ত্রিপুরায় চালু হয়েছে সপ্তম পে কমিশন, মানিক সরকার কেন মিথ্যা বলছেন

898
ত্রিপুরায় চালু হয়েছে সপ্তম পে কমিশন, মানিক সরকার কেন মিথ্যা বলছেন
ত্রিপুরায় চালু হয়েছে সপ্তম পে কমিশন, মানিক সরকার কেন মিথ্যা বলছেন

“বিজেপি কথা রাখেনি, চার বছর পরও; ত্রিপুরায় সপ্তম পে কমিশন চালু হয়নি”; বাংলায় প্রচারে এসে এমন কথাই বললেন; ত্রিপুরার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার। পাল্টা প্রশ্ন তুলেছে বিজেপি? কেন মিথ্যা বলছেন মানিক সরকার? বছর চারেক আগে ‘চলো পাল্টাই’ স্লোগানে ভর করে; ত্রিপুরায় বামেদের ২৫ বছরের শাসন; শেষ করেছিল বিজেপি। বাংলায় এসেও ফের সেই স্লোগান তুলেছেন; প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। অন্যদিকে, ঠিক সেই সময়েই উত্তরবঙ্গে দাঁড়িয়ে; মানিক সরকার তীব্র আক্রমণ শানালেন বিজেপিকে। বিজেপির ‘ডবল ইঞ্জিন সরকারের’ প্রতিশ্রুতিকে; ফাঁপা বলে দাবি করে মানিক জানান; “যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে ত্রিপুরায় বিজেপি ক্ষমতায় এসেছিল; তা কিন্তু এখনও পূরণ হয়নি”।

ত্রিপুরার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার, ত্রিপুরার বিভিন্ন উদাহরণ টেনে; ডবল ইঞ্জিন সরকারের তুমুল সমালোচনা করেন। তিনি বলেন; “ত্রিপুরার মানুষকে বিভ্রান্ত করে; ক্ষমতায় এসেছে বিজেপি। সেখানেও ভোটের আগে, সরকারি কর্মচারীদের মন জয় করার জন্য; সপ্তম পে কমিশন চালুর প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু চার বছর কেটে যাওয়ার পরও; সপ্তম পে কমিশন চালু করেনি বিজেপি”।

আরও পড়ুনঃ বিজেপিকে ভোট, অপরাধে মহিলাদের শারীরিক হেনস্থা করে শাড়ি খুলে দেওয়ার অভিযোগ

মানিক সরকার কেন মিথ্যা বলছেন? The News বাংলা ফ্যাক্ট চেক করতে গিয়ে, জানতে পারে; ভুল বলছেন মানিক সরকার। নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহ ত্রিপুরায় গিয়ে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে; ক্ষমতায় এলে সরকারি কর্মচারীদের জন্য; দ্রুত সপ্তম বেতন কমিশন চালু করবে বিজেপি। এবং ত্রিপুরায় সপ্তম বেতন কমিশন; ইতিমধ্যেই চালু হয়ে গেছে।

দেখা যাচ্ছে, ক্ষমতায় আসার পরেই, বিজেপি সরকারের তরফ থেকে; আসামের প্রাক্তন মুখ্যসচিব পিপি ভার্মার নেতৃত্বে; একটি কমিটি গঠন করা হয়। সেই কমিটি সরকারকে রিপোর্ট জমা দেওয়ার পরে; রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সপ্তম বেতন কমিশনের কথা ঘোষণা করেন। টুইট করে তিনি জানিয়েছিলেন, এই নয়া বেতন কমিশন; ১; ১০; ২০১৮ থেকে কার্যকর করা হবে। এর পরে, আমরা এই বেতন কমিশন কার্যকর করার; সরকারি বিজ্ঞপ্তিও খুঁজে পাই।

আরও পড়ুনঃ দিদি বলছেন ‘সব মুসলিম এক হও’, আমরা যদি বলতাম ‘সব হিন্দু একজোট হও’

১১ই অক্টোবর, ২০১৮ সালে ত্রিপুরা সরকারের অর্থমন্ত্রক; এই বিজ্ঞপ্তি জারি করে। বিজ্ঞপ্তির নম্বর; F. 7(2)-FIN(PC)/2018/। এমনকি চালু হওয়া এই সপ্তম বেতন কমিশনে, বেতনের পরিকাঠামো নিয়ে; প্রশ্ন তুলেছিল ত্রিপুরার বিরোধীরা। রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল সিপিএম বলেছিল, “এই বেতন কমিশন জারি করে; মানুষকে ধোঁকা দেওয়া হচ্ছে”। রাজ্যের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী ভানুলাল সাহা জানিয়েছিলেন; “কেন্দ্রের বেতন কাঠামোর সঙ্গে; ত্রিপুরার সপ্তম বেতন কমিশনের কাঠামোর কোনও সামঞ্জস্য নেই”।

অর্থাৎ ত্রিপুরার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার; বেমালুম মিথ্যা বলছেন। হ্যাঁ এটা ঠিক যে, কেন্দ্রীয় হারে বেতন পরিকাঠামো হয়নি; ত্রিপুরার রাজ্য সরকারি কর্মীদের। কিন্তু সপ্তম বেতন কমিশন চালু হয়েছে; বেতন অনেক বেড়েছে সরকারি কর্মীদের। তাহলে বাম নেতারা কেন ভুল বোঝাচ্ছেন মানুষকে? শুধুই কি ভোটের জন্য? উঠেছে প্রশ্ন।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন