এগিয়ে বাংলায় বিধায়ক-কেও খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া যায়, সাধারণ মানুষের হাল কি

3786
এগিয়ে বাংলায় বিধায়ক-কেও খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া যায়, সাধারণ মানুষের হাল কি
এগিয়ে বাংলায় বিধায়ক-কেও খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া যায়, সাধারণ মানুষের হাল কি

এগিয়ে বাংলায় বিধায়ক-কেও খুন করে; বাড়ির এলাকায় ঝুলিয়ে দেওয়া যায়। তাহলে, সাধারণ মানুষের হাল কি ? প্রশ্ন তুলেছেন সাধারণ মানুষ। বাংলায় এক বিজেপি বিধায়কের রহস্যমৃত্যু; মেরে ঝুলিয়ে দেবার প্রমাণ স্পষ্ট। উত্তর দিনাজপুরের হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়ক; দেবেন্দ্রনাথ রায়ের মৃত্যু ঘিরে; রহস্য দানা বাঁধছে। সোমবার সকালে বাড়ি থেকে এক কিলোমিটার দূরে; এক বন্ধ দোকানের বারান্দা থেকে; তাঁর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়েছে। ওই বিজেপি বিধায়ককে খুন করে; ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে, এমনটাই অভিযোগ বিজেপির। একই অভিযোগ বাড়ির লোকের। মৃতদেহ আটকে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে; এলাকার মানুষ।

আরও পড়ুনঃ বিজেপি বিধায়কের রহস্যমৃত্যু, মেরে ঝুলিয়ে দেবার অভিযোগ

এগিয়ে বাংলায় বিধায়ক খুন! উত্তর দিনাজপুর জেলার হেমতাবাদের সিপিএম বিধায়ক দেবেন্দ্র নাথ রায়; কিছুদিন আগেই বিজেপিতে যোগ দেন। যদিও বাংলার নতুন নিয়ম অনুযায়ী; বিধায়ক পদ ছাড়েননি। রবিবার রাতে তাঁর কাছে একটি ফোন আসে। তিনি বাড়ি থেকে বার হলে; কে বা কারা তাঁকে ডেকে নিয়ে যায়। তারপরে সোমবার ভোরে হেমতাবাদের লোকেরা দেখতে পান; খুনের পর বাজারে একটি দোকানে তাঁর দেহ ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ তৃণমূল নেত্রীর নতুন দুর্নীতি, বিডিও-র সই জাল করে কোটি টাকার টেন্ডার জালিয়াতি

এমন ঘটনা গত ৪০ বছরে বছরে হয়েছে বলে; মনে করতে পারছে না বাংলার রাজনৈতিক মহল। বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ; শাসক দলের যুব নেতাকে এই ঘটনায় দোষ দিচ্ছেন। আবার কংগ্রেস এর টিকিটে জিতে বিধায়ক হওয়া; তৃণমূলের উত্তর দিনাজপুরের জেলা সভাপতি কানাই লাল অগ্রবাল বলছেন; “বিজেপি মিথ্যে অভিযোগ তুলছে। তৃণমূল জড়িত না আত্মহত্যা তা পুলিশ বলবে”।

২০১৯ সালে বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়; সিপিএম থেকে বিজেপিতে যোগ দেন তারপরেই এই খুন, অভিযোগ পরিবারের। রাজনৈতিক কারণে খুন; নাকি এর পিছনে রয়েছে ব্যক্তিগত শত্রুতা; তদন্তে পুলিশ। পুলিশের প্রাথমিক রিপোর্ট অনুযায়ী; বিধায়ক কে খুনের চিন্হ স্পষ্ট। জেলা জুড়ে আন্দোলনের প্রস্তুতি বিজেপির। তৃণমূলের দিকেই আঙুল বিজেপির। অস্বীকার তৃণমূলের। মঙ্গলবার উত্তর দিনাজপুর জেলা বনধের; ডাক দিয়েছে বিজেপি। রাজনৈতিক লড়াই যাই হোক; ‘এগিয়ে বাংলা’ যে আসলে ক্রমেই পিছিয়ে যাচ্ছে তা স্পষ্ট।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন