‘রাজ্য সরকারের অনুমোদন না নিয়ে সফর’, রাজ্যপালকে চিঠি দিয়ে আপত্তি মুখ্যমন্ত্রীর

1446
'রাজ্য সরকারের অনুমোদন না নিয়ে সফর', রাজ্যপালকে চিঠি দিয়ে আপত্তি মুখ্যমন্ত্রীর
'রাজ্য সরকারের অনুমোদন না নিয়ে সফর', রাজ্যপালকে চিঠি দিয়ে আপত্তি মুখ্যমন্ত্রীর

‘রাজ্য সরকারের অনুমোদন না নিয়ে সফর’; রাজ্যপালকে চিঠি দিয়ে আপত্তি মুখ্যমন্ত্রীর। ফের চরমে উঠল; রাজভবন-নবান্ন দ্বৈরথ। রাজ্যের ভোট পরবর্তী হিং’সা নিয়ে, শীতলকুচিতে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের সফর ঘিরে; এবার কড়া চিঠি পাঠালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। চিঠিতে মমতা সাফ জানালেন; রাজ্যপাল দীর্ঘদিনের প্রথা লঙ্ঘন করেছেন। সেই সঙ্গে তাঁকে নির্দিষ্ট প্রোটোকল মেনে; চলার পরামর্শ দিলেন মমতা। এই নিয়ে এখনও কোন মন্তব্য করেননি; রাজ্যপাল ধনখড়। তবে, এই বিতর্ক যে সহজে থামবে না; তা সবার কাছেই পরিষ্কার।

বৃহস্পতিবার শীতলকুচি পরিদর্শনে যাচ্ছেন; রাজ্যের রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। কোচবিহারের যে সব এলাকায়, ভোট পরবর্তী হিং’সা হয়েছে; তা পরিদর্শন করবেন তিনি। মঙ্গলবার সন্ধেয় ট্যুইট করে, রাজ্যপাল জানিয়েছেন; “বিএসএফের কপ্টারে ১৩ মে শীতলকুচি যাব। শীতলকুচি সহ কোচবিহারের যে সব জায়গায়; ভোট পরবর্তী হিং’সার ঘটনা ঘটেছে; সেই সব এলাকা পরিদর্শন করে দেখব”। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও; এই ট্যুইটে ট্যাগ করা হয়।

আরও পড়ুনঃ বাংলায় ‘করোনা ভ্যাকসিন শিল্প’, মোদীকে জমি দিতে চান মমতা

তারই জেরে এবার রাজ্যপালকে; কড়া চিঠি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। বুধবার ধনখড়কে চিঠি লিখে; পশ্চিমবঙ্গে সরকারের প্রোটোকল এবং আচার-সংক্রান্ত ম্যানুয়াল; স্মরণ করিয়ে দেন মমতা। চিঠির বয়ান অনুযায়ী, ম্যানুয়ালে লেখা আছে যে; ‘সরকারের নির্দেশ পাওয়ার পর; রাজ্যপালের জেলা সফরের কর্মসূচি চূড়ান্ত করেন রাজ্যপালের সচিব। রাজ্যপালের সফরের আগে রাজ্য সরকার, সংশ্লিষ্ট জেলার জেলাশাসক, কমিশনারের সঙ্গে আলোচনা করেন রাজ্যপালের সচিব’। এক্ষেত্রে কিছুই হয়নি। রাজ্যকে অন্ধকারে রেখে; সফর ঠিক করলেন রাজ্যপাল নিজেই।

আরও পড়ুনঃ বহু আসনেই দু-হাজারের কম ভোটে হার, পুনর্গণনা চেয়ে আদালতে যাচ্ছে বিজেপি

মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, কোচবিহার সফর নিয়ে; সেই ম্যানুয়েল মেনে চলেননি রাজ্যপাল। মমতা চিঠিতে লিখেছেন, সোশ্যাল মিডিয়া থেকে জানতে পেরেছেন যে; ‘একতরফাভাবে’ বৃহস্পতিবার কোচবিহারে যাচ্ছেন ধনখড়। যা প্রোটোকলের বিরুদ্ধে বলে; দাবি করেছেন মমতা।

চিঠিতে মমতা লিখেছেন; “দুঃখজনকভাবে রাজ্যপালের সফরে, দীর্ঘদিনের প্রথা লঙ্ঘিত হয়েছে; বলে আমার মনে হয়েছে। যা কয়েক দশক ধরে সুপ্রতিষ্ঠিত। তাই আমি আশা করছি যে; নির্দিষ্ট প্রোটোকল মেনে চলবেন আপনি এবং বিভিন্ন জায়গায় সফরের হঠকারী সিদ্ধান্ত থেকে বিরত থাকবেন”। রাজ্যপালের তরফ থেকে; এই চিঠির উত্তর আসবে; আশা করছে বাংলার রাজনৈতিক মহল।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন