ফের মধ্যযুগীয় ব’র্বরতার সাক্ষী রাজ্য, মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন বাংলার আদিবাসী মেয়ে

1797
ফের মধ্যযুগীয় ব'র্বরতার সাক্ষী রাজ্য, মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন বাংলার আদিবাসী মেয়ে
ফের মধ্যযুগীয় ব'র্বরতার সাক্ষী রাজ্য, মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন বাংলার আদিবাসী মেয়ে

ফের মধ্যযুগীয় ব’র্বরতার সাক্ষী রাজ্য; মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন বাংলার মেয়ে। ডাইনি সন্দেহে এক মহিলাকে মারধর; ও তাঁর বাড়িতে লুঠপাট করা হয়। ডাইনি অপবাদেই ওই মহিলাকে; বেধড়ক মারধর করলেন গ্রামবাসীরা। মারধরের সঙ্গে সঙ্গে মহিলার বাড়িতেও; ভাঙচুর ও লুটপাঠের অভিযোগ ওঠে। আক্রান্ত মহিলাকে; হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরিবারের তরফে স্থানীয় থানায়; লিখিত অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে; চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। মায়ের মৃত্যুর পর, বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাঠ চালিয়ে; মারধোর করা হল মেয়েকে। ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুরের; গোয়ালতোড় এলাকায়।

আরও পড়ুনঃ করে দেখাল ইডি, পলাতক মালিয়া মোদী চোকসির ৯ হাজার কোটি টাকারও বেশি সম্পত্তি ব্যাঙ্কে ফেরত

নিগৃহীত মহিলা; আদিবাসী সম্প্রদায় ভুক্ত। আক্রান্ত মহিলা, পশ্চিম মেদিনীপুরের গোয়ালতোড়ের মালবান্ধি গ্রামের; বাসিন্দা দুর্গামণি টুডু। মাসখানেক হল তিনি; তাঁর মাকে হারিয়েছেন। দুরারোগ্য ক্যান্সারে রোগে; আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছিলেন তিনি। এরপর থেকেই গ্রামের মাতব্বররা, দুর্গামণি টুডুকে ডাইনি অপবাদ দিয়ে; রীতিমত হুমকি দিত বলে অভিযোগ উঠেছে।

আরও পড়ুনঃ সাংসদ অভিনেত্রী মিমিকে, বাংলায় তৈরি ‘জাল’ করোনা ভ্যাকসিন দিল ফেক সরকারি অফিসার

মঙ্গলবার দুপুরে তিনি গ্রামেরই একটি কল থেকে; জল আনতে যান দুর্গামণি টুডু। তখনই গ্রামের জানগুরুর নিদানে; তাঁকে বেধড়ক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। ঘটনার পর সেখানেই, দূর্গামণি অচৈতন্য অবস্থায়; পড়েছিলেন দীর্ঘক্ষণ। পরিবারের লোকজন তাকে খুঁজতে এসে; কলপাড়ে পড়ে থাকতে দেখেন। তাঁরাই তাঁকে উদ্ধার করে; প্রথমে গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যায়।

আরও পড়ুনঃ একহাতে স্টেথোস্কোপ ও অন্যহাতে রাইফেল নিয়ে সেনা ও সীমান্ত পাহারায় দীপশিখা

প্রাথমিক চিকিত্‍সার পর রোগীকে; স্থানান্তরিত করা হয় বিষ্ণুপুর হাসপাতালে। সেখানেই চিকিত্‍সা চলছে; আক্রান্ত মহিলার। ঘটনার পর গোয়ালতোড় থানায়, মহিলাকে মারধরের পাশাপাশি; বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাঠের লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন; দূর্গামণির পরিবারের লোকজন। শুধুই কি ডাইনি অপবাদের জন্য; মারধর নাকি অন্য কোনও কারণ আছে; তাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন