সুব্রত চট্টোপাধ্যায়কে সরিয়ে অমিতাভ চক্রবর্তীকে সাধারণ সম্পাদক সংগঠন করে বিধানসভা ভোটে বিজেপি

1347
সুব্রত চট্টোপাধ্যায়কে সরিয়ে অমিতাভ চক্রবর্তীকে সাধারণ সম্পাদক করে বিধানসভা ভোটে বিজেপি
সুব্রত চট্টোপাধ্যায়কে সরিয়ে অমিতাভ চক্রবর্তীকে সাধারণ সম্পাদক করে বিধানসভা ভোটে বিজেপি

সুব্রত চট্টোপাধ্যায়কে সরিয়ে অমিতাভ চক্রবর্তীকে; সাধারণ সম্পাদক সংগঠন করে; বিধানসভা ভোটে যাচ্ছে বিজেপি। বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের আপত্তিতে; আমল দিল না বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগে; সুব্রত চট্টোপাধ্যায়কে বিজেপির সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হল। রাজ্য সভাপতি পদ থেকে; দিলীপের ইস্তফার হুঁশিয়ারিকে পাত্তা না দিয়ে; সংগঠন থেকে সুব্রতকে ছাঁটল কেন্দ্র বিজেপি। সুব্রত চট্টোপাধ্যায়ের জায়গায় এলেন; অমিতাভ চক্রবর্তী। তিনি এতদিন ছিলেন; সহ-সাধারণ সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন)। এদিনই বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার; চিঠি পৌঁছে যায় রাজ্য বিজেপি দফতরে।

আরও পড়ুনঃ মমতার দেওয়া পুজোর অনুদান ৫০,০০০ টাকার চেক বাউন্স, টাকা পাচ্ছেন না পুজো উদ্যোক্তারা

সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) অমিতাভ চক্রবর্তী সঙ্ঘের লোক। চুটিয়ে এবিভিপি-ও করেছেন একজমানায়। সুব্রতবাবুর ডেপুটি পদে, অমিতাভবাবুকে আনা হয়েছিল; গতবছরের ২৩ ডিসেম্বর। দীর্ঘদিন ধরেই সুব্রত চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে; একের পর এক অভিযোগ যাচ্ছিল কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে। তাঁর অপসারণ নিয়ে; গতবছর থেকেই চলছিল জল্পনা। কিন্তু সুব্রতবাবুর ঢাল হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন; বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

আরও পড়ুনঃ ‘জঙ্গলমহলের মুক্তিসূর্য’, অনুগামীদের দিয়ে তৃণমূল থেকে দূরত্ব বাড়াচ্ছেন শুভেন্দু, নতুন দল, বিজেপি না তৃণমূলকে সমঝে দেওয়া

অতিসম্প্রতি দিল্লিতে দলের বৈঠকে সুব্রত চট্টোপাধ্যায়ের হয়ে; সওয়াল করেন দিলীপ ঘোষ। সূত্রের খবর, বৈঠকে রাজ্য সভাপতি হুঁশিয়ারি দেন; সুব্রত চট্টোপাধ্যায়কে সরানো হলে তিনি ইস্তফা দেবেন। কিন্তু দিলীপের হুঁশিয়ারিকে পাত্তা দিলেন না; বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি। বিজেপির একাংশের মতে, এই সিদ্ধান্তে খানিকটা; কোণঠাসা হবেন রাজ্য সভাপতি। অনেকে বলেছেন; বিধানসভা ভোটের আগে; এটাও মুকুল রায়ের একটা চাল। তবে, এই নিয়ে সরগরম রাজ্য বিজেপির অন্দরমহল।

সূত্রের খবর, দিলীপ ঘোষের মতো সুব্রতবাবুকেও; বিধানসভা নির্বাচন পর্যন্ত পদে রাখার পক্ষপাতী ছিলেন জেপি নড্ডা। কিন্তু সম্প্রতি মুকুল রায়ের পদপ্রাপ্তি ও দিলীপ ঘোষের সঙ্গে সৌমিত্র খাঁর বিবাদের পর; রাতারাতি সুব্রত চট্টোপাধ্যায়কে সরানোর সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা। বিজেপি সূত্রের খবর, অন্য দল থেকে আসা ব্যক্তিদের; যতটা গুরুত্ব দেওয়া উচিত ছিল তা দিচ্ছিলেন না সুব্রতবাবু। যার ফলে তৃণমূল থেকে অনেকে; বিজেপিতে যোগদান করেও ফিরে গিয়েছেন তৃণমূলে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন