গরু ও গো মুত্র নিয়ে ব্যাবসা করলেই পাওয়া যাবে সরকারি সাহায্য

200
গরু ও গো মুত্র নিয়ে ব্যাবসা করলেই পাওয়া যাবে সরকারি সাহায্য/The News বাংলা
গরু ও গো মুত্র নিয়ে ব্যাবসা করলেই পাওয়া যাবে সরকারি সাহায্য/The News বাংলা

বিজেপি সরকার দেশে ক্ষমতায় আসার পর থেকে; ভারতের সংস্কৃতির সঙ্গে গরু অদ্ভুত ভাবে জড়িয়ে গেছে। আগেও হিন্দুরা গরুকে পুজ করত; কিন্তু কখনই তা এমন বাড়াবাড়ির পর্যায়ে পৌঁছে যায়নি। গরুকে নিয়ে পুরো দেশে এক অদ্ভুত পাগলামি শুরু হয়েছে উগ্র হিন্দুত্ববাদিদের মধ্যে। গো মাংস খাবার বা বহন করার অপরাধে; গণপিটুনিতে মারা গেছেন অনেকে। এই পরিস্থিতির মধ্যে দেশে ঘোষণা হল; গরু ও গো মুত্র নিয়ে ব্যাবসা করলেই পাওয়া যাবে সরকারি সাহায্য।

জাতীয় কামধনু কমিশনের চেয়ারম্যান ঘোষণা করেছেন যে; দুধ থেকে শুরু করে গোবর এবং গোমূত্র থেকে তৈরি করা যে কোন ব্যাবসাতে প্রাথমিক বিনিয়োগ করার জন্য সরকার থেকে ৬০ শতাংশ আনুদান পাওয়া যাবে।

আরও পড়ুনঃ জর্জ বেকার ও তসলিমা নাসরিন আমার বাবা মা, মেয়ের স্বীকৃতি আদায়ে লড়াই অঙ্কিতার

কামধনু কমিশনের চেয়ারম্যান বল্লভ কাঠেরিয়া জানিয়েছেন; “আপনারা তো অনেকেই জানেন না যে; সমস্ত পশুদের মধ্যে গরু হল একমাত্র পশু যার মূত্র বিষাক্ত নয়। বর্তমানে গোমূত্রকে অনেক ঔষধ তৈরির কাজেও লাগানো হয়”।

যুবকদের গরু ভিত্তিক ব্যাবসায় যোগ দিতে উৎসাহিত করার কৌশল নিয়ে কাঠেরিয়া গান্ধীনগরে শিক্ষার্থী এবং শিক্ষা বিশেষজ্ঞদের সাথে বৈঠক করেছেন।

আরও পড়ুনঃ কাশ্মিরের জন্য মিশন আপেল উপহার মোদী সরকারের

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে কামধেনু কমিশন প্রাথমিকভাবে মোট ৫০০ কোটি টাকা দিয়ে কাজ শুরু করেছে। এর মধ্যে গোশালা চালানোর জন্য মালিকদের প্রশিক্ষণ কর্মসূচি থেকে শুরু করে দক্ষতার বিকাশ করা হবে।

কামধেনু বোর্ডের চেয়ারম্যান বল্লভ কাঠেরিয়া বলেছেন; “যুব সমাজকে আমরা গরু ভিত্তিক শিল্পের জন্য উৎসাহিত করবো এবং তাদের কাছ থেকে গরু প্রাধান্য দ্রব্য যেমন গোমূত্র; দুধ; গোবর ইত্যাদি নিয়ে অন্যান্য কাজে লাগানো।

আরও পড়ুনঃ ভারতের সেনাবাহিনীর হাতে পাকিস্তানের রানী

গরু নিয়ে জাতীয় ব্যবসাকে আরো এগিয়ে নিয়ে যাওয়াই এই কামধেনু প্রকল্পের উদ্দেশ। “আগেকার যুগের ঋষি; মহাঋষিরাও বাড়িতে গাই পালন করতেন। কিন্তু বর্তমান যুগের মানুষ স্ট্যাটাস দেখিয়ে বাড়িতে গাই; গরু পালনকে কতটা গুরুত্ব দিচ্ছে না। ফলে আস্তে আস্তে প্রায় বিলুপ্তির পথে চলে গো পালন” বলে মন্তব্য করেন কাঠারিয়া।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন