গৌতম আদানি, মাথায় বিশাল ধারের বোঝা নিয়েও বিশ্বের বড় ধনী

66
মাথায় বিশাল ধারের বোঝা নিয়েও বিশ্বের বড় ধনী, আশ্চর্য্য
মাথায় বিশাল ধারের বোঝা নিয়েও বিশ্বের বড় ধনী, আশ্চর্য্য
Simple Custom Content Adder

মাথায় বিশাল ধারের বোঝা নিয়েও বিশ্বের বড় ধনী, আশ্চর্য্য! সাধারণ মানুষের পক্ষে অর্থনীতি-টা বোঝা; সত্যি খুব শক্ত। আর আধুনিক অর্থনীতি-টা তো; মাথার উপর দিয়ে বেরিয়ে যায়। বুঝতেই পারি না, মাথায় ২ লক্ষ ২২ হাজার কোটি টাকা ঋণের বোঝা নিয়েও; কি করে একজন ব্যবসায়ী ‘বিশ্বের পঞ্চম ধনী ব্যক্তি’ হতে পারে? এও সম্ভব?

এপ্রিল-মে মাসেই, এশিয়ার শীর্ষ ধনী ব্যক্তি হয়েছিলেন; ভারতের ব্যবসায়ী গৌতম আদানি। পিছিয়ে গেছেন মুকেশ আম্বানিও। বিশ্বের বাজারে আদনির; সেই উত্থান অব্যাহত রয়েছে। মে মাসের শেষ দিকে এসে তিনি; ধনসম্পদে আরও এগিয়ে গেলেন। এবার বিশ্বের ‘বিনিয়োগ গুরু’ হিসাবে বিখ্যাত, ওয়ারেন বাফেটকে পেছনে ফেলে; বিশ্বের পঞ্চম শীর্ষ ধনীর তকমা পেলেন আদানি গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান গৌতম আদানি।

কারা হিসেব দিচ্ছে? না, ‘এলিতেলি’ কেউ নয়। এই হিসাব মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত ফোর্বস ম্যাগাজিনের। যারা বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের নিয়ে; প্রতিবছর ‘বিলিয়নিয়ার ইনডেক্স’ প্রকাশ করে, এইবছরও প্রকাশ করেছে।

ফোর্বস-এর হিসাব অনুযায়ী, ভারতের ৫৯ বছর বয়সী ধনকুবের গৌতম আদানির সম্পদের মোট মূল্য; বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৩৭০ কোটি মার্কিন ডলার। তারই জেরে, তিনি একলাফে বিশ্বের ধনী তালিকায়; পঞ্চম স্থানে উঠে গেছেন। তাঁর আগে এই স্থানে ছিলেন, ৯১ বছর বয়সী ওয়ারেন বাফেট; যাঁর সম্পদের মূল্য এখন ১২ হাজার ১৭০ কোটি ডলার।

আম্বানির এই বিপুল সম্পদ বৃদ্ধির পিছনে রয়েছে; আদানি গ্রুপের দুটি স্টকের লাগামছাড়া রিটার্ন। একটি আদানি পাওয়ার এবং অপরটি আদানি উইলমার।

আদানি পাওয়ারের স্টক সাম্প্রতিককালে; প্রায় ১২০% বৃদ্ধি পেয়েছে। যা এককথায় অবিশ্বাস্য। আদানি উইলমার গোষ্ঠীর স্টকের রিটার্ন প্রায় ৮৭%। এই দুই স্টকের রিটার্ন মিলিয়ে; সম্পত্তি বিপুল বেড়েছিল গৌতম আদানির। তার জেরেই বিশ্বের পঞ্চম ধনী; যার প্রথমে ইলান মাস্ক আর দ্বিতীয় জেফ বেজোস।

তাহলে ব্যাঙ্ক থেকে ধার করা; জনগণের টাকা শোধ করে দিলেন আদানি? ধুর কি যে বলেন! ওনারা দেশ গড়ছেন; ওনাদের আবার ব্যাঙ্ক লোন শোধ দিতে হয় নাকি? আমি আপনি ৫০ হাজার টাকা ধার নিলে; প্রতিদিন তিনবেলা করে ফোনে তাগাদা, সুপ্রিম কোর্টের নিষেধ সত্বেও; বাড়িতে ব্যাঙ্কের ভাড়া করা গুন্ডাদের হানা।

আরও পড়ুনঃ ইতিহাসে প্রথমবার ভারতের কোন ভাষায় লেখা উপন্যাস পেল বুকার পুরস্কার

আর আদানির ব্যাঙ্ক লোনের পরিমাণ? খুব একটা বেশি নয়, আদানি গোষ্ঠীর ব্যাঙ্ক ঋণের পরিমাণ; ২ লক্ষ ২২ হাজার কোটি টাকা। শেষ দুই বছরে আদানি গোষ্ঠীর ঋণ; চড় চড় করে বৃদ্ধি পেয়েছে। এই বছরের শেষে মার্চ মাসে আদানি গোষ্ঠীর ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে; ২.২২ ট্রিলিয়ন। মানে ২ লক্ষ ২২ হাজার কোটি টাকা; গত বছর এই ঋণের পরিমাণ ছিল ১.৫৭ ট্রিলিয়ন। এক লাফে ৪২% বৃদ্ধি ঋণের ক্ষেত্রে। ঋণ নিচ্ছেন, ব্যবসা বাড়াচ্ছেন; একটা টাকাও শোধ দিচ্ছেন না ব্যাঙ্কে। সুদে আসলে যার আসল পরিমাণ দেখে; আঁতকে উঠেছেন ভারতের অর্থনীতিবিদরা।

আমার আপনার জমানো টাকায়; একজন তার ব্যবসা চালাচ্ছে। এত ধার নিয়েও, বিশ্বের ৫ নম্বর ধনী লোকটার নাম গৌতম আদানি; অর্থনীতির কি অপার মহিমা!

বিশ্বের সেই ধনী ব্যক্তির গোষ্ঠী, যমুনা এক্সপ্রেসওয়ের কাজের বরাত পেয়েই; স্টেট ব্যাংকের কাছে ২০০০ কোটি টাকা ঋণ চেয়েছে। আগের একটা টাকাও শোধ না করে। এবার বুঝুন অবস্থাটা! টাকা ফেরত দেবে না আদানি, আর ব্যাঙ্ক সুদ ও পিএফ সুদ কমিয়ে; সেটাই আমাদের কাছ থেকে উসুল করছে কেন্দ্র সরকার।

যে দিন আদানি ডুববে বা বিদেশে পালাবে; সেই দিন ভারতের অর্থব্যবস্থা, কোমর ভেঙে বসে পড়বে। ধ্বসে যাবে ভারতের বড় ব্যাঙ্ক স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইণ্ডিয়া। তাতে কি এসে গেল বলুন, আমাদের দেশের মানুষ বিশ্বের পঞ্চম ধনী ব্যক্তি; এটাই কি সবচেয়ে বড় কথা নয়? একটু দেশভক্ত হতে শিখুন না।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন