জোর ধাক্কা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে, ভোট পরবর্তী হিংসা মামলা সিবিআই-এর হাতে

5904
জোর ধাক্কা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে, ভোট পরবর্তী হিংসা মামলা সিবিআই-এর হাতে
জোর ধাক্কা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে, ভোট পরবর্তী হিংসা মামলা সিবিআই-এর হাতে

জোর ধাক্কা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে; ভোট পরবর্তী হিংসা মামলা সিবিআই-এর হাতে দিল কলকাতা হাইকোর্ট। ভোট পরবর্তী অশান্তি মামলায় সিবিআইকে; তদন্ত ভার দিল হাইকোর্টের বৃহত্তম বেঞ্চ। বুধবার মামলার রায় ঘোষণা করে; কলকাতা হাইকোর্ট। খুন-ধর্ষণে CBI তদন্ত; কম অশান্তির ঘটনায় SIT গঠনের নির্দেশ হাইকোর্টের। ভোট পরবর্তী হিংসা মামলায়; সিবিআই-কেই তদন্তভার তুলে দিল কলকাতা হাইকোর্টের বৃহত্তর বেঞ্চ। এর ফলে জোর ধাক্কা খেল; রাজ্য সরকার। NHRC-র সুপারিশেই সিলমোহর হাইকোর্টের; বাংলায় ভোট পরবর্তী হিংসার তদন্ত করবে CBI।

রাজ্য সরকার যদিও প্রথম থেকেই; বাংলায় ভোট পরবর্তী হিংসার কথা অস্বীকার করছিল। বিজেপির অভিযোগের পরে, ভোট পরবর্তী খুন ও ধর্ষণের ঘটনায়; সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিল, হাইকোর্টের বৃহত্তর বেঞ্চ। আগামী ৬ সপ্তাহের মধ্যে; জমা দিতে হবে রিপোর্ট। ভাঙচুর করা, আগুন লাগানো, মারধর করা, ঘরছাড়া করার মতো; অপেক্ষাকৃত কম অশান্তির ঘটনায় সিট গঠন করার নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

লোকাল ট্রেন বন্ধ, লক্ষ্মীর ভাণ্ডারে মেয়েদের লাইন লজ্জা দিল বনগাঁ লোকালকেও

সেই রিপোর্টও ছ-সপ্তাহের মধ্যে; জমা দিতে হবে। এছাড়াও হাইকোর্টের তরফে জানানো হয়েছে, ভোট পরবর্তী হিংসায় যাঁরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন; তাঁদের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে রাজ্য সরকারকে। দুই তৃণমূল নেতা জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক ও পার্থ ভৌমিক; এই মামলায় যুক্ত হতে চেয়েছিলেন। তাঁদের আবেদনও; খারিজ করে দেয় উচ্চ আদালত। এই রায় রাজ্য সরকারের কাছে, বড় ধাক্কা বলেই মনে করছেন; রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

ভোট পরবর্তী অশান্তি মামলায়; রায় দিল কলকাতা হাইকোর্ট। তার আগে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সদস্যদের নিয়েই; প্রশ্ন তোলে রাজ্য সরকার। তাদের দাবি, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সদস্যরা; রাজনৈতিক পক্ষপাতদুষ্ট। ভোট পরবর্তী অশান্তির ঘটনায়; রাজ্য পুলিশ যথাযথ ব্যবস্থা নিয়েছে। জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সদস্যরা; মিথ্যা সাক্ষ্য সংগ্রহ করে রিপোর্ট দিয়েছেন।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্টে; কুখ্যাত দুষ্কৃতীদের তালিকায় নাম রয়েছে তৃণমূল নেতা-মন্ত্রীদের। কোন মাপকাঠিতে কমিশন ওই তালিকা তৈরি করেছে; তা নিয়েও প্রশ্ন তোলে রাজ্য সরকার। আদালতের রায়ে স্বভাবতই খুশি বিজেপি নেতৃত্ব। এ প্রসঙ্গে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন; “আমরা প্রথম থেকেই বলে আসছিলাম; হিংসা হচ্ছে। এনএইচআরসি-র রিপোর্টে কোনও পক্ষপাতিত্ব নেই; সেটা আদালতের রায়েই প্রমাণিত হল। এবার নির্যাতিত, নিগৃহীতরা; বিচার পাবেন”।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন