শত্রুকে নিমেষে নিকেশ করে ভারতের সেরা ৯ কম্যান্ডো বাহিনী, তৃতীয় পর্বে প্যারা, কোবরা ও ফোর্স ওয়ান

3025
শত্রুকে নিমেষে নিকেশ করে ভারতের কম্যান্ডো, প্যারা, কোবরা ও ফোর্স ওয়ান/The News বাংলা
শত্রুকে নিমেষে নিকেশ করে ভারতের কম্যান্ডো, প্যারা, কোবরা ও ফোর্স ওয়ান/The News বাংলা

‘কম্যান্ডো’৷ একটা শব্দই ঝাঁকিয়ে দেয়; সাধারণ মানুষকেও। যে কোন সাধারণ সেনাবাহিনীর তুলনায় অনেক বেশি শক্তিশালি; অনেক বেশি ক্ষিপ্র; চোখের পলক ফেলার আগেই শত্রুর উপর ঝাঁপিয়ে পরতে; সদা প্রস্তুত ভারতের এই কম্যান্ডোরা। বিশ্বের যে কোন দেশের তুলনায়, ভারতের ৯টি কম্যান্ডো বাহিনী যেন; অধিক হিংস্র, ক্ষিপ্র ও গতিসম্পন্ন। শত্রুকে নিমেষে নিকেশ করে; ভারতের সেরা ৯ কম্যান্ডো বাহিনী। এরা এতটাই ভয়ানক যে, এই ৯ বাহিনীকে; বিশ্বের অন্যতম ভয়ঙ্কর কম্যান্ডো বাহিনী হিসাবে গণ্য করা হয়। তৃতীয় ও শেষ পর্বে পড়ুন; প্যারা, কোবরা ও ফোর্স ওয়ান।

পড়ুন প্রথম পর্বঃ শত্রুকে নিমেষে নিকেশ করে ভারতের সেরা ৯ কম্যান্ডো বাহিনী, প্রথম পর্বে মার্কোস গরুড় ঘাতক

পড়ুন দ্বিতীয় পর্বঃ শত্রুকে নিমেষে নিকেশ করে ভারতের সেরা ৯ কম্যান্ডো বাহিনী, দ্বিতীয় পর্বে NSG, SPG, স্পেশাল ফ্রন্টিয়ার ফোর্স

Para Commandos বা প্যারা কম্যান্ডো

৭. প্যারা কম্যান্ডোঃ ১৯৬৬ সালে ভারতীয় সেনাবাহিনীতে; এই কম্যান্ডো ইউনিটটি তৈরি করা হয়েছিল। এই কম্যান্ডো বাহিনী হল; ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্যারাশুট ডিভিশন। এদের কাজ হলো আকাশ থেকে ঝাঁপ দিয়ে; শত্রুপক্ষের উপরে হামলা করে পদাতিক বাহিনীর অগ্রগতিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। সাড়ে তেত্রিশ হাজার ফুট উপর থেকে; ঝাঁপ দিতে সক্ষম এরা। আকাশপথে শত্রুর এলাকায় অনুপ্রবেশ থেকে শুরু করে; সমুদ্রপথে হামলায় দক্ষ এই বাহিনী। প্যারা কম্যান্ডোরা ভারতীয় সেনাবাহিনীর একমাত্র ইউনিট; যাদের শরীরে ট্যাটু আঁকার অনুমতি দিয়েছে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক।

১৯৬৫ সালে ভারত পাক যুদ্ধের সময়; একটা কম্যান্ডো ইউনিট গড়া হয়। নাম দেওয়া হয় মেঘদূত ফোর্স। মেজর মেঘ সিং এর নেতৃত্বে; এই কম্যান্ডো বাহিনী কাজ করেছিল। এই বাহিনী দারুণ কাজ করেছিল; ভারত পাক যুদ্ধে। তারপরেই পাকাপাকি ভাবে পদাতিক বাহিনীর; একটা কম্যান্ডো ফোর্স গড়ার প্রয়োজনীয়তা লক্ষ করা হয়। তারপরেই তৈরী হয়; প্যারা কম্যান্ডো বাহিনী। বিমান বা হেলিকপ্টারে; প্যারা কম্যান্ডোদের নামিয়ে দেওয়া হয় ঘটনাস্থলে। শত্রু বা জঙ্গীদের উপর নিমেষে; প্রথম হামলাটা করে এই কম্যান্ডোরা।

১৯৭১ সালের ভারত পাক যুদ্ধে; প্রথমবারের জন্য প্যারা কম্যান্ডোদের দেখা যায়। ৬ সদস্যের প্যারা কম্যান্ডো; ২৪০ কিলোমিটার ভেতরে ছেড়ে দেওয়া হয়। তারা অতর্কিতে হামলা চালায়; পাক আর্মির উপর। একটা ছোট্ট কম্যান্ডো বাহিনী; ৪৭৩ জন পাকিস্থানী সৈন্যকে মেরে ফেলে; আরও ১৪০ জনকে আহত করে। পাকিস্থানের স্পেশ্যাল সার্ভিস গ্রুপের; ১৮ জন সদস্যকে আটক করে ফেলে এই কম্যান্ডো দলের সদস্যরা। দেশে বিদেশে বিভিন্ন অপারেশনে; সফল ভাবে অসম্ভবকে সম্ভব করেছে প্যারা কম্যান্ডো।

COBRA Commando বা কোবরা কম্যান্ডো

৮. কোবরা কম্যান্ডোঃ Commando Battalion for Resolute Action বা; COBRA কম্যান্ডো। ২০০৮ সালে, Central Reserve Police Force বা CRPF বাহিনীর, এই কম্যান্ডো ফোর্সের সৃষ্টি হয়েছিল; প্রধানত নকশাল ও মাওবাদীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালাতে। ‘হয় মরো না হয় মারো’; এটাই কোবরা কম্যান্ডো বাহিনীর মূলমন্ত্র। জঙ্গলের মধ্যে যে কোনো ধরনের; গেরিলা যুদ্ধে সক্ষম এই বাহিনী। কোবরা কম্যান্ডোরা এতটাই দক্ষ যে; মুহূর্তের মধ্যে জঙ্গলে শত্রুর চোখে ধুলো দিতে পারে। তারা এমন পোশাক এবং মুখে রঙ মেখে অভিযানে নামে যে; চট করে জঙ্গলে তাদের দেখে ফেলা কঠিন। প্যারাসুট নিয়ে ঝাঁপ দিয়েও; অভিযানে সক্ষম কোবরা কম্যান্ডোরা।

কেন্দ্রীয় পুলিশ বাহিনীর অধীনে আছে; এই কোবরা কম্যান্ডো বাহিনী। অত্যাধুনিক স্বয়ংক্রিয় ইনসাস রাইফেল থেকে; একে ৪৭, এক্স ৯৫-এর মতো আগ্নেয়াস্ত্রে সজ্জিত কম্যান্ডোরা। কোবরা কম্যান্ডোদের নিশানা এতটাই নিখুঁত যে; যে কোনও স্থান থেকে শত্রুকে গুলি করে খতম করা; এদের কাছে জলভাত। যে কোন অস্ত্র চালানোর পাশাপাশি; যে কোন বিস্ফোরক নিষ্ক্রিয় করার ট্রেণিং দেওয়া হয় কোবরা কম্যান্ডোদের।

Force Commandos বা ফোর্স ওয়ান কম্যান্ডো

৯. ফোর্স ওয়ান কম্যান্ডোঃ ২৬/১১ মুম্বাই হামলার পর; এই কম্যান্ডো বাহিনী তৈরি করে মহারাষ্ট্র সরকার। মুম্বাই পুলিশের এই কম্যান্ডো বাহিনীর; মূল কাজ মুম্বইকে রক্ষা করা। বাণিজ্য নগরীর বুকে যে কোনো ধরনের সন্ত্রাস প্রতিরোধে; এই বাহিনীকে তৈরি করা হয়েছে। ২০০৮ এর মুম্বাই সন্ত্রাসের পরই ঠিক হয়; মুম্বাই পুলিশের নিজস্ব কম্যান্ডো বাহিনী গড়ে তোলা হবে। ২০১০ এ তৈরী হয় মুম্বাই পুলিশের; ফোর্স ওয়ান কম্যান্ডো। মুম্বাই পুলিশ বাহিনীর সেরা অফিসারদের; ট্রেণিং দিয়ে কম্যান্ডো তৈরী করা হয়।

একবার ফোর্স ওয়ান কম্যান্ডো বাহিনীতে, যোগদানের জন্য; ৩০০০ আবেদনপত্র জমা পড়েছিল। কিন্তু তার মধ্যে; মাত্র ২১৬ জনকে বেছে নেওয়া হয়। ঠিক NSG বা ন্যাশান্যাল সিকিউরিটি গার্ডের মতই; গড়ে তোলা হয়েছে ফোর্স ওয়ানকে। ইসরায়েলি স্পেশাল ফোর্সের অফিসাররা; ট্রেণিং দেয় ফোর্স ওয়ান কম্যান্ডোদের। মুম্বাই অ্যাটাকের মত কোন হামলা হলে; প্রথমেই ফোর্স ওয়ানের কম্যান্ডোরাই ঝাঁপিয়ে পরবে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন