের ‘মাস্টারমশাই’ রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য। দলবদল করার পর, সেই সিঙ্গুর থেকেই; বিজেপি টিকিট দিয়েছে তাঁকে। মমতার দাবি, এভাবে ধার করেই; প্রার্থী করেছে বিজেপি। তিনি এদিন বলেন; “বেচারা মাস্টারমশাইকে কোথায় একটু পা টিপে দেবে; তেল মালিশ করে দেবে, তা নয়; দাঁড় করিয়ে দিয়েছে গরমের মধ্যে। কষ্ট হচ্ছে না লোকটার?”

সিঙ্গুর তাঁর কাছে কতটা গুরুত্বপূর্ণ; তা বোঝাতে মমতা এদিন বলেন; সিঙ্গুরের জন্য ১৫০০ কোটি টাকা খরচ করেছি। এখানকার জমিকে চাষযোগ্য করার জন্য; অনেক কিছু করেছি। সিঙ্গুরের সেই আন্দোলন এখন; পাঠক্রমেও জায়গা পেয়েছে”। আর এরপরেই সিঙ্গুরে, মমতার শিল্প প্রতিশ্রুতি নিয়ে; সমালোচনা শুরু করেছে বিজেপি। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা পাল্টা প্রশ্ন তোলেন; “১০ বছরে শিল্প করেন নি কেন? ভোটের সময় মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন? সবমিলিয়ে নন্দীগ্রামের পর; এবার নজরে সিঙ্গুর।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন