ফের গাফিলতি রাজ্যের সরকারি হাসপাতাল গুলোতে, দুদিনেও মিলল না চিকিৎসা

129
ফের গাফিলতি রাজ্যের সরকারি হাসপাতাল গুলোতে, দুদিনেও মিলল না চিকিৎসা/The News বাংলা
ফের গাফিলতি রাজ্যের সরকারি হাসপাতাল গুলোতে, দুদিনেও মিলল না চিকিৎসা/The News বাংলা

আবার প্রশ্ন উঠছে রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিসেবা নিয়ে। শহরের সরকারি হাসপাতালে; ফের গাফিলতি রোগী চিকিৎসায়। গুরুতর অসুস্থ রোগীকে ফেরাল; পাঁচটি সরকারি হাসপাতাল৷ রোগীর মাথার চোট গুরুতর। সেই চোট নিয়েই পর পর পাঁচটি সরকারি হাসপাতাল ঘুরলেন রোগীর পরিবার। অথচ দুদিনে কোন হাসপাতালই অস্বস্ত করতে পারেনি।

শেষ পর্যন্ত জায়গা হয় বাঙুর ইনস্টিটিউট অফ নিউরোসায়েন্সেস-এর চত্বরে। কিন্তু; চিকিৎসা মিলবে কিনা সেই নিয়ে উদ্বিগ্ন বাবলু সরকারের পরিবার। অথচ; মুখ্যমন্ত্রী স্পষ্ট নির্দেশ দিয়েছেন; মুমূর্ষু রোগীকে কোন ভাবেই ফেরানো যাবে না। সেই নির্দেশকে উপেক্ষা করতে; পিছ পা হল না হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুনঃ অমর্ত্য সেন ও বিজেপির লড়াইকে হাতিয়ার করে শহর পোস্টারে মুড়ে দিল তৃণমূল

বাবলুর পরিবার থেকে জানা গিয়েছে; পেশায় কাঠের মিস্ত্রি বাবলু সরকার। বৃহস্পতিবার সকালে; মধ্যমগ্রামের একটি বাড়িতে গিয়েছিলেন ছাদে টিন লাগানোর কাজ করছিলেন। আচমকা পা পিছলে পড়ে যান বছর পঁয়তাল্লিশের বাবলু। মাথায় গুরুতর আঘাত পান নিউ বারাকপুরের বাসিন্দা। সঙ্গে সঙ্গে নিয়ে যাওয়া হয় বারাসত স্টেট জেনারেল হাসপাতালে। পরিবারের দাবি; হাসপাতাল থেকে জানিয়ে দেওয়া হয় বেড খালি নেই।

আরও পড়ুনঃ এবার শত্রুরা নিজেদের অউকাত-এর বাইরে যেতে পারবে না

তখনই অ্যাম্বুল্যান্স ভাড়া করে বাবলুকে নিয়ে আসা হয় আর জি করে। রোগীর শারীরিক অবস্থা খারাপ হতে থাকে। কথাবার্তা ও হাঁটাচলা বন্ধ হয়ে যায় রোগীর। আরজিকর হাসপাতালে সিটি স্ক্যান করে চিকিৎসকেরা জানান; মাথায় হেমারেজ হয়েছে। এখুনি অস্ত্রোপচার দরকার। কিন্তু সেই একই কথা; বেড নেই।

আরও পড়ুনঃ ফিরহাদ হাকিমকে চিঠি পাঠাল সিবিআই

রোগীকে রেফার করা হয় এসএসকেএম হাসপাতালে। সেখানেও অপেক্ষা চলে বেশ কয়েক ঘণ্টা। নিউরো সার্জারি বিভাগে বেড না থাকায় পাঠান হল এনআরএস হাসপাতালে। সেখানেও একই পরিস্থিতি। কিন্তু পরিবারের অভিযোগ; তিন ঘণ্টা অপেক্ষা করার পরে জানানো হয় স্ক্যান মেশিন খারাপ। বাঙুর ইনস্টিটিউট অফ নিউরোসায়েন্সেস-এ পাঠানো হয় তাঁদের। সেখানে স্ক্যান করা হয় কিন্তু চিকিৎসা শুরু হয়নি কোনও রকম।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন