ধর্মের নামে মারধর আটকাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ-র নেতৃত্বে কমিটি গঠন করল মোদী সরকার

1537
ধর্মের নামে মারধর আটকাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ-র নেতৃত্বে কমিটি গঠন করল মোদী সরকার/The News বাংলা
ধর্মের নামে মারধর আটকাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ-র নেতৃত্বে কমিটি গঠন করল মোদী সরকার/The News বাংলা

দেশে গণপিটুনির ঘটনা নতুন নয়। তবে তা কিছুদিন আগেই; সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছিল বিজেপি সরকার। শেষ পর্যন্ত চাপে পড়ে; ‘কেন্দ্র গণপিটুনি রোধ কমিটি’ তৈরি করতে বাধ্য হল মোদী সরকার। গত বছরই; দেশে গণপিটুনি রুখতে তৈরি করা হয়েছিল একটি কমিটি। এবারের সভায় তা বদলে; গঠন করা হল নতুন মন্ত্রীকমিটি। কমিটির প্রধান কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। জানা যাচ্ছে; অমিত শাহের নেতৃত্বে আগাস্ট মাসেই হতে পারে এই কমিটির প্রথম বৈঠক।

পাঁচ সদস্যের এই কমিটিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ছাড়াও থাকবেন বিদেশমন্ত্রী এস জয়শংকর,কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশংকর প্রসাদ, কেন্দ্রীয় পরিবহনমন্ত্রী নীতিন গডকরি ও কেন্দ্রীয় সমাজকল্যানমন্ত্রী তাহরচাঁদ গেলহট।

আরও পড়ুনঃ বিচারব্যবস্থার লজ্জা, দুর্নীতির দায়ে হাইকোর্টের বিচারপতির বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্ত

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রসচিব রাজীব দেবেগৌড়া জানান; এই উচ্চপর্যায়ের কমিটি দেশের গণপিটুনি রোধ বিষয়ে কাজ করবেন৷ অথচ দিন কয়েক আগে লোকসভায় দাঁড়িয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী জি কৃষ্ণ রেড্ডি সাফ জানিয়েছিলেন দেশজুড়ে নাকি কোনো গণপিটুনির ঘটনা ঘটেইনি৷

অপর্ণাসেন সহ ৪৯ জন বুদ্ধিজীবিরা বিশেষভাবে গণপিটুনির উপর জোড় দিয়ে একটি চিঠি লিখেছিলেন। মূলত গণপিটুনি রোধের আবেদন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছিলেন তাঁরা৷ পাল্টা চিঠি লিখে তাঁদের আক্রমণ করেন ৬১ জন বিজেপিপন্থী বুদ্ধিজীবি৷

মুখে বিষয়টাকে পাত্তা না দিলেও শেষ পর্যন্ত উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠন করে মোদী সরকার তাঁদের দাবিকেই মান্যতা দিল৷ তাছাড়া সুপ্রিমকোর্ট এই বিষয়ে কেন্দ্র কাছে জবাবদিহি চেয়েছে৷ সব মিলিয়ে পরিস্থিতির চাপে মন্ত্রীদের নিয়ে এই বিষয়ে কমিটি গঠিত হল৷

আরও পড়ুনঃ ভারতীয় বিচার ব্যবস্থাকে সম্পূর্ণ নগ্ন করে দিল উন্নাও এর ঘটনা

তবে গণপিটুনি সংক্রান্ত বিষয়ে কেন্দ্রীয় কমিটি নিয়ে বিরেধীরা কটাক্ষ করে বলেন; ‘যে রক্ষক, সেই ভক্ষক’৷ এক বিরোধী সাংসদ বলেন; গোধরাকাণ্ডের অন্যতম নায়ক গণপিটুনি কমিটির প্রধান৷ বিরোধীদের মতে; কমিটিতে স্বচ্ছতা বজায় রাখার জন্য সেখানে বিরোধী দলের কোন সদস্যকে রাখা উচিত ছিল।

বিরোধীদের আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেছেন; এই কমিটি কতটা কাজ করবে তা এখন থেকেই পরিষ্কার৷ কংগ্রেসের এক সাংসদ বলেন; কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কিন্তু বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি হওয়ায় কোনদিনও বিজেপি বিরোধী মন্তব্য করবেন না৷ তাই এক্ষেত্র সুবিচার পাওয়ার আশা কতটা তা দেশবাসীকেই ভাবতে বলেন।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন