অবিশ্বাস্য, কালী ছাড়াই কালী পুজো, মমতার মুখ ও অনুপ্রেরণা ছাড়াই সরকারি অনুষ্ঠান

158
অবিশ্বাস্য, কালী ছাড়াই কালী পুজো, মমতার মুখ ও অনুপ্রেরণা ছাড়াই সরকারি অনুষ্ঠান//The News বাংলা
অবিশ্বাস্য, কালী ছাড়াই কালী পুজো, মমতার মুখ ও অনুপ্রেরণা ছাড়াই সরকারি অনুষ্ঠান//The News বাংলা

অনেকেই বলছেন সেই বাংলা প্রবাদটা; শিব ছাড়াই শিবের গাজন। অনেকে বলছেন; কালী ছাড়াই কালী পুজো। কিন্তু ব্যপারটা কি? ব্যপারটা অবিশ্বাস্য! মমতার মুখ ও অনুপ্রেরণা ছাড়াই; হয়ে গেল সরকারি অনুষ্ঠান। ২০১১ থেকে ২০১৯; ৮ বছরে রাজ্য সরকারের প্রকল্প থেকে শুরু করে; ব্যানার-প্রচারপত্র-আমন্ত্রণপত্রে তাঁর মুখ বা ‘অনুপ্রেরণা’ নেই; এতদিন সেটা প্রায় ভাবাই যেত না। সেটাই হয়ে গেল পরপর দুটি অনুষ্ঠানে!

শুক্রবার কলকাতা কর্পোরেশনের একটি অনুষ্ঠানে; পুরোপুরি গায়েব মমতা ও তাঁর অনুপ্রেরণা। সবচেয়ে যেটা অবাক করেছে; কন্যাশ্রীর ষষ্ঠ বর্ষ পালনের জন্য নারী ও শিশু বিকাশ এবং সমাজকল্যাণ দফতর; যে-আমন্ত্রণপত্র বিলি করেছে; তাতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবির ঠাঁই হয়নি। নেই তাঁর অনুপ্রেরণার কথা। আর এই অবিশ্বাস্য ব্যপারটাই ভাবাচ্ছে সবাইকেই। হলটা কি?

আরও পড়ুনঃ শোভনকে না পেয়ে বৈশাখীকে সরিয়ে দিল তৃণমূল

দীর্ঘদিনের রীতি-রেওয়াজ ভেঙে; সরকারি অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্রে; ‘মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণা’ শব্দ নেই! যাঁর স্বপ্নের প্রকল্প এই ‘কন্যাশ্রী’; সেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াই পালিত হয় কন্যাশ্রী দিবসের অনুষ্ঠান। সবাই ছিলেন; ছিলেন না শুধু কন্যাশ্রীর সৃষ্টিকর্তা।

তবে কন্যাশ্রীর জন্মদিনের অনুষ্ঠানে; মুখ্যমন্ত্রী না-থাকার বিষয়টি নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়ছেন না বিরোধীরা। সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী বলেন; “কন্যাশ্রী থেকে আসলে যা পাওয়ার; তা ওঁর পাওয়া হয়ে গিয়েছে। সে জন্যই এখন প্রকল্পের গুরুত্ব; ওঁর কাছে কমে গিয়েছে। নিজে আর অনুষ্ঠানে যাওয়ার প্রয়োজন মনে করছেন না!”

শুক্রবার কলকাতা পুরসভার সবুজ অভিযান অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্রেও; ‘মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণা’র কথা বলা ছিল না। ছিল না মুখ্যমন্ত্রীর ছবিও। অনুষ্ঠানের বি়জ্ঞাপন ও আমন্ত্রণপত্রের রং ছিল সবুজ। মমতা ক্ষমতায় আসার পর থেকে; সরকারি অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্রে ‘মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণা’ কথাটি লেখা; একপ্রকার বাধ্যতামূলক ছিল।

১৪ অগস্ট নজরুল মঞ্চে; কন্যাশ্রী দিবসের অনুষ্ঠান হবে। কেন ‘মুখ্যমন্ত্রী অনুপ্রেরণা’ বা ছবি ছাড়াই আমন্ত্রণপত্র বিলি হল? দফতরের মন্ত্রী শশী পাঁজা; এই প্রশ্নের জবাব দিতে চাননি। তিনি শুধু বলেন, “এ-সব অপ্রাসঙ্গিক প্রশ্ন”।

নবান্ন সূত্রের খবর; রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রয়াণ দিবস উপলক্ষে ৮ অগস্ট যে-সরকারি অনুষ্ঠান হয়েছে; তার আমন্ত্রণপত্রে অবশ্য ‘অনুপ্রেরণা’ ছিল। ৯ অগস্টের পরে যে-সব অনুষ্ঠান হচ্ছে; তার আমন্ত্রণপত্রে মমতার ছবি আর ‘অনুপ্রেরণা’র কথা থাকছে না বলে জানা গিয়েছে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন