হাওয়ায় ভাসল নিষেধ, শহরে দেদার বিক্রি গুটখা পানমশলা

288
হাওয়ায় ভাসল নিষেধ, শহরে দেদার বিক্রি গুটখা পানমশলা/The News বাংলা
হাওয়ায় ভাসল নিষেধ, শহরে দেদার বিক্রি গুটখা পানমশলা/The News বাংলা

ঘোষণাই সার। নিষেধাজ্ঞা ভুলে দেদার বিক্রি হচ্ছে; গুটখা ও তামাকজাত মশলা। জনস্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখে; জাতীয় ক্যান্সার সচেতনতা দিবস থেকেই; রাজ্যে বন্ধ হওয়ার কথা গুটখা ও পান মশলা। কিন্তু শুক্রবারও বহাল তবিয়তে; কলকাতায় প্রকাশ্যেই বিক্রি হচ্ছে গুটখা পান মশলা। নেই কোন সরকারি নজরদারি ব্যবস্থা। জনসাধারণের সচেতনতাও তো ‘দূর কি বাত’। স্বাস্থ্য দপ্তরের নিষেধাজ্ঞা একপ্রকার হাওয়ায় উড়িয়েই দিল কলকাতা ও বাংলাবাসী।

এদিন কলকাতার প্রায় সর্বত্রই সকালবেলা থেকে; স্বাভাবিকভাবেই বিক্রি হল গুটখা ও পানমশলা। কিন্তু তামাকজাত পণ্য বিক্রি করা যে নিষিদ্ধ; তা দোকানিরা আদৌ জানেন কি? উত্তরে চমকে জাবেন আপনি! তারা স্পষ্ট জানিয়ে দেন; চাহিদা আছে তাই বিক্রি করছি; নিষেধ কিনা জানেনই না তারা। তাছাড়া অধিকাংশ দোকানিরা এই নিষেধ নিয়ে ওয়াকি বহলই নয়! অন্যদিকে ক্রেতার বক্তব্য; ‘আগে মদ, সিগারেট নিষিদ্ধ হোক। নিসিদ্ধ হলে সব হওয়া উচিত’।

আরও পড়ুনঃ যেকোনো দিন রাম মন্দির রায়, সেনা পাহারায় রাম মন্দির

বর্তমানে গুটখা বা তামাক জাতীয় দ্রব্যের চাহিদা বেড়েছে পড়ুয়াদের মধ্যে। অন্যদিকে কিছু দোকানিরা বলেন; সরবরাহ কমলে তবেই কমবে বিক্রি। মূলত উত্তরপ্রদেশ; গুজরাট, বিহার থেকেই এই পণ্য আসে এই শহরে। জমা হয় বড়বাজার অঞ্চলে; সেখান থেকেই ছড়িয়ে যায় গোটা শহরের দোকানিদের কাছে। খুব অল্প বয়েসের ছেলে-মেয়েরা; আসক্ত হয়ে পরছে এই নেশায়। ব্যবসায়ীরা জানান; সরকার ঠিক মতো পদক্ষেপ নিলে তারাও বিক্রি বন্ধ করতে রাজি।

আরও পড়ুনঃ জঙ্গির পর বিপদের নাম বরফ, কাশ্মীরে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে

শহরে গুটখার দেদার বিক্রি ও তার পরবর্তী ক্ষতির কথা ভেবেই; নিষেধ আনা হয় এই পণ্যে। স্বাস্থ্য দপ্তরের খাদ্যসুরক্ষা বিভাগের এক আধিকারিক জানিয়েছেন; ‘একদিনের মধ্যে এই পন্য বন্ধ হওয়া সম্ভব নয়। কালাোবাজারির আশঙ্কাও থেকে যায় এই বিষয়ে’। একমাত্র সচেতনতার মধ্যে দিয়েই; এইসব পন্য বন্ধ করা জেতে পারে বলে তিনি জানান।

গুটখা, পানমশলা ও তামাকজাতীয় দ্রব্য থেকেই বেশি ক্যান্সার দেখা যায়। বর্তমানে ক্যান্সার রোগীর সংখ্যা ক্রমাগত বেড়েই চলছে। সেখানে লাগাম দিতেই এই বিধিনিষেধ আরোপ করেছে সরকার। তবে শহরবাসী মানলে তবেই যে সেটা বন্ধ করা সম্ভব; তা বোঝা গেল প্রথম দিনেই।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন