ছত্রধর মাহাতো ও বিমল গুরুং, প্রশান্ত কিশোরের দুটো ভুল সিদ্ধান্তে ডুবতে পারেন মমতা

4409
ছত্রধর মাহাতো ও বিমল গুরুং, প্রশান্ত কিশোরের দুটো ভুল সিদ্ধান্তে ডুবতে পারেন মমতা
ছত্রধর মাহাতো ও বিমল গুরুং, প্রশান্ত কিশোরের দুটো ভুল সিদ্ধান্তে ডুবতে পারেন মমতা

মানব গুহ, কলকাতাঃ ভোট আসছে বাংলায়। আর বাংলায় ভোট এলেই, এমন এমন কাণ্ড ঘটতে শুরু করে যে; মানুষ ভেবে উঠতে পারেন না, সত্যি এটা সম্ভব? ভোট এলে সিপিএম হাত ধরতে পারে কংগ্রেসের। কংগ্রেস হাত ধরতে পারে; কংগ্রেসকে ভেঙে শেষ করে দেওয়া তৃণমূলের। সিপিএম নেতারা যোগ দিতে পারেন; বিজেপি শিবিরে। আর গেরুয়া থেকে ঘাসফুল হয়ে আবার গেরুয়া। বা তৃণমূল থেকে বিজেপি হয়ে আবার তৃণমূলে। গদি দখলে রাখতে; সব সম্ভব এই বাংলায়। ঠিক তেমন ভাবেই, ২০২১ এ তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জঙ্গলমহলের ঘোড়া; ‘জ্ঞানেশ্বরী এক্সপ্রেসে নাশ’কতায়’ অভিযুক্ত ছত্রধর মাহাতো। আর পাহাড়ে ভরসা, ‘অমিতাভ মালিক খু’ন’-এ অভিযুক্ত বিমল গুরুং। রাজনৈতিক পরামর্শদাতা প্রশান্ত কিশোরের; দুটো ভুল সিদ্ধান্তে ডুবতে পারেন তৃণমূল নেত্রী মমতা। এমনটাই মনে করছে; বাংলার রাজনৈতিক মহল।

আরও পড়ুনঃ বিমল গুরুংকে স্বাগত জানাল মমতার তৃণমূল, অমিতাভ মালিকের খু’নি কি শা’স্তি পাবে না

দীর্ঘদিনের কারা’বাস কাটিয়ে গত ফেব্রুয়ারিতে; যখন নিজের এলাকায় ফিরেছিলেন তিনি; তখনই বোঝা গিয়েছিল, জঙ্গলমহলে তৃণমূলের ‘তুরুপের তাস’ এখন তিনিই। জঙ্গলমহলে ‘ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে যাওয়া’ তৃণমূলের ‘ঘোড়া’; এখন সেই ছত্রধর মাহাতো। মাও’বাদী সন্দেহে দীর্ঘদিন জেলে কাটানো, ছত্রধর হয়েছেন; তৃণমূলের রাজ্য কমিটির সদস্য। দলের অত্যন্ত আস্থাভাজন নেতারাই, যে কমিটিতে আসেন; সেখানেই ছত্রধরকে জায়গা দিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মানুষ হ’ত্যা থেকে শুরু করে; জ্ঞানেশ্বরী এক্সপ্রেসে নাশ’কতার ঘটনা ঘটিয়ে; মানুষ মা’রার অভিযোগে; অভিযুক্ত এই ছত্রধর মাহাতো।

এই প্রসঙ্গে আরও পড়ুনঃ সিপিএম নেতা ও সাধারণ মানুষ মে’রে জে’ল খাটার পরে, তৃণমূল রাজ্য কমিটিতে ‘মাও’বাদী’ ছত্রধর মাহাতো

বিমল গুরুং-কে ‘তুলতে’ গিয়ে মৃ’ত্যু হয়; রাজ্য পুলিশের অফিসার অমিতাভ মালিকের। আর যার বিরুদ্ধে তাঁকে খু’ন করার অভিযোগ; সেই বিমল গুরুংকে বরণ করে ঘরে তুললেন; রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও পুলিশ মন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল। বিমল গুরুংকে স্বাগত জানাল মমতার তৃণমূল; অমিতাভ মালিকের খু’নি কি তাহলে শা’স্তি পাবে না? এই বিমল গুরুং-কেই; উপযুক্ত শা’স্তি দেবার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন মমতা। ঠিক ৩ বছরের মধ্যেই, পাহাড়ের ৩ বিধানসভা আসন দখলের জন্য; সেই বিমল গুরুংয়ের সঙ্গেই জোট গড়লেন মমতা। ঘটনায় চমকে গেছেন; পুরো পুলিশ বাহিনীই। বিশেষ করে, যারা অমিতাভ মালিকের সঙ্গে কাজ করতেন; তাঁরা ঘটনায় এতটাই হতভম্ব হয়ে গেছেন যে; এই নিয়ে কিছুই বলতে রাজি হননি।

এই প্রসঙ্গে আরও পড়ুনঃ ‘মাও’বাদী’ ছত্রধর ও ‘সিপিএম বিতা’ড়িত’ ঋতব্রত তৃণমূল রাজ্য সম্পাদক, ক্ষুব্ধ তৃণমূলের অনেকেই

গোটা ঘটনায় ক্ষুব্ধ; বাংলার পুলিশ মহল ও বাংলার আমজনতা। “পাহাড়ে গোর্খাল্যান্ড দাবি মানেনি বিজেপি; ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনে; তাই মমতার সঙ্গেই জোট বাঁধলেন বিমল গুরুং”। এই সত্য বাংলা বিধানসভা ভোটে; কোন প্রভাব ফেলবে না? ছত্রধর মাহাতো ও বিমল গুরুং, প্রশান্ত কিশোরের দুটো ভুল সিদ্ধান্তই; তৃণমূলের ক’ফিনে দুটো শেষ পেরেক; বলছে বাংলার রাজনৈতিক মহল। এমনটাই মনে করছেন আমজনতার অনেকেই; এমনটাই ভেবে আশ’ঙ্কায়; তৃণমূলেরও অনেক নেতা কর্মীই। ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনের ফলের পরেই বোঝা যাবে; ছত্রধর মাহাতো ও বিমল গুরুং কে নিয়ে; প্রশান্ত কিশোরের সিদ্ধান্ত ভুল না ঠিক।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন