সিবিআই তদন্ত নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে জোর ধাক্কা দিল কলকাতা হাইকোর্ট

9377
সিবিআই তদন্ত নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে জোর ধাক্কা দিল কলকাতা হাইকোর্ট
সিবিআই তদন্ত নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে জোর ধাক্কা দিল কলকাতা হাইকোর্ট

সিবিআই তদন্ত নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে; জোর ধাক্কা দিল কলকাতা হাইকোর্ট। রাজ্যের আওতাভুক্ত যে কোনও জায়গায়, তদন্ত করতে গেলে; সিবিআই-কে আগে রাজ্য সরকারের লিখিত অনুমতি নিতে হবে। রাজ্য সরকারের এই নির্দেশের; কোনও যুক্তি নেই। গরু ও কয়লা পাচার কাণ্ডে, বিনয় মিশ্র মামলার রায়দান করতে গিয়ে; বুধবার এমনটাই বলেছেন বিচারপতি তীর্থঙ্কর ঘোষ। আইনজীবী মহলের ধারণা, আদালতের এই বিশেষ পর্যবেক্ষণ; আগামী সময় যে কোনও মামলায় সিবিআই-এর কাজকে অনেকটাই সহজ করে দেবে। হাইকোর্টে সিবিআই ইস্যুতে; ফের ধাক্কা খেল রাজ্য।

রাজ্যের আওতাধীন কোনও জায়গায় তদন্ত করতে; সিবিআইকে রাজ্যের অনুমতি নেওয়ার পিছনে কোনও যুক্তি নেই। বিনয় মিশ্রের মামলায় রায় দিতে গিয়ে, এমন পর্যবেক্ষণই করলেন; কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি তীর্থঙ্কর ঘোষ। রাজ্যের এক্তিয়ারভুক্ত এলাকায়; সিবিআই তদন্ত করতে লাগবে অনুমতি। এই মর্মে ২০১৮ সালে; বিজ্ঞপ্তি জারি করে নবান্ন।

এ দিন আদালতের পর্যবেক্ষণ, কী কারণে এই সিদ্ধান্ত; সেটা কোথাও বলা নেই। তাই এই বিজ্ঞপ্তির; কোনও বৈধতা নেই। সিবিআই যে কোনও রাজ্যেই, তদন্ত করতে পারে; বলে জানান সিঙ্গল বেঞ্চের বিচারপতি তীর্থঙ্কর ঘোষ। ঠিক এই কারণেই সিবিআই, রাজ্যের যে কোনও জায়গায়; স্বাধীনভাবে তদন্ত করতে পারে। এই মর্মে পর্যবেক্ষণ, কলকাতা হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চের বিচারপতি; তীর্থঙ্কর ঘোষের।

আরও পড়ুনঃ মোদী ‘আচ্ছে দিন’ এর পাল্টা মমতার ‘সাচ্চা দিন’

গরু-কয়লা পাচার কাণ্ডে অন্যতম অভিযুক্ত বিনয় মিশ্র; হাইকোর্টে সিবিআই তদন্ত খারিজের আবেদন করেন। ওই মামলায় বিনয়ের আইনজীবী অভিষেক মনু সিঙ্ঘভি আদালতে জানান; “বিনয় এ দেশের বাসিন্দাই নন। তাঁকে জেরা করতে চাইলে; সিবিআই ভিডিয়ো কনফারেন্সে করতে পারে”। সিবিআইয়ের আইনজীবী পালটা যুক্তি দেন; “কয়লা-গরু পাচার কাণ্ডে; বিএসএফ এবং রেলের অফিসারদের নাম উঠেছে। সেক্ষেত্রে রাজ্যেই; তদন্ত করতে হবে”।

রাজ্যে তদন্ত করতে গেলে নবান্নের অনুমতি নিতে হবে কি না; সেই প্রশ্ন ওঠে আদালতে। বিচারপতি জানান, রাজ্য ২০১৮ সালে যে অনুমতি তুলে নেয়; তার কোনও ভিত্তি নেই। ফলে রাজ্যে তদন্ত করতে; সিবিআইয়ের অনুমতি নেওয়ার দরকার নেই। এর আগেও, কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার মামলায়; সম্মতি নেওয়ার যুক্তি দেখিয়েছিল রাজ্য। এই রায়দানের পর, বিভিন্ন ইস্যুতে রাজ্যে; সিবিআই তদন্ত আরও মসৃণ হবে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন