ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, শিক্ষক, লকডাউনে ভারতে কাজ হারিয়েছেন ৬০ লাখ উচ্চপদস্থ চাকুরিজীবী

493
ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, শিক্ষক, লকডাউনে ভারতে কাজ হারিয়েছেন ৬০ লাখ উচ্চপদস্থ চাকুরিজীবী
ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, শিক্ষক, লকডাউনে ভারতে কাজ হারিয়েছেন ৬০ লাখ উচ্চপদস্থ চাকুরিজীবী

করোনা আবহ ও লকডাউনে, শুধু যে কর্মী, শ্রমিকরা কাজ হারিয়েছেন তা নয়; তথাকথিত ‘উচ্চপদস্থ’ যব যারা করেন, তেমন ৬০ লাখ কর্মী চাকরি হারিয়েছেন। সেন্টার ফর মনিটরিং ইন্ডিয়ান ইকনমি (সিএমআইই)-র সর্বশেষ রিপোর্টে; এমন তথ্যই উঠে এসেছে। এই রিপোর্টে, শুধু মে থেকে অগস্টের তথ্য আছে। যদিও, মার্চের শেষ দিকে করোনা মহামারীর জেরে; ভারতে লকডাউন ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সেই বিপদ থেকে; আজও বেরোতে পারে নি দেশ। অর্থাৎ চাকরি থেকে ছাঁটাই পর্ব; এখনও চলছে। সেই হিসাব এই রিপোর্টে নেই। ফলে, সংখ্যাটা আরও বাড়বে।

সেন্টার ফর মনিটরিং ইন্ডিয়ান ইকনমি (CMIE), ওই রিপোর্টে জানিয়েছে; ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, শিক্ষক, অ্যাকাউন্টেন্ট, এমনকি অন্যান্য পেশাদাররাও; অর্থাৎ ‘হোয়াইট কালার যব’ যারা করেন; এই লকডাউনে তাঁরাও চাকরি হারিয়েছেন। জুনে আনলক চালু হওয়ার পরেও; কর্মী ছাঁটাই হয়েছে অনেক সংস্থায়।

আরও পড়ুনঃ ন্যাশনাল ইনফরম্যাটিকস সেন্টারের কম্পিউটারে চিনা হ্যাকারদের হানা, প্রধানমন্ত্রী মোদী ও নিরাপত্তা উপদেষ্টা ডোভালের তথ্য লোপাট

সিএমআইই সর্বশেষ রিপোর্টে জানিয়েছে; ২০১৬ সালের, জানুয়ারি-এপ্রিল মাসে দেশে; উচ্চপদস্থ চাকুরিজীবীর সংখ্যা ছিল ১.২৫ কোটি। সেটা মে-অগস্ট ২০১৯ সালে; গিয়ে হয়েছিল ১.৮৮ কোটি। ২০১৯ এর সেপ্টেম্বর-ডিসেম্বরে; এই সংখ্যাটি ছিল ১.৮৭ কোটি। এরপর জানুয়ারি-এপ্রিল মাসে; এই সংখ্যা কমে হয় ১.৮১ কোটি। করোনা লকডাউনের আংশিক প্রভাব; এই তথ্যেও প্রতিফলিত হয়েছিল। কিন্তু ২০২০ সালের মে-অগস্ট মাসে; উচ্চপদস্থ চাকুরিজীবীর সংখ্যা কমে হয়েছে ১.২২ কোটি। অর্থাৎ করোনার জেরে, ৫৯ লক্ষ পেশাদার কর্মী; নিজেদের চাকরি হারিয়েছেন।

২০১৯ সালের মে-অগস্ট মাস দেখলে দেখা যায়; গত বছরের একই সময়কালের তুলনায় চাকরি কমেছে প্রায় ৬৬ লাখ। অর্থাৎ বেকারত্ব বেড়েছে ২৬ শতাংশ। তবে, এই রিপোর্টে যারা কোন সংস্থায় কাজ করেন; তাঁদের সংখ্যাই হিসাব করা হয়েছে। যারা ব্যক্তিগত উদ্যোগে কাজ করতেন বা করেন; তাঁরা এই হিসাবের বাইরে আছেন। অর্থাৎ মানুষের আসল পরিস্থিতিটা; বোঝার উপায় নেই এই রিপোর্টে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন