‘দেশপ্রেম দিবস’, ‘জাতীয় ছুটি’, ‘দেশনায়ক দিবস’, ‘পরাক্রম দিবস’, রাজনীতির দড়ি টানাটানিতে নেতাজী সুভাষ

11424
'দেশপ্রেম দিবস', 'জাতীয় ছুটি', 'পরাক্রম দিবস', ভোটের আগে বাংলার রাজনীতির কেন্দ্রে নেতাজী
'দেশপ্রেম দিবস', 'জাতীয় ছুটি', 'পরাক্রম দিবস', ভোটের আগে বাংলার রাজনীতির কেন্দ্রে নেতাজী

‘দেশপ্রেম দিবস’ বনাম ‘জাতীয় ছুটি’ বনাম ‘পরাক্রম দিবস’; ভোটের আগে বাংলার রাজনীতির কেন্দ্রে নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু। নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসুর ১২৫তম জন্মদিনের আগে; বড় ঘোষণা মোদী সরকারের। কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে; নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মদিনকে; এবার থেকে ‘পরাক্রম দিবস’ হিসাবে পালন করবে কেন্দ্রীয় সরকার। গোটা দেশের সঙ্গে বিদেশেও; উজ্জাপিত হবে দিনটি। যেমন জহরলাল নেহেরুর জন্মদিনে শিশু দিবস; ডঃ সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণন এর জন্মদিনে; শিক্ষক দিবস পালন করা হয়; তেমনি নেতাজীর জন্মদিন এবার থেকে পালন হবে; ‘পরাক্রম দিবস’ হিসাবে। আর এরপরেই শুরু হয়েছে; তুমুল রাজনৈতিক বিতর্ক।

বামেরা বহুদিন থেকেই চেয়েছিল, নেতাজী সুভাষের জন্মদিনকে; ‘দেশপ্রেম দিবস’ হিসাবে ঘোষণা করা হোক। বহু বছর ধরেই, এই নিয়ে কেন্দ্র ও রাজ্যের কাছে; দরবার করে আসছে ফরওয়ার্ড ব্লক সহ বাম দলগুলি। তবে, তা পূরণ হয় নি। লোকসভা ও রাজ্যসভায় বারবার আলোচনা হলেও; কাজের কাজ হয় নি। গত কয়েকবছর ধরে, বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দাবি করে আসছেন; “নেতাজী সুভাষের জন্মদিনকে; জাতীয় ছুটি হিসাবে ঘোষণা করতে হবে”। এই নিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদীকে; ব্যক্তিগত উদ্যোগ নিতে অনুরোধ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা নিজেই।

আরও পড়ুন; তৃণমূল নেতা নেত্রীদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে, এবার ‘টিকা চুরি’ করলেন বিজেপি নেতাও

কিন্তু না বাম না তৃণমূল; কারোর কথাই না শুনে; নেতাজী জন্মদিনকে; ‘পরাক্রম দিবস’ হিসাবে পালন করার; ঘোষণা করল নরেন্দ্র মোদীর কেন্দ্রীয় সরকার। আর তারপরেই শুরু হয়েছে; তুমুল রাজনৈতিক বিতর্ক। ভারতের সংস্কৃতি মন্ত্রকের তরফে, মঙ্গলবারেই বিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয়; নেতাজীর নিঃস্বার্থ দেশসেবার আবেগকে মান্যতা দিতে; ২৩ জানুয়ারি দিনটিকে ‘পরাক্রম দিবস’ হিসেবে পালন করতে চায় কেন্দ্র। দেশে ও বিদেশে এই দিনটি; এখন থেকে ‘পরাক্রম দিবস’ হিসাবে পালন হবে।

ইতিমধ্যেই নেতাজীর জন্মদিনকে; ‘দেশনায়ক দিবস’ হিসেবে পালন করার কথা ঘোষণা করেছেন; মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্য ও কেন্দ্র নেতাজীর ১২৫ তম জন্মজয়ন্তী পালনের জন্য; আলাদা আলাদা একটি করে কমিটি গঠন করেছে। বাংলা বিধানসভা ভোটের আগে; প্রথমে স্বামী বিবেকানন্দের পর; এবার নেতাজী সুভাষ-কে নিয়ে; শুরু হয়েছে দড়ি টানাটানির খেলা। ভোটের আগে আর কি কি হয়; সেটাই এখন দেখার।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন