আমাদের ছোটবেলার স্বপ্নের সোনালী চুলের রাজপুত্রের জেল

51
আমাদের ছোটবেলার স্বপ্নের সোনালী চুলের রাজপুত্রের জেল
আমাদের ছোটবেলার স্বপ্নের সোনালী চুলের রাজপুত্রের জেল
Simple Custom Content Adder

সোনালী চুলের রাজপুত্রের জেল। মাথায় একরাশ সোনালী চুল; বয়স মাত্র ১৭। সেই কিশোর কিনা বড়বড় খেলোয়াড়দের চিৎপাত করে; জিতে নিলেন পুরুষদের উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন ট্রফি! ভাবা যায়? ১০৮ বছরের ঐতিহ্যশালী টুর্নামেন্টে; যা কোনদিন হয়নি। ফ্লুক? সেটা যে নয়, পরের বছর আবার জিতে; সেটাও প্রমাণ করে দিলেন। বয়স তখন মাত্র ১৮; যে বয়সে জুনিয়ার উইম্বলডন খেলে অন্যান্যরা।

সেই সোনালী চুলের যুবকের টেনিস কোর্টে দাপাদাপি দেখতে; কি ভালই না লাগত। যেন স্বপ্নের রাজপুত্র; নেমে এসেছে বাস্তবের মাটিতে। নামও দেওয়া হল; ‘সোনালী চুলের রাজপুত্র’। আরও নাম, বরিস ‘বুমবুম’ বেকার। বড় হবার সঙ্গে সঙ্গে আরও একটা নাম জুড়ল; স্টেফি গ্রাফ। সোনালী চুলের রাজকন্যা; হৃদয়ের রানী। আসলে দুজনেই জার্মানির; টেনিস ফুটবল মিশে একাকার। মা-বাবার বকুনি উপেক্ষা করে; বাড়ির দেওয়ালে বরিস বেকার ও স্টেফি গ্রাফ। আমাদের ভালবাসার ছেলেবেলা, ছোটবেলা।

আর বড়বেলায় দেখলাম; বিশ্বের একনম্বর টেনিস প্লেয়ার নোভাক জকোভিচের কোচ হিসাবে। সেখানেও সাফল্য। বরিসের হাতে পড়ে; একের পর এক সাফল্য পেল জকোভিচ। বেকারের কোচিং জমানায়; সাত-সাতটা গ্র্যান্ড স্ল্যাম জিতেছিলেন নোভাক। আর বুড়োবেলায় সোনালী চুলের সেই রাজপুত্রকে জেলে যেতে হল; জালিয়াতির অভিযোগে। টেনিস ইতিহাসের অত্যন্ত জনপ্রিয় তারকা বরিস বেকার এর বিরুদ্ধে; উঠেছিল জালিয়াতির অভিযোগ। আর সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই; এবার আড়াই বছরের জেল হল এই টেনিস কিংবদন্তির।

৫৪ বছর বসয়ী বরিসকে ঋণ পরিশোধ করার জন্য; সম্পত্তি গোপন ও কর ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। এর আগে বরিস নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণা করেছিলেন ২০১৭ সালে। শুক্রবার দেউলিয়া আইনের অধীনে; চারটি অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন বরিস।

পুরো ঘটনাটা কী? ২০১৭ সালে স্পেনের শহর মায়োরকায়; সম্পত্তি কিনেছিলেন বেকার। ব্যাঙ্ক থেকে তিন মিলিয়ন পাউন্ড ঋণ নিয়ে। সেই ঋণ তো জার্মান টেনিস কিংবদন্তি ফেরত দেনইনি; উল্টে ধার যাতে শোধ করতে না হয়, তাঁর জন্য নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণা করে দেন। কিন্তু আদালতে প্রমাণ হয়ে গেল যে; ২০১৭ সালের পর নিজের প্রাক্তন স্ত্রী বারবারার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে; অকাতরে পাউন্ড ট্রান্সফার করতেন বেকার। খবর যা, প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ পাউন্ড; প্রাক্তন স্ত্রী সহ ন-জনের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ভাগাভাগি করে পাঠিয়েছিলেন বেকার। পরবর্তীকালে বর্তমান স্ত্রী লিলির অ্যাকাউন্টেও; একই জিনিস করতেন তিনি।

শুধু তাই নয়, জার্মানিতে নিজের আরও একটি সম্পত্তির কথা; ঘোষণা করেননি বেকার। আট লক্ষ পঁচিশ হাজার ইউরোর ব্যাঙ্ক লোন নেওয়ার কথাও; গোপন করে গিয়েছেন। মাঝে বিশাল অঙ্কে নিজের একটা মার্সিডিজ বেচে দিয়েছিলেন; সেটাও বলেননি। এক বিলাসবহুল ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে; হাজার হাজার পাউন্ড খরচ করতেন। বিখ্যাত ডিজাইনার রাল্ফ লরেনের পোশাক পরে; ঘুরে বেড়াতেন। নিজেকে ‘দেউলিয়া’ ঘোষণা করে! তদন্তে প্রমাণ হয়ে যায়; তিনি সঠিক তথ্য দেননি।

শুধু তাই নয়, ১৯৮৫, ১৯৮৬ ও ১৯৮৯ সালের উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন ট্রফি; ১৯৯১ ও ১৯৯৬ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার ট্রফি; ১৯৮৯ সালের ইউএস ওপেন চ্যাম্পিয়ন হওয়ার ট্রফি; এবং ১৯৯২ সালে অলিম্পিকে জেতা ডাবলস সোনার পদকের কথা জানাননি তিনি। হ্যাঁ, ওই ৬টি গ্র্যান্ড স্লামই জিতেছিলেন বরিস। শুধু তাই নয়, নিজের বিলাসবহুল মার্সিডিজ বিক্রি করে পাওয়া; ১.১৩ মিলিয়ন ইউরো লুকিয়েছিলেন। জার্মানিতে থাকা তাঁর দুটো সম্পত্তির পাশাপাশি; প্রায় সাড়ে ৮ লক্ষ ইউরোর ব্যাঙ্ক লোনও লুকিয়েছিলেন প্রাক্তন টেনিস তারকা।

লন্ডনের সাউথওয়ার্ক ক্রাউন আদালতে, বরিসের মামলার বিচারক ডেবোরা টেলর জানান; “বরিস এই ঘটনার জন্য কোনও অনুশোচনা দেখাননি। শুধু তাই নয়; তিনি নিজের অপরাধ স্বীকারও করেননি। এই মাসের শুরুর দিকে, প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে সাক্ষ্য শোনার পর; বিচারকগণ বেকারকে সম্পত্তি লুকিয়ে রাখার জন্য দোষী সাব্যস্ত করেন। এবং সম্পত্তির পুরো খতিয়ান প্রকাশ করতে ব্যর্থ হওয়ায় ও ঋণ গোপন করার জন্য; তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। আড়াই বছর কারাগারের অন্ধকারে কাটাতে হবে; আমাদের ছোটবেলার সোনালী চুলের রাজপুত্রকে।

বেকারের উদ্দেশে বিচারক বলেন; ‘‌আপনাকে সতর্ক করা সত্ত্বেও আপনি পাত্তা দেননি। তার জন্যেই আপনাকে এই শাস্তি দিতে হচ্ছে; খ্যাতির চূড়া থেকে মাটিতে নামতে হল আপনাকে। আপনার টেনিসজীবন, জনপ্রিয়তা সব কিছু হারালেন; নিজেকে মিথ্যে দেউলিয়া ঘোষণা করার কারণে’‌।

অথচ কী পাননি বরিস বেকার এই জীবনে? ছ-ছটা গ্র্যান্ড স্ল্যামের অধীশ্বর তিনি; অলিম্পিকে সোনা। টেনিসের সর্বকালের অন্যতম সেরা প্লেয়ার হিসেবে তাঁকে ধরা হয়। আর আজ? আজ তিনি আকাশ থেকে পাতালে; একাধিক অপরাধে। রাতারাতি কিংবদন্তি থেকে জালিয়াত; স্বপ্নের এক রাজপুত্রের কী মর্মান্তিক পরিণতি! ছোটবেলার স্বপ্নের কারিগররা, আমাদের বারবার বাস্তবের রুক্ষ মাটিতে আছড়ে ফেলে।

লিখলেন; মানব গুহ

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন