বাজার থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে হাতে তৈরি ফেদার কর্ক

5279
বাজার থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে ফেদার কর্ক/The News বাংলা
বাজার থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে ফেদার কর্ক/The News বাংলা

সময়টা সত্তরের দশকের শেষদিক। ব্যাডমিন্টন তারকা প্রকাশ পাড়ুকোন খ্যাতির মধ্যগগনে। নিজের প্র্যাকটিস ও বাবার তৈরি পাড়ুকোন স্পোর্টসের জন্য প্রচুর শাটল কর্কের প্রয়োজন হয়। যে চাহিদার প্রায় সবটাই মেটাত; পশ্চিমবঙ্গের হাওড়া জেলার উলুবেড়িয়া। এখানকার তৈরি শাটল কর্ক ছাড়া চলত না প্রকাশ পাড়ুকনের।

এক সময়ে উলুবেড়িয়ায় তৈরি; শাটল কর্ক সারা দেশের বাজার নিয়ন্ত্রণ করত। সেই সুদিন গিয়েছে; কারণ বাজারের দখল নিয়েছে চিনের তৈরি শাটল কর্ক। প্রতিযোগিতায় এঁটে উঠতে না পেরে; এখন অস্তিত্ব সঙ্কটে ভুগছে উলুবেড়িয়ার অন্যতম এই শিল্প।

আরও পড়ুনঃ পর্নোগ্রাফি দেখার প্রবণতা বাড়ছে নারীদের

দশ বছর আগেও; যেখানে অন্তত ২৫০টি শাটল কর্কের কারখানা ছিল; এখন তা ঠেকেছে গোটা দশেকে। অন্তত ১০ হাজার মানুষের প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ রুজিরোজগার হতো এখান থেকে। এখন সেই সংখ্যাটা শ’পাঁচেক।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে; উলুবেড়িয়া হাসপাতাল মাঠে তাঁবু পড়েছিল ইংরেজ সেনার। তারা ব্যাডমিন্টন খেলত। এলাকার ব্যবসায়ী জ্ঞান বসুর নজরে পড়েছিল ঘটনাটা। তিনি সেনাশিবিরে নানা জিনিসপত্র জোগান দিতেন। সেনাদের ব্যাডমিন্টন খেলা দেখে; নিজের মাথা খাটিয়ে জ্ঞানবাবু তৈরি করলেন বোতলের ছিপিতে; শিরিস আঠার সাহায্যে হাঁসের পালক জুড়ে শাটল কর্ক। পছন্দও হল সেনাদের। উলুবেড়িয়ায় শাটল কর্ক শিল্পের সেটাই শুরু।

আরও পড়ুনঃ ধূমপান ছাড়তে কি করবেন

মূলত হস্ত নির্ভর এই শিল্পে; শাটল কর্ক তৈরিতে প্রয়োজনীয় দুটি প্রধান উপকরণের একটি হল কর্ক; অন্যটি হাঁসের পালক। কর্ক বোতলের ছিপির মতো দেখতে। তবে ভিতরটা ভরাট। বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়। যন্ত্রের সাহায্যে এতে ১৬টি ফুটো করে; তাতে পালক গেঁথে দেওয়া হয়।

তবে বছর চারেক ধরেই; এখাকার শাটল কর্কের বাজার মন্দা। কারখানা মালিকেরা জানান; চিন থেকে ফাইবারের তৈরি শাটল কর্ক ছেয়ে ফেলেছে বিভিন্ন রাজ্যের বাজার। সেই সব শাটল কর্কের দাম; এখানে তৈরি শাটল কর্কের চেয়ে তুলনায় বেশি হলেও; পুরোপুরি যন্ত্রে তৈরি হওয়ায় তা ইনডোর ও আউটডোর দু’ভাবেই; খেলার বেশি উপযোগী। পাশপাশি বিপণন কৌশলেও তাঁরা পিছিয়ে। তাঁদের বক্তব্য; এই শিল্পকে বাঁচাতে উন্নত বিপণন কৌশল; এবং প্রযুক্তি কীভাবে প্রয়োগ করা যায়; সে বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্য সরকারের তরফে উদ্যোগের প্রয়োজন ছিল। কিন্তু আজ পর্যন্ত তা হয়নি।
রাজীব মুখার্জী

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন