ক্লাসে হজরত মহম্মদের ব্যঙ্গচিত্র নিয়ে আলোচনা, শিক্ষকের মুণ্ডু কাটল মৌলবাদীরা

2681
ক্লাসে হজরত মহম্মদের ব্যঙ্গচিত্র নিয়ে আলোচনা, শিক্ষকের মুণ্ডু কাটল মৌলবাদীরা
ক্লাসে হজরত মহম্মদের ব্যঙ্গচিত্র নিয়ে আলোচনা, শিক্ষকের মুণ্ডু কাটল মৌলবাদীরা

ক্লাসে হজরত মহম্মদের ব্যঙ্গচিত্র নিয়ে আলোচনা; শিক্ষকের মুণ্ডু কাটল মৌলবাদীরা। ক্লাসে হজরত মহম্মদের ব্যঙ্গচিত্র নিয়ে; আলোচনা করছিলেন এক শিক্ষক। সেজন্য প্যারিসের শহরতলির রাস্তায়; গলার নলি কেটে তাঁকে খুন করল এক আততায়ী। তাঁর মুণ্ডচ্ছেদ করা হয়। পরে ওই সন্দেহভাজন আতাতায়ীকে; গুলি করে মেরেছে ফ্রান্স পুলিশ। এক ফ্রান্স পুলিশ আধিকারিককে উদ্ধৃত করে; একথা জানিয়েছে সংবাদসংস্থা পিটিআই। গোটা দেশে এই ঘটনায় হইচই শুরু হয়েছে।

শুক্রবার উত্তর-পশ্চিম প্যারিসের; এরাগনিতে সেই ঘটনা ঘটেছে। সেই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সন্ত্রাসবাদের কোনও যোগ আছে কিনা; তা খতিয়ে দেখতে তদন্ত শুরু করেছে ফ্রান্সের সন্ত্রাস দমন শাখা। এক পুলিশ আধিকারিককে উদ্ধৃত করে পিটিআই জানিয়েছে; সন্দেহভাজন আতাতায়ীর হাতে একটি ছুরি এবং একটি বন্দুক ছিল। যেখানে ওই শিক্ষককে খুন করা হয়েছে; তার ৬০০ মিটার দূরেই সন্দেহভাজনকে নিকেশ করেছে ফ্রান্স পুলিশ।

আরও পড়ুনঃ ট্রাম্পের হয়ে আমেরিকায় নির্বাচন লড়ছেন, রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ বা আরএসএসের প্রতিনিধি

সংবাদসংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে; গত ৯ অক্টোবর একাধিক টুইট করা হয়েছিল। তাতে অভিযোগ করা হয়েছিল; হজরত মহম্মদের ব্যঙ্গচিত্র দেখিয়েছিলেন ওই শিক্ষক। সেই কারণেই তাঁকে হত্যা করা হয়। ফ্রান্সের বিএফএম টিভি জানিয়েছে; যেখানে ওই শিক্ষককে হত্যা করা হয়েছে; সেখানে যাবেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাকরঁর।

২০১১ সালে ‘শার্লি এবদো’, পয়গম্বর হজরত মহম্মদের; একটি কার্টুন ছেপেছিল। তার জেরে, ২০১৫ সালের ৭ জানুয়ারি, জঙ্গিরা হামলা চালায়; সেই ব্যঙ্গচিত্র ছাপার প্রতিশোধ নিতে। গুলিতে মারা যান মোট ১২ জন। বেঁচে যাওয়া সাংবাদিক ও কার্টুনিস্টরা শপথ নেন যে; পরের বুধবার অর্থাৎ ১৪ জানুয়ারি ২০১১; যথারীতি পত্রিকা বেরোবে। সাপ্তাহিক পত্রিকার প্রকাশনা; এক সপ্তাহও বন্ধ রাখা হবে না। গোটা বিশ্বে সমাদৃত হয়েছিল; এই সাহসের ঘটনা। ওই ১২ জনের মধ্যে; অনেকেই বিশ্ব বিখ্যাত কার্টুনিস্ট ছিলেন।

এই বছরের সেপ্টেম্বরেই; ফের ফ্রেঞ্চ সাপ্তাহিক পত্রিকা ‘শার্লি এবদো’ (Charlie Hebdo); মঙ্গলবার পয়গম্বর মোহাম্মদ (Prophet Mohammed) এর কার্টুন প্রকাশিত করে। ‘শার্লি এবদো’ হামলায়, অপরাধীদের মামলা শুরু হওয়ার মধ্যেই; পত্রিকা এই কার্টুন প্রকাশ করে। তারপর, এই শিক্ষক হত্যার ঘটনা ঘটল।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন