পশ্চিমবঙ্গকে বাংলাদেশ বানানোর ষড়যন্ত্র চলছে, লোকসভায় বিতর্কে দিলীপ ঘোষ

4992

লোকসভা অধিবেশনে দিলীপ ঘোষের বক্তব্যকে ঘিরে উত্তেজনা। “পশ্চিমবাংলাকে বাংলাদেশ বানানোর ষড়যন্ত্র চলছে”। পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে কটাক্ষ করে; তিনি বক্তব্য পেশ করেন। বাংলার সাংসদ দিলীপবাবু জানালেন, বাংলার অসুবিধার কথার পাশাপাশি; বিভিন্ন সুবিধার সম্ভাব্যতার কথা। তারপরেই শুরু হয়ে যায় জোর বিতর্ক।

তিনি বলেন, “পশ্চিমবাংলাকে বাংলাদেশ বানানোর ষড়যন্ত্র চলছে”। অন্যদিকে এদিন মমতা ব্যানার্জী বলেন, “বিজেপি পশ্চিমবাংলাকে গুজরাট বানাচ্ছে”। বিজেপির দাবি, বাংলা গুজরাট হলে; কলকাতার ছেলে মেয়েদের পরিবার ছেড়ে বাইরে কাজের জন্য যেতে হবে না।

দিলীপ ঘোষ এদিন বললেন, আগে সমাজে লোকেরা; রাজনীতিতে আসতে ভয় পেত; কেননা রাজনীতির নামে চলত সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা, হামলা, ভ্রষ্টাচার ইত্যাদি। কিন্তু আজকের রাজনীতি অনেক বেশি সুস্থ। দেশে যুবক সম্প্রদায় বুঝেছে; রাজনীতিতে যাওয়ার দরকার আছে।

তিনি বললেন, “মোদীজি নিউ ইন্ডিয়া তৈরী করেছেন। কেন্দ্রীয় সরকার আয়ুষ্মান প্রকল্প চালু করেছে। কিন্তু পশ্চিবঙ্গের মানুষ; আয়ুষ্মান প্রকল্প থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। তৃণমূল সরকার; আয়ুষ্মান প্রকল্প চালু করেনি। ৫০ কোটি লোক এই প্রকল্পের সুবিধা পেলেও; বাংলায় কেউ এই সুযোগ পাচ্ছে না। কারণ বাংলার সরকার রাজনীতি দ্বারা; প্রভাবিত হয়ে বিভিন্ন নির্ণয় গ্রহন করেন”।

দিলীপবাবু আরও বলেন, “বাংলায় হাসপাতাল আছে; কিন্তু কোনো ডাক্তার নেই; ডাক্তার থাকলে নার্স নেই; নার্স থাকলে ওসুধ নেই; আর ওসুধ থাকলে; বেড নেই।” এমনকি কৃষকের মৃত্যু সংখ্যা বাংলায় বাড়ার কারন; তারা কেন্দ্রীয় সরকারের কোনো সুবিধাই পাচ্ছে না। বললেন “আগে বাংলা থেকে স্বাধীনতা সংগ্রামী জন্ম নিয়েছেন; এখন রাজ্যে কাটমানি শব্দের জন্ম হয়েছে”।

দিলীপ ঘোষ এদিন সংসদে বললেন, “পশ্চিমবঙ্গ গণতন্ত্র খুঁজে পাওয়া যায় না। বাংলায় সরকার আছে কিন্তু আইন নেই। থানা আছে কিন্তু পুলিশ নেই। স্কুল আছে কিন্তু টিচার নেই। কলেজ আছে কিন্তু প্রফেসার নেই। কোর্ট আছে কিন্তু উকিল নেই। এই হল সোনার বাংলা”।

দিলীপবাবুর দাবী, বাংলার মানুষ পরিত্রান পেতেই; বিজেপির ১৮ জনকে জিতিয়েছেন। বাংলায় এখন ভাষার ভেদাভেদ হচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, বাংলায় গেলে বাংলা শিখতে হবে। বাংলাদেশ থেকে অভিনেতা এনে; তৃনমূল ভোট প্রচার করলে সেটা বহিরাগত হচ্ছে না। কিন্তু অর্জুন সিংহ ও প্রধানমন্ত্রী বাংলায় গেলে; তাদের বহিরাগত বলা হচ্ছে। তবে দিলীপ ঘোষের বক্তব্য উড়িয়ে দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন