পুরভোটে জিততে কি কি ব্যবস্থা নিচ্ছেন মুকুল রায়

371
পুরভোটে জিততে কি কি ব্যবস্থা নিচ্ছেন মুকুল রায়/The News বাংলা
পুরভোটে জিততে কি কি ব্যবস্থা নিচ্ছেন মুকুল রায়/The News বাংলা

বাংলায় পুরভোটে জিততে গেরুয়া ভরসা সেই মুকুল রায়। গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব সামলে কামাল করতে পারবেন মুকুল? সেটাই এখন বড় প্রশ্ন। কিন্তু ভোট বৈতরণী পার হতে; সেই মুকুল রায়ের ওপরই ভরসা রাখতে হল রাজ্য বিজেপিকে। দ্বিতীয়বার সভাপতি পদে দিলীপ ঘোষ বসলেও; পুরভোটে ভরসা সেই মুকুল রায়। সামনের পুরনির্বাচনে রাজ্য বিজেপির আহ্বায়ক নির্বাচিত করা হয়েছে সেই মুকুল রায়কেই।

পুরভোটে বিজেপির কাণ্ডারি মুকুল রায়; কিন্তু তাঁর সামনে চ্যালেঞ্জ গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব সামালানো। যেটা বাংলায় বিজেপির সবচেয়ে বড় সমস্যা। মুকুলের পক্ষে কাজ করেছে; নির্বাচনী স্ট্রাটিজিস্ট হিসাবে তার ধারাবাহিক সাফল্য। তা সে তৃণমূল হোক বা বিজেপি, মুকুলের নির্বাচনী ফল সব দলেই চমকে দেওয়ার মতো।

আর তাই, আসন্ন পুরসভা নির্বাচনে বিজেপির বৈতরণী পার করানোর দায়িত্ব বর্তেছে; মুকুল রায়ের ঘাড়ে। আর তাই, পুরভোট পরিচালনার জন্য বিজেপির যে কমিটি গঠন করা হয়েছে তার আহ্বায়ক করা হয়েছে মুকুলকে। সহ আহ্বায়ক হয়েছেন; রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় সিং।

এপ্রিলের মাঝামাঝি পুরভোট। তার আগে ঘর গোছাতে শুরু করেছে; সমস্ত রাজনৈতিক দল। ভোট হবে রাজ্যের ১০০-র বেশি পুরসভায়। আর তাকেই ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনের আগে সেমিফাইনাল হিসাবে দেখছে বাংলার রাজনৈতিক মহল। লোকসভা নির্বাচনের ঠিক ১ বছর পরে; পুর নির্বাচনেও সাফল্যের সেই ধারা ধরে রাখতে মরিয়া বিজেপি। তাই লোকসভা নির্বাচনের কাণ্ডারিকেই পুরভোট পরিচালনার দায়িত্ব দিয়েছে তারা।

গত লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে; ২৩টি আসনের টার্গেট দিয়েছিল কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। মুকুল রায় ১৮ পর্যন্ত পৌঁছে দিয়েছেন দলকে। দক্ষিণ মালদা আর আরামবাগে কয়েকশো ভোট এদিক ওদিক হলে ২০টি আসন পেয়ে যেত বিজেপি। আর তাই এবারের পুরভোটেও বিজেপির আহ্বায়ক সেই মুকুল রায়।

বিজেপির এখন পাখির চোখ আসন্ন পুরনির্বাচন। যেভাবেই হোক পুরসভাগুলিতে বিজেপির দখল বাড়াতে মরিয়া হয়ে উঠেছে তারা। লোকসভা ভোটের আগে থেকেই বিজেপির টার্গেট ছিল পুরসভাগুলি। রাজ্যের একাধিক পুরসভায় শাসকদলকে রীতিমত সংকটে ফেলে দিয়েছিলেন মুকুল। 

মুকুল রায় এবং তাঁর দল বদলের রাজনীতি; বড়সড় সাফল্য পেয়েছিল। পাহাড় থেকে সমতল সব জেলাতেই পুরসভাগুলিতে; শাসক দলকে রীতিমত চাপে ফেলে দিয়েছিল বিজেপি। বিধানসভা ভোটের আগে পুরভোট দখলে মরিয়া হয়ে উঠেছে বিজেপি। কারণ পুরসভাগুলি দখল করতে পারলে; আগামী বিধানসভা ভোটে ভাল ফল করা; অনেকটাই সহজ হয়ে যাবে গেরুয়া শিবিরের পক্ষে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে; একদা তৃণমূলের সেকেন্ড ইন কম্যান্ড মুকুল রায়; শাসকদলের ফাঁকফোকোড় সব থেকে ভাল জানেন। তাছাড়া তৃণমূলের বিক্ষুব্ধরা অনেকেই মুকুলের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলছেন। যা নির্বাচনে ব্যবহার করতে পারে বিজেপি।

রাজ্যের পুরভোটকে মাথায় রেখে ৫৭ জনের কমিটি গঠন করেছে বিজেপি। যার নেতৃত্বে রয়েছেন মুকুল রায়। তার ডেপুটি হিসেবে থাকছেন রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় সিং। দিলীপ ঘোষ থাকলেও তেমন গুরুত্ব তাঁকে দেওয়া হবে বলে মনে হয়না। কারণ কমিটিতে দলভারী করেছেন রাহুল সিনহা ঘনিষ্ঠরা। 

রাহুল সিনহা নিজে কমিটিতে জায়গা করে নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে; রিতেশ তিওয়ারি জায়গা করে নিয়েেছন সেখানে। শ্রীরামপুরে পুরভোটের দায়িত্বে রয়েছেন তিনি। এছাড়া বাবুল সুপ্রিয় এবং দেবশ্রী চৌধুরীও রয়েছেন কমিটিতে। এমনকি তৃণমূল কংগ্রেস থেকে আসা বিধায়কদেরও জায়গা দেওয়া হয়েছে এই কমিটিতে।

তাই পুরভোটে জেতার আগেই; চ্যালেঞ্জও রয়েছে মুকুলের সামনে। তাঁর সামনে সব থেকে বড় চ্যালেঞ্জ বিজেপির গোষ্ঠী দ্বন্দ্ব। পুরভোটের টিকিট নিয়ে বিজেপির ঘরোয়া কোন্দল চরমে পৌঁছবে বলেই আশঙ্কা। সেই অশান্তি সামাল দিয়ে মুকুল রায়; বিজেপিকে রাজ্যে কতটা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারেন সেদিকেই এখন নজর সবার।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন