দিলীপ ঘোষের মিছিলে লাঠিচার্জ পুলিশের

889
দিলীপ ঘোষের মিছিলে লাঠিচার্জ পুলিশের/The News বাংলা
দিলীপ ঘোষের মিছিলে লাঠিচার্জ পুলিশের/The News বাংলা

পূর্ব মেদিনীপুরের চণ্ডীপুর থেকে নন্দীগ্রাম যাওয়ার পথে; বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের অভিনন্দন যাত্রা ঘিরে উত্তেজনা ছড়াল নন্দীগ্রামে। দিলীপ ঘোষের মিছিলকে; রেয়াপাড়ার কাছে ব্যারিকেড করে আটকে দেয় পুলিশ। পুলিশ ও বিজেপি সমর্থক দের মধ্যে ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটল নন্দীগ্রামে। বিশাল পুলিশ বাহিনী পথরোধ করে দাঁড়ায় বিজেপির মিছিলের সামনে। বিজেপির কর্মীদের তরফে বারবার অনুরোধ করা হয় পুলিশের কাছে; যাতে মিছিল এগোতে দেওয়া হয়; কিন্তু প্রশাসনিক সিদ্ধান্তে অনড় পুলিশ।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনে; বিজেপির অভিনন্দন যাত্রা এদিন শুরু হয়েছিল চণ্ডীপুর থেকে। মাঝ রাস্তায়; বিজেপির মিছিল আটকাতে পুলিশ ব্যারিকেট তৈরি করতেই শুরু হয়ে যায় পুলিশ ও বিজেপি কর্মীদের খণ্ড যুদ্ধ। বিজেপির তরফে মাইকে বারবার ঘোষণা করা হয়; যাতে রাজ্য বিজেপির সভাপতিকে মিছিল করতে এগোতে দেয় পুলিশ। কিন্তু পুলিশ ব্যারিকেট সরাতে অস্বীকার করে।

আরও পড়ুনঃ বাংলার বুদ্ধিজীবীদের কি বাবা মার ঠিক নেই, কাকে ঠুকলেন দিলীপ

ব্যারিকেড ভেঙে এগোনোর চেষ্টা করলে; বিজেপি কর্মীদের উপর পুলিশ লাঠি চালায় বলে অভিযোগ উঠেছে। অপর দিকে পুলিশের পক্ষে অভিযোগ; বিজেপির মিছিলের কোন অনুমতি ছিল না পুলিশের কাছে। তাই পুলিশ মিছিল আটকাতে এসেছিল। বিজেপি কর্মীরা ব্যারিকেট ভেঙ্গে এগোতে চাইলে পুলিশ নির্বিশেষে লাঠি চার্জ শুরু করে।

মিছিলের দাবিতে অনড় বিজেপি কর্মীরা। ঘটনাস্থলে মোতায়েন করা হয়েছে; পুলিশের বিশাল বাহিনী। রাখা হয়েছে জলকামানও। এ প্রসঙ্গে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন; “আমরা অনুমতি নিয়ে; শান্তিপূর্ণভাবে মিছিল করতে চেয়েছিলাম। ১৫ দিন আগে পুলিশ সুপারকে চিঠি দিয়েছিলাম। তবুও অনুমতি দেয়নি। পুলিশ দিয়ে আমাদের নেতা-কর্মীদের মারা হচ্ছে। আমার সামনেই পুলিশকে মারতে দেখেছি। আমি চাইলে ব্যারিকেড ভাঙতে পারতাম। ব্যারিকেড ভাঙা আমাদের উদ্দেশ্য নয়। অগণতান্ত্রিক পরিবেশ চলছে রাজ্যে”।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন