ওসামা বিন লাদেনের মত, পাকিস্তানে ঢুকে কি দাউদ ইব্রাহিমকে খতম করতে পারবে ভারত

616
পাকিস্তান সেনার পাহারায় নিরাপদ আশ্রয়ে আছে দাউদ ইব্রাহিম/The News বাংলা
পাকিস্তান সেনার পাহারায় নিরাপদ আশ্রয়ে আছে দাউদ ইব্রাহিম/The News বাংলা

দাউদ ইব্রাহিম নিয়ে; ফের রাষ্ট্রপুঞ্জে সরব ভারত। পাকিস্তানে দাউদের উপস্থিতি নিয়ে; ভারত অনেকদিন থেকেই সরব। সারা বিশ্বে ড্রাগ পাচারের অভিযোগ; আগেই ছিল দাউদ ইব্রাহিমের বিরুদ্ধে। এবার তার বিরুদ্ধে; বিভিন্ন জঙ্গি সংস্থাকে পুষ্ট করার অভিযোগ তুলল ভারত। দাউদ ইব্রাহিমের ডি কোম্পানি; যে আসলে জইশ-ই-মহম্মদ সহ বাকি জঙ্গি সংগঠনগুলির মতোই; সেটা আবার দাবী করল ভারত।

রাষ্ট্রপুঞ্জে ভারতীয় রাষ্ট্রদূত সৈয়দ আকবরুদ্দিন বলেন; “ডি কোম্পানি বাকি জঙ্গি সংগঠনগুলির মূল পরামর্শদাতা। এইসব সংগঠনের সাহায্যেই; জঙ্গি সংগঠনগুলো সারা বিশ্বে দাঙ্গা করে বেড়াচ্ছে। ড্রাগ পাচার; অস্ত্র পাচার; বিভিন্ন অবৈধ ব্যবসা; জাল নোটের তৈরি থেকে মানুষ সহ পশু পাচারের মতো অপরাধ দিন দিন বাড়ছে”।

আরও পড়ুন: মমতার সঙ্গী হয়ে টাটাকে তাড়িয়ে, এখন চরম ভুলের মাসুল দিচ্ছে সিঙ্গুরবাসী

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে বহুবার দাউদের পাকিস্তানের আশ্রয় নিয়ে খবর হলেও; পাকিস্তান সরকার বা সেনা তা সরাসরি স্বীকার কোনদিনই করেনি। তবে ভারতীয় গোয়েন্দাদের একাধিক খবর বলছে; দাউদ ইব্রাহিম পাকিস্তানের করাচিতে নিরাপদে আছে।

এই বছরেই পৃথিবীর সব থেকে বিপজ্জনক সন্ত্রাসবাদী সংগঠনের সঙ্গে; বিপজ্জনক জঙ্গিদের একটি তালিকা প্রকাশ করে রাষ্ট্রপুঞ্জ। সেখানে দাউদ ইব্রাহিমের নামের সঙ্গে; তার করাচির ঠিকানাও প্রকাশ করে রাষ্ট্রপুঞ্জ। আজও পাক সেনার নিরাপত্তায় থাকে দাউদ।

আরও পড়ুন: ভাঙন ঝড়ে মুখ থুবড়ে পড়ল কংগ্রেস, আরও একটি রাজ্য বিজেপির দখলে

আকবরুদ্দিনের কথায়; “সন্ত্রাসের আঁতুরঘর পাকিস্তানে থেকে; ডি কোম্পানির অবৈধ আর্থিক লেনদেন আরও স্পষ্ট করে সেদেশে দাউদের অবস্থান। পাশাপাশি তা বর্তমান পরিস্থিতিতে; অত্যন্ত ক্ষতিকারক”। নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের পর শান্তির বার্তা দিলেও; তা তারা আজও মানেনি।

এখনও পাকিস্তানের আশ্রয়েই আছে; ১৯৯৩ সালের মুম্বই বিস্ফোরণের মূল চক্রী দাউদ ইব্রাহিম এবং ২০০৮-এর ২৬/১১ হামলার মাস্টারমাইন্ড। ভারতের রাষ্ট্রদূত সাফ জানান; “যদি দাউদ ও তার গ্যাংকে আইএস-এর কায়দায় খতম করা হয়, তাহলে তা এশিয়ার পক্ষে মঙ্গল হবে।

অভিযোগ, ১৯৯৩ সালে মুম্বইতে ১২টি বিস্ফোরণ ঘটানো হয় দাউদের নেতৃত্বে। নিহত হন ২৫৭ জন, আহত হন প্রায় সাতশো সাধারণ মানুষ। এরপরই ভারত থেকে পালিয়ে; পাকিস্তানে আশ্রয় নেয় দাউদ। তাকে ‘আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী’ ঘোষণা করে রাষ্ট্রপুঞ্জ। কিন্তু, পাকিস্তানের আশ্রয়ে থাকায়; তাকে এখনও গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন