কীভাবে শরীরে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ ঠিক রেখে সুস্থ থাকবেন

289
কী খেলে হিমোগ্লোবিন বাড়বে/The News বাংলা
কী খেলে হিমোগ্লোবিন বাড়বে/The News বাংলা

রক্তকোষে লৌহসমৃদ্ধ একধরনের প্রোটিন হল হিমোগ্লোবিন। এটি শরীরে অক্সিজেন পরিবহনে সাহায্য করে। সুস্থ জীবনযাপনে রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা; সঠিক থাকা প্রয়োজন। জেনে নিন কি কি খাবার খেয়ে; রক্তে হিমোগ্লোবিনের মান ঠিক রাখা যায়।

চিকিৎসকদের মতে, নারীদের ঋতুচক্রের সময়, গর্ভাবস্থায়, শিশুদের বেড়ে ওঠার সময় লৌহের বেশি দরকার হয়। হিমোগ্লোবিনের মাত্রা কমে গেলে দুর্বলতা; ক্লান্তি, মাথাব্যথা, শ্বাসকষ্ট, ঝিম ধরা, খিদে না পাওয়ার মতো বিভিন্ন সমস্যা দেখা যায়। যদি হিমোগ্লোবিনের মাত্রা অনেক কম হয়; তবে রক্তাল্পতা বা এর চেয়েও মারাত্মক সমস্যা দেখা দিতে পারে।

আরও পড়ুনঃ আপনি কি চুল পড়ার সমস্যায় ভুগছেন, জেনে নিন চুল ভালো রাখবেন কীভাবে

লৌহযুক্ত খাবার: শরীরে লোহার ঘাটতি; হিমোগ্লোবিন কমে যাওয়ার অন্যতম কারণ। হিমোগ্লোবিন উৎপাদনে লোহা গুরুত্বপূর্ণ একটি উপাদান। লৌহসমৃদ্ধ খাবারের মধ্যে রয়েছে মুরগির কলজে, ডিম, আপেল, বেদানা, ডালিম, তরমুজ, কুমড়ার বীজ, খেজুর, জলপাই, কিশমিশ ইত্যাদি।

ভিটামিন সি: ভিটামিন সি-এর অভাবে; হিমোগ্লোবিন কমে যেতে পারে। তা ছাড়া ভিটামিন সি ছাড়া; লোহা পুরোপুরিভাবে শোষণ হয় না। পেঁপে, কমলা লেবু, লেবু, স্ট্রবেরি, গোলমরিচ, সবুজ ফুলকপি, ব্রকোলি, আঙুর, টমেটো ইত্যাদিতে প্রচুর ভিটামিন সি থাকে।

ফলিক অ্যাসিড: ফলিক অ্যাসিড একপ্রকার ভিটামিন বি কমপ্লেক্স। এটি লাল রক্তকণিকা তৈরিতে প্রয়োজনীয় উপাদান। সবুজ পাতাযুক্ত সবজি, ভাত, শিমের বীজ, বাদাম, কলা, সবুজ ফুলকপিতে অনেক ফলিক অ্যাসিড পাওয়া যায়।

আরও পড়ুনঃ শরীর চর্চা বিষয়ে সচেতন হলে ব্যবহার করুন উপকারী নিম ও হলুদ

বিট: হিমোগ্লোবিন বাড়াতে; বিটের রস খাওয়ার পরামর্শ দেন ডাক্তাররা। এতে রয়েছে প্রচুর আয়রন, ফলিক অ্যাসিড, ফাইবার ও পটাশিয়াম। এর পুষ্টি; শরীরের লাল রক্তকণিকা্র পরিমাণ বাড়ায়।

আপেল: দিনে একটি করে আপেল খেয়ে; রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা ঠিক রাখতে পারেন। আয়রনের উৎস আপেলে; আরও নানা প্রকার পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে। প্রতিদিন খোসাসহ; একটি আপেল খান। অথবা সমানুপাতে আপেল ও বিটের রস মেশাতে পারেন।

ডালিম: আয়রন, ক্যালসিয়াম, শর্করা ও আঁশ (ফাইবার) সমৃদ্ধ ডালিম; রক্তে হিমোগ্লোবিন বৃদ্ধি করে; দেহে রক্ত চলাচল সচল রাখে। প্রতিদিন মাঝারি আকৃতির; একটি ডালিম খাওয়ার চেষ্টা করুন। অথবা এক গ্লাস ডালিমের রস খান।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন