নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে মুখে কুলুপ বালিউডের

6224
নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে মুখে কুলুপ বালিউডের/The News বাংলা
নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে মুখে কুলুপ বালিউডের/The News বাংলা

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন ঘিরে পুড়ছে গোটা দেশ। দেশের বিভিন্ন রাজ্যের; বিভিন্ন জায়গায় শুরু হয়েছে প্রতিবাদ বিক্ষোভ। রাজধানী দিল্লিতে জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রতিবাদের রেশ ইতিমধ্যেই আছড়ে পড়েছে উত্তরপ্রদেশের আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয় ও কলকাতার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে। দেশের প্রতিটি প্রান্তের মানুষ এই নিয়ে নিজের বক্তব্য রাখছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। কিন্তু এই পরিস্থিতিতে মাত্র হাতে গোনা কয়েকজন ছাড়া; চুপ গোটা বলিউড। নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে মুখে কুলুপ বালিউডের।

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন এর প্রতিবাদে কার্যত ফুঁসছে দেশ। শয়ে শয়ে পড়ুয়া সামিল হচ্ছেন প্রতিবাদ বিক্ষোভে। উত্তরপ্রদেশ পুলিশ জানিয়েছে; তাদের লক্ষ্য করে পাথর ছুঁড়ছে পড়ুয়ারা। পরিস্থিতি সামলাতে কাঁদানে গ্যাসের সাহায্য নিতে হয়েছে পুলিশকে।

আরও পড়ুন সরানো হল বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে, না জানিয়েই সিদ্ধান্ত ক্ষোভ শোভনের বান্ধবীর

জায়গায় জায়গায় পুলিশের সঙ্গে ছাত্র ও জনগনের খণ্ডযুদ্ধ বেঁধেছে। ক্ষোভ উগলে দিয়েছেন; কবি সাহিত্যিক থেকে শুরু করে বিরোধী রাজনৈতিক লোকজন। কিন্তু দেশে এত বড় হেরফেরে একদম চুপ বলিউড। হাতে গোনা কয়েকজন ছাড়া এই বিষয়ে প্রতিক্রিয়া দেখাননি কেউই।

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে পড়ুয়াদের উপর নিগ্রহের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন অনুরাগ কাশ্যপ; স্বরা ভাস্কর; রাজকুমার রাও; পূজা ভাট; কঙ্কনা সেনশর্মা; সায়নী গুপ্ত; সিদ্ধার্থ সূর্যনারায়ণরা ও আয়ুস্মান খুরানা। কিন্তু বলিউডের সুপার স্টাররা ক কথাই খরচ করেননি এই বিষয়ে।

বলিউডের সুপার স্টার শাহরুখ খান; যিনি নিজে দিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয় এর প্রাক্তন ছাত্র; তিনিও এই বিষয়ে মুখ খোলেননি। প্রশ্ন উঠছে তবে কি বলিউডের সেলিব্রিটিরা নরেন্দ্র মোদীকে তোষামোদ করে চলছে?

আরও পড়ুন তারাপীঠ মন্দিরের গর্ভগৃহে ছবি তোলা নিষিদ্ধ করল মন্দির কমিটি

তবে দেরিতে হলেও এই বিষয়ে তীব্র নিন্দা জানিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় একে একে জ্বলে উঠছেন কিছু বলি সেলেব। নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে দিল্লি পুলিশ এবং পড়ুয়াদের একটি ভিডিও ট্যাগ করে বলিউড তারকা স্বরা ভাস্করের লেখেন; “দিল্লি পুলিশের লজ্জাজনক কাজকর্ম”। রাজকুমার রাও লিখছেন; “ছাত্রদের সঙ্গে পুলিশের ব্যবহার নিন্দনীয়। গনতন্ত্রের সমস্ত নাগরিকদেরই অধিকার আছে শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ জানানোর। সেই সঙ্গেই ধিক্কার জানাই জনবিরোধী আইনকে। অশান্তি কোন কিছুর সমাধান হতে পারে না”।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন