নির্মলকে শাস্তি দিতে পারবেন মমতা, মেডিক্যালে ইঞ্জেকশন চুরির জোড়া তদন্ত রিপোর্ট নবান্নে

1827
নির্মলকে শাস্তি দিতে পারবেন মমতা, মেডিক্যালে ইঞ্জেকশন চুরির জোড়া তদন্ত রিপোর্ট নবান্নে
নির্মলকে শাস্তি দিতে পারবেন মমতা, মেডিক্যালে ইঞ্জেকশন চুরির জোড়া তদন্ত রিপোর্ট নবান্নে

দলের চিকিৎসক নেতা ও তৃণমূল বিধায়ক; নির্মল মাজিকে কি শাস্তি দিতে পারবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়? এটাই এখন বড় প্রশ্ন। কলকাতা মেডিক্যালে করোনা চিকিৎসার ইঞ্জেকশন চুরির; জোড়া তদন্ত রিপোর্ট জমা পড়ল নবান্নে। তবে জানা গেছে, এই চুরির নেপথ্যে; এক মহিলা মেডিক্যাল অফিসারের বিরুদ্ধেই তদন্ত রিপোর্ট জমা পরেছে। তবে এই ঘটনায় না জড়িয়েছে; তৃণমূল বিধায়ক নির্মল মাজির। যদিও নির্মল মাজি সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। কার শাস্তি হবে ও কি শাস্তি হবে? তা ঠিক করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতাই।

কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ থেকে উধাও; করোনা রোগীর জীবনদায়ী ওষুধ। ২৬টি টসিলিজুম্যাব ইঞ্জেকশন উধাও; কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল থেকে। কোভিড রোগীদের চিকিৎসার জীবনদায়ী ওষুধ; কিভাবে মেডিক্যাল থেকে গায়েব হল; তা নিয়ে রীতিমতো চাপানউতোর শুরু হয়েছে। ইঞ্জেকশন কেলেঙ্কারির ঘটনায়; নাম উঠে এসেছে শাসকদল ঘনিষ্ঠ চিকিৎসক নির্মল মাঝির। প্রভাব খাটিয়ে কর্তব্যরত এক নার্সের কাছ থেকে; ওই ইঞ্জেকশন হাতানোর অভিযোগ উঠেছে বিধায়ক নির্মলের বিরুদ্ধে। তবে নির্মল মাজি; এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

আরও পড়ুনঃ কলকাতা মেডিক্যাল থেকে উধাও করোনার জীবনদায়ী ওষুধ, নেপথ্যে কি সেই নির্মল

১০ লক্ষ টাকা দামের ২৬টি টসিলিজুম্যাব ইঞ্জেকশন; বেআইনি ভাবে হাতানোর অভিযোগ উঠেছে নির্মল মাঝির বিরুদ্ধে। প্যাথোলজি বিভাগের নমুনা পরীক্ষার ফর্মে; বানানো হয়েছে ভুয়ো প্রেসক্রিপশন। আর সেটা ব্যবহার করেই; এই ইঞ্জেকশন তুলে নেওয়া হয়েছে। বিস্ফোরক অভিযোগ হাসাপাতালেরই নার্স; চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে। স্বাস্থ্যভবনের তরফে এমন গুরুতর অভিযোগের ভিত্তিতে; জোড়া তদন্ত কমিটি তৈরি করা হয়। প্রথমটি ৭ জনের; এবং দ্বিতীয়টি ৩ জনের। এবার ইঞ্জেকশন উধাওয়ের ঘটনায়; জোড়া তদন্ত কমিটির রিপোর্ট জমা পড়ল রাজ্য স্বাস্থ্যদপ্তরে।

আরও পড়ুনঃ কুকুরের ডায়ালিসিস, ছেলে-বৌমাকে চাকরি, করোনা ইঞ্জেকশান চুরি, স্বাস্থ্যে উজ্জ্বল নির্মল

ঘটনার সপ্তাহখানেকের মধ্যেই; রবিবার জমা পড়ল জোড়া তদন্ত কমিটির রিপোর্ট। তাতে উল্লেখ করা হয়েছে, রিকুইজিশন ছাড়া নিয়ম বহির্ভূতভাবেই; মেডিক্যাল কলেজের স্টোর থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে; ২৬টি টসিলিজুম্যাব ইঞ্জেকশন। অভিযোগ তোলা হয়েছে; এক মহিলা মেডিক্যাল অফিসারের বিরুদ্ধে। এই রিপোর্ট জমা পরেছে নবান্নে। দোষীদের কী শাস্তি হবে; সেই সিদ্ধান্ত নেবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন