বুদ্ধ থেকে মমতা, ১৮ বছরেও শেষ হল না কবি সুকান্ত ভবন তৈরির কাজ

153
বুদ্ধ থেকে মমতা, ১৮ বছরেও শেষ হল না কবি সুকান্ত ভবন তৈরির কাজ/The News বাংলা
বুদ্ধ থেকে মমতা, ১৮ বছরেও শেষ হল না কবি সুকান্ত ভবন তৈরির কাজ/The News বাংলা

পেরিয়ে গেছে এক এক ১৮ বছর। কিন্তু এখনও শেষ হয়নি; কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য ভবন। বুদ্ধ থেকে মমতা; ১৮ বছরেও শেষ হল না সুকান্ত ভবন তৈরির কাজ। এখনও বাকি অন্দরের কাজ। শেষ না হওয়া ভবনে; ইতিমধ্যে বেড়ে চলছে অসামাজিক কাজকর্ম। কিন্তু ধরা পড়ছে না পুলিশের চোখে। দক্ষিণ দিনাজপুরের বুনিয়াদপুরে; ১৮ বছর পরেও এখনও; শেষ হলো না সুকান্ত ভবন তৈরির কাজ। ২০০১ সাল থেকে কাজ শুরু হলেও; এখনও বাকি ভবনের কাজ।

চলতি বছরে কাজ শেষ করার জন্য; লোকসভা নির্বাচনের আগেই জমা পড়েছিল টেন্ডার। কিন্তু জেলা পরিষদের জটিলতার কারণে; এখনও থমকে দক্ষিণ দিনাজপুরের বুনিয়াদপুর সুকান্ত ভবনের কাজ। দীর্ঘদিন ধরে পরে থাকার জন্য; স্বভাবতই ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী।

আরও পড়ুনঃ সোশ্যাল মিডিয়ায় ফুটেজ খেতে দেশবিরোধী পোস্ট, বিতর্কে পরিচালক অনিকেত

অনৈতিক কাজের আখড়ায় পরিণত হওয়া ভবন নিয়ে; অবিলম্বে সমাধান চাইছে স্থানীয় বাসিন্দারা। বুনিয়াদপুরের পৌর বাসস্ট্যান্ডের পাশে; সুকান্তভবন কমিউনিটি হল। ২০০১ সালে তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য; ভবনটির শিলান্যাস করেন।

তারপর থেকেই কচ্ছপের গতিতে চলছে; সেটি কাজ। অভিযোগ উঠছে বিভিন্ন রকম; উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তর সুকান্তভবনের জন্য অর্থ বরাদ্দ করলেও; জেলা প্রশাসনের উদাসীনতায় কাজ এখনও সম্পূর্ণ হয়নি।

যদিও এই বিষয়ে জেলা পরিষদের পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ মফিজুদ্দিন মিঞা; অন্য অভিযোগ তোলেন। তিনি বলেন; “লোকসভা নির্বাচনের আগে আমরা টেন্ডার ডাকলেও; কোনও এক অজানা কারণে জেলা প্রশাসন বিষয়টিতে গুরুত্ব না দেওয়ায়; কাজ শুরু হচ্ছে না”।

যদিও উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদা বলেন; “আমাদের দপ্তর থেকে অর্ধসমাপ্ত; সুকান্তভবন সম্পন্ন করার জন্য অর্থ বরাদ্দ করি। এছাড়াও দপ্তরের মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ ও আমি নিজে ভবনের কাজকর্ম দেখভাল করেছিলাম। খুব দ্রুতগতিতে ভবনের কাজ সম্পন্ন করার কথা বলা হয়েছে জেলা পারিষদকে”।

এবিষয়ে বালুরঘাটের সাংসদ সুকান্ত মজুমদার বলেন; “১৮ বছর আগে কাজ শুরু হলেও এই সুকান্তভবনের কাজ; তৃণমূলের কাটমানি নিয়ে গন্ডগোলের জেরে সম্পূর্ণ হয়নি। ভবনটির শেষ মুহূর্তের কাজ সম্পন্ন করতে; কেন এত দেরি হচ্ছে; সে বিষয়ে জেলাশাসকের সঙ্গে কথা বলে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সাধারণ মানুষের জন্য দ্রুত ভবনটি খুলে দেওয়া দরকার। সাংসদ হিসেবে দ্রুত বিষয়টির সমাধান করব”।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন