অপেক্ষার অবসান, জানুয়ারি মাসেই পশ্চিমবঙ্গের মানুষ পেতে চলেছেন করোনা ভাইরাস টিকা

4392
অপেক্ষার অবসান, জানুয়ারি মাসেই পশ্চিমবঙ্গের মানুষ পেতে চলেছেন করোনা ভাইরাস টিকা
অপেক্ষার অবসান, জানুয়ারি মাসেই পশ্চিমবঙ্গের মানুষ পেতে চলেছেন করোনা ভাইরাস টিকা

সব অপেক্ষার অবসান; সব জল্পনারও অবসান। আগামী বছরের জানুয়ারি মাসেই, পশ্চিমবঙ্গের হাতে আসছে; করোনা ভাইরাসের টিকা ‘কোভ্যাকসিন’। আগামী মাসেই, দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি এই করোনা টিকার; তৃতীয় দফায় ট্রায়াল শুরু হবে। হায়দরাবাদের ‘ভারত বায়োটেক’ ও আইসিএমআরের (ICMR) যৌথ উদ্যোগে; সেই ট্রায়ালের অন্যতম শরিক বাংলাও। আর ঠিক চার মাসের মাথায়; জানুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে করোনা ভ্যাকসিন পাবে পশ্চিমবঙ্গ। দেশের শীর্ষ স্বাস্থ্য সংস্থা, আইসিএমআরের বাংলার দায়িত্বে থাকা; নাইসেড ডিরেক্টর ডাঃ শান্তা দত্ত, এমনই আশার কথা শুনিয়েছেন।

আরও পড়ুনঃ চিনের বিমান হেলিকপ্টার দেখলেই উড়িয়ে দেওয়া হবে, লাদাখে সেনার কাঁধে এয়ার ডিফেন্স মিসাইল

ভারতে তিন করোনা টিকার; দুটি পৌঁছাল তৃতীয় ও শেষ স্টেজে। ভারতে করোনার প্রতিষেধক বা করোনা টিকা গবেষণার প্রশ্নে; এই মুহূর্তে তিনটি টিকা মানব শরীরে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের বিভিন্ন পর্যায়ে রয়েছে। এই তিনটি হল, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের তৈরি করোনা প্রতিষেধক ‘কোভিশিল্ড’; ভারত বায়োটেক ও আইসিএমআরের করোনা টিকা ‘কোভ্যাক্সিন’ ও জাইডাস ক্যাডিলার ‘জাইকোভ-ডি’ টিকা।

জাইডাস ক্যাডিলার টিকা জাইকোভ-ডি; মানবদেহে প্রয়োগের প্রথম ধাপ পেরিয়েছে। আর, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের করোনা টিকা ‘কোভিশিল্ড’; পৌঁছে গেছে তৃতীয় ও শেষ দফার পরীক্ষায়। ভারত বায়োটেক ও আইসিএমআরের দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি ‘কোভ্যাক্সিন’ টিকারও; তৃতীয় দফার ট্রায়ালও শুরু হচ্ছে। সব ঠিকঠাক চললে; ৪-৫ মাস পরেই ‘কোভ্যাক্সিন’ টিকা এসে যাবে বাজারে; মানুষের ব্যবহারের জন্য।

আরও পড়ুনঃ দেশে তৈরি ৯ টি মিসাইল দেখে, কাঁপে ভারতের সব শত্রু দেশ

একবার এই ভ্যাকসিন শরীরে ঢুকলেই; করোনার বিরুদ্ধে তৈরি হবে জীবনভর প্রতিরোধ ক্ষমতা; এমনটাই দাবি নাইসেডের। শুধু পশ্চিমবঙ্গ নয়, উত্তরপ্রদেশ, চেন্নাই, হায়দরাবাদ এবং দিল্লি-তেও; পৌঁছে যাবে এই ভ্যাকসিন। মার্চ মাসের মধ্যে পর্যায়ক্রমে; গোটা দেশে পৌঁছে যাবে; এই করোনার প্রতিষেধক। নাইসেড ডিরেক্টর ডা শান্তা দত্ত মঙ্গলবার বলেছেন; “ভারত বায়োটেক সংস্থার করোনা ভ্যাকসিনের; আগস্টের ট্রায়াল সফল। সেপ্টেম্বর মাসে দেশের বাছাই করা, পাঁচটি শহরে; তৃতীয় দফার ট্রায়াল হবে। সেই ট্রায়ালে অন্যতম অংশীদার পশ্চিমবঙ্গ। অন্তত এক লক্ষ নাগরিক এই ট্রায়ালে অংশ নেবেন”।

নাইসেড অধিকর্তার কথায়; “এই ট্রায়াল সফল যে হবে; সে বিষয়ে আশাবাদী সকলে। তার ঠিক চারমাস পর; পশ্চিমবঙ্গে করোনা ভ্যাকসিন আসবে। শুরু হবে গণটিকাকরণ”। শান্তা দত্তের কথায়, “নিয়ম অনুযায়ী তৃতীয় দফায় ভ্যাকসিনের ফল কেমন হল; তা যাচাই করতে চার থেকে ছমাস সময় লাগে। তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমতি সাপেক্ষে; জানুয়ারি মাসেই করোনা ভ্যাকসিন পাওয়া যাবে”।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন