সুখী জীবন কাটাতে চাইলে এখনই জেনে নিন ২৫ টি টিপস

517

জেনে নিন সুখী জীবনের জন্য ২৫ টি টিপস:

১. প্রতিদিন অন্তত ৩০ মিনিট হাঁটুন৷ মাঠে বা ফাঁকা রাস্তায়। ঘাসের মাঠে হাঁটতে পারলে খুব ভালো। তাও যদি না হয়, তাহলে বাড়ির ছাদে।

২. নির্জন কোন স্থানে একাকী অন্তত ১০
মিনিট কাটান ও নিজেকে নিয়ে ভাবুন৷ নিজেকে সময় দিন।

৩. ঘুম থেকে উঠেই প্রকৃতির নির্মল পরিবেশে
থাকার চেষ্টা করুন। সারা দিনের করণীয়গুলো সম্পর্কে মনস্থির করুন।

৪. নির্ভরযোগ্য প্রাকৃতিক উপাদানে ঘরে
তৈরি খাবার বেশি খাবেন আর প্রক্রিয়াজাত
খাবার কম খাবেন।

৫. র চা এবং পর্যাপ্ত জল পান করুন। জল কম খেলে যতরকমের অম্বলের শুরু হয়।

৬. প্রতিদিন অন্তত ৩ জনের মুখে হাসি ফোটানোর চেষ্টা করুন। নিজে হাসুন, অন্যকে হাসানোর চেষ্টা করুন।

৭. গালগপ্প, অতীতের স্মৃতি, বাজে চিন্তা
করে আপনার মূল্যবান সময় এবং শক্তি অপচয়
করবেন না। ভাল কাজে সময় ও শক্তি ব্যয় করুন।

৮. সকালের প্রাতরাশ রাজার মত, দুপুরের খাবার প্রজার মত এবং রাতের খাবার খাবেন ভিক্ষুকের মত। বাংলা প্রবাদেই আছে।

৯. জীবন সব সময় সমান যায় না, তবুও ভাল
কিছুর অপেক্ষা করতে শিখুন। অধৈর্য্য হবেন না, ভালো সময় আসবেই।

১০. অন্যকে ঘৃণা করে সময় নষ্ট করার জন্য
জীবন খুব ছোট, সকলকে ক্ষমা করে দিন সব কিছুর জন্য।

১১. কঠিন করে কোন বিষয় ভাববেন না। সকল
বিষয়ের সহজ সমাধান চিন্তা করুন।

১২. সব তর্কে জিততে হবে এমন নয়, তবে
মতামত হিসাবে মেনে নিতে পারেন আবার
নাও মেনে নিতে পারেন।

১৩. আপনার অতীতকে শান্তভাবে চিন্তা করুন,
ভূলগুলো শুধরে নিন। অতীতের জন্য বর্তমানকে
নষ্ট করবেন না।

১৪. অন্যের জীবনের সাথে নিজের জীবন
তুলনা করবেন না। শিশুদেরও অন্য শিশুর সঙ্গে তুলনা করবেন না। তাতে খারাপই হবে। সবার জীবন তার নিজস্ব।

১৫. কেউ আপনার সুখের দায়িত্ব নিয়ে বসে নেই। আপনার কাজই আপনাকে সুখ এনে দেবে।

১৬. প্রতি ৫ বছর মেয়াদী পরিকল্পনা করুন
এবং ওই সময়ের মধ্যেই তা বাস্তবায়িত করুন।

১৭. গরীবকে সাহায্য করুন। দাতা হোন,
গ্রহীতা নয়।

১৮. অন্য লোকে আপনাকে কি ভাবছে তা নিয়ে মাথা ঘামানোর দরকার নেই বরং অাপনি অাপনাকে কি ভাবছেন সেটা মুল্যায়ন করুন ও সঠিক কাজটি করুন।

১৯. কষ্ট পুষে রাখবেন না। কারণ সময়ের স্রোতে সব কষ্ট ভেসে যায় তাই কষ্টের ব্যপারে খোলামেলা অালোচনা করুন ও ঘনিষ্টদের সাথে শেয়ার করুন।

২০. মনে রাখবেন সময় যতই ভাল বা খারাপ
হোক তা বদলাবেই।

২১. অসুস্থ হলে আপনার ব্যবসা বা চাকুরী অন্য
কেউ দেখভাল করবে না। করবে বন্ধু কিংবা
নিকট আত্মীয়রা, তাদের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখুন।

২২. ফেসবুকে অনেক সময় নষ্ট করেন।
ফেসবুকে আপনার সময় নির্দিষ্ট
করুন। কতক্ষণ সময় থাকবেন এখানে।

২৩. প্রতি রাতে ঘুমানোর আগে আপনার জীবনের
জন্য বাবা মাকে মনে মনে ধন্যবাদ দিন। ভালো জিনিসগুলো নিয়ে ভাবুন।

২৪. মনে রাখুন জীবনের কোন কোন ভুলের জন্য
আপনি ক্ষমা পেয়েছেন। সেসব ভুল আর যেন না
হয় তার জন্য সতর্ক থাকুন।

২৫. ভালো থাকুন, ভালো রাখুন। জীবনে সুখ শান্তি থাকবে।

আপনার বন্ধুদেরও তথ্যগুলো জানান, যেন
তারাও আপনার ভাল দিকগুলো সম্পর্কে জানেন
এবং আপনাকে আপনার মত করে চলতে দেয়। কেউ ভালো রাখবে না, আপনাকেই ভালো থাকতে হবে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন