বৃষ্টিতে বাড়ি ভেঙে শিশু বৃদ্ধা ২ জনের মৃত্যু, পুরসভার নিষেধ শোনেনি দাবি ফিরহাদ হাকিমের

4625
বৃষ্টিতে বাড়ি ভেঙে শিশু বৃদ্ধা ২ জনের মৃত্যু, পুরসভার নিষেধ শোনেনি দাবি ফিরহাদের
বৃষ্টিতে বাড়ি ভেঙে শিশু বৃদ্ধা ২ জনের মৃত্যু, পুরসভার নিষেধ শোনেনি দাবি ফিরহাদের

বৃষ্টিতে বাড়ি ভেঙে শিশু বৃদ্ধা ২ জনের মৃত্যু; পুরসভার নিষেধ শোনেনি দাবি ফিরহাদ হাকিমের। টানা বৃষ্টির মধ্যেই উত্তর কলকাতার আহিরিটোলায়; ভেঙে পড়ল একটি পুরনো বাড়ি। বুধবার ভোরে ৯ নম্বর আহিরিটোলা স্ট্রিটে; একটি পুরনো দোতলা বাড়ির একাংশ ভেঙে পড়ে। বৃদ্ধা শিশু সহ বেশ কয়েকজন; আটকে পড়েন ধ্বংসস্তুপে। উদ্ধারকাজে নামে পুলিশ, দমকল; ও বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী। ভেঙে পড়া ওই বাড়ির ধ্বংসস্তুপ থেকে, প্রায় ৮ ঘণ্টার চেষ্টায়; আটকে থাকা শিশু-বৃদ্ধা সহ ৯ জনকেই উদ্ধার করে এনডিআরএফ, ডিএমজি, দমকল, পুলিশ। হাসপাতালে মারা যায়; উদ্ধার হওয়া শিশুকন্যা বৃদ্ধা।

বাড়ি ভাঙার ঘটনায়, হাসপাতালে মৃত্যু হল; তিন বছরের শিশু-সহ ২ জনের। মৃত্যু হয়েছে দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হওয়া; ৫২ বছরের এক প্রৌঢ়ার। মারা গেছে; এক শিশুও। প্রায় আট ঘণ্টা পর; উদ্ধারকাজ শেষ হয়। চারজন মূলত একেবারে বাড়ির ভিতরের দিকে; আটকে পড়েছিল। এক অন্তঃসত্ত্বা-সহ আশঙ্কাজনক অবস্থায়; চারজন আরজিকর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আরও পড়ুন; স্বাস্থ্য দফতরের অস্বীকার, অজানা জ্বরে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ২৪ ঘণ্টায় ৬ শিশুর মৃত্যু

ঘটনাস্থলে যান, রাজ্যের ৩ মন্ত্রী; ফিরহাদ হাকিম, সুজিত বসু ও শশী পাঁজা; ছিলেন কলকাতার পুলিশ কমিশনারও। মোট ৯ জনকে পাঠানো হয় হাসপাতালে; হাসপাতালে ওই শিশু ও বৃদ্ধার মৃত্যু হয়। স্থানীয়রা জানাচ্ছেন, দোতলা ওই বাড়িটি; বহুদিনের পুরনো। দীর্ঘদিন তাতে কোনও; সংস্কারও হয়নি। পুরনো ওই বাড়িটিতে; বেশ কয়েকটি পরিবার থাকে। এদিন ভোরে হুড়মুড়িয়ে বিকট আওয়াজে; কিছু ভেঙে পড়ার শব্দ পান স্থানীয়রা। বাড়ির ভিতর থেকে আর্তনাদ শুনে; খবর দেওয়া হয় পুলিশ ও দমকলে।

ধ্বংসস্তূপ পুরোপুরি সরানো; এখনও সম্ভব হয়নি। টানা বৃষ্টিতেই বাড়িটি ভেঙে পড়েছে বলে; মনে করা হচ্ছে। “কলকাতা পুরসভার সতর্কতা শুনলে, আহিরীটোলায় বাড়ি ভেঙে জখম হওয়ার ঘটনা ঘটতই না”; দাবি পুরপ্রশাসক ফিরহাদ হাকিমের। ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর ফিরহাদ বলেন; “ভেঙে পড়া বাড়িটিকে আগেই; বিপজ্জনক হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছিল। নোটিসও দেওয়া হয়েছিল; সেই নোটিস ছিঁড়ে ফেলে দেওয়া হয়। পুরসভার কর্মীরা বারবার বাসিন্দাদের বলেছেন; তবে তাঁরা উঠতে চাননি”। বসবাসকারীরা নোটিস পাওয়ার পরই উঠে গেলে; এমন বিপত্তি ঘটত না বলেই মনে করছেন ফিরহাদ হাকিম।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন