ছেলে জঙ্গি হওয়ায় খুশি হয়েছিলেন হুরিয়ত নেতা, সেনার হাতে খতম হওয়ার পর কান্না

2307
ছেলে জঙ্গি হওয়ায় খুশি হয়েছিলেন হুরিয়ত নেতা, সেনার হাতে খতম হওয়ার পর কান্না
ছেলে জঙ্গি হওয়ায় খুশি হয়েছিলেন হুরিয়ত নেতা, সেনার হাতে খতম হওয়ার পর কান্না

কাশ্মীর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ করে; নেতার ছেলে যোগ দিয়েছিল জঙ্গি দলে। ভারতের বিরুদ্ধে চোরাগোপ্তা লড়তে লড়তে; ধীরে ধীরে হয়ে উঠেছিল, কাশ্মীরে হিজবুল মুজাহিদিনের দ্বিতীয় নেতা। সম্প্রতি ভারতীয় সেনার হাতে; হিজবুলের ডেপুটি চীফ কম্যান্ডার রিয়াজ নাইকু খতম হওয়ার পরে; সেই ছেলেই পায় রিয়াজ নাইকুর বদলে; হিজবুলের ডেপুটি চীফ কম্যান্ডার পদ। সেই জঙ্গি জুনেইদ সহরাইও; এবার ভারতীয় সেনার হাতে নিকেশ হল। ছেলে জঙ্গি হওয়ায় বেশ খুশি হয়েছিলেন; হুরিয়ত নেতা আশরফ সহরাই। ভারতীয় সেনার হাতে ছেলের খতম হওয়ার খবর শুনে; এখন জুড়েছেন কান্না।

মমতার হাতে টাকা দেবেন না, একই দাবি মমতা করেছিলেন বামেদের বিরুদ্ধে

ছেলে জঙ্গি হওয়ায় খুশি হয়েছিলেন হুরিয়ত নেতা, সেনার হাতে খতম হওয়ার পর কান্না

MBA করা ছেলে যখন জঙ্গি হয়েছিল; তখন ‘তেহরিক ই হুরিয়ত’ নেতা আশরফ সহরাই; ভারত সরকারের সমালোচনা করে মিডিয়াকে বলেছিলেন; “জম্মু কাশ্মীরের বর্তমান জেনারেশন শিক্ষিত। এরা নিজেদের রাস্তা; নিজেরাই বেছে নিতে পারে। ভারত সরকারের এটা বোঝা উচিৎ যে; আজকের প্রজন্ম সেই ১৯৫০ এর প্রজন্মের সমান না। সেই সময় শেখ আবদুল্লাহ নেতৃত্বে ছিলেন। আর এরা ১৯৯০ এর দশকের প্রজন্ম। এরা সব কিছু বোঝে। যদি এদের অধিকার কাড়া হয়; তাহলে এরা প্রশ্ন করে আর লড়ার জন্য বন্দুক তুলে নেয়”।

আমফান ক্ষতি দেখতে বাংলায় আসছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

জঙ্গি ছেলে, ভারতীয় সেনার হাতে খতম হওয়ার পর; ‘তেহরিক ই হুরিয়ত’ নেতা আশরফ সহরাই এখন জুড়েছেন মরাকান্না। তেহরিক-ই-হুরিয়ত এর সভাপতি আশরাফ সহরাই; ২৩ মার্চ ২০১৮ সালে শ্রীনগর থানায়; ছেলে জুনেইদের নিখোঁজ হওয়ার ডায়েরি লিখিয়েছিলেন। তখন জুনেইদের বয়স ছিল ২৮ বছর। তাঁর ডায়রি করার পরে; পুলিশ জুনেইদের খোঁজ শুরু করে। আর ঠিক তার ২৪ ঘণ্টা পর; হাতে বন্দুক নিয়ে জঙ্গি জুনেইদ ছবি পোস্ট করে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

শ্রমিকদের নিজের বাড়ি পাঠাতে, রাজ্যের অনুমতির দরকার নেই, জানাল মোদী সরকার

ছবি দেখার পরেও, হুরিয়ত নেতা আশরাফ সহরাই তাঁর ছেলে জুনেইদকে; জঙ্গিদের কাছ থেকে দূরে থাকার আবেদন করবেন না বলে; উল্টে ভারত সরকারের সমালোচনা করেছিলেন মিডিয়ার সামনে। সেই সময় জম্মু কাশ্মীরের ডিজিপি; এসপি বৈদ্য আশরাফকে বুঝিয়েছিলেন যে; “আশরাফ যেন নিজের শিক্ষিত ছেলেকে জঙ্গির রাস্তা ছেড়ে; স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার আবেদন করে”। কিন্তু তা উড়িয়ে দিয়ে; ভারতের বিরুদ্ধে ছেলের লড়াইকে সমর্থন করেন তিনি।

যোগীকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মুখোশ খুলে গেল কংগ্রেসের

হিজবুলের ডেপুটি চীফ কম্যান্ডার রিয়াজ নাইকু খতম হওয়ার পরে; এবার নিকেশ হল জঙ্গি জুনেইদ সহরাইও। করোনা লড়াইয়ের মধ্যেও; সম্প্রতি কাশ্মীরে ‘পাক সমর্থিত’ হিজবুল মুজাহিদিন জঙ্গিদের বিরুদ্ধে বড়সড় সাফল্য পেল ভারতীয় সেনা। আর এখন জঙ্গি ছেলের মৃত্যুতে ফের ভারতের দিকে তোপ দেগে; মরাকান্না কাঁদছেন কাশ্মীরের বিছিন্নতাবাদী হুরিয়ত নেতা আশরফ সহরাই।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন