চিনের সঙ্গে হাতাহাতি, ভারতে ঢুকে আসা চিনাদের নিজেদের সীমান্তে ঢোকাল জওয়ানরা

5710
চিনের সঙ্গে হাতাহাতি, ভারতে ঢুকে আসা চিনাদের খেদিয়ে দিল জওয়ানরা
চিনের সঙ্গে হাতাহাতি, ভারতে ঢুকে আসা চিনাদের খেদিয়ে দিল জওয়ানরা

করোনা পরিস্থিতিতেও চিনের সঙ্গে হাতাহাতি। ফের মুখোমুখি সংঘাতে ভারত ও চিনা জওয়ানরা। যা গড়াল হাতাহাতিতে। এই ঘটনায় আহত ২ পক্ষের বেশ কয়েকজন সেনা আহত হয়েছেন। উত্তর সিকিমে ভারত-চিন সীমান্তের নাকু লা সেক্টরে; প্যাট্রলিংয়ের সময় চিনা সেনারা আগ্রাসনের চেষ্টা করায়; বাধা দেন ভারতীয় জওয়ানরা। হাতাহাতিতে দু পক্ষের কয়েকজন সেনা আহত হন। দুই দেশের সেনা কর্তাদের মধ্যে আলোচনার পর; পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

ভারতেই নিজস্ব করোনা টিকা তৈরি করবে, ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিকেল রিসার্চ

উত্তর সিকিমের ‘নাকু লা সেক্টরে’ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন; চিনা সেনা ও ভারতীয় সেনা জওয়ানরা। এই এলাকায় কোন সড়ক পরিবহণ নেই। হেলিকপ্টারে করে এই জায়গায়; যোগাযোগ রাখে ভারতীয় সেনা। আর সেখানেই পেট্রোলিং চালাচ্ছিল দুদেশের বাহিনী। সেই সময়ই শুরু হয় ঝামেলা। পরে তা রীতিমতো হাতাহাতিতে পৌঁছয়। দুই সেনা বাহিনীর বেশ কিছু জওয়ান আহত হয়েছেন।

স্মৃতি ইরানীর পরিকল্পনায়, মাত্র ২ মাসে PPE কিটস উৎপাদনে ভারতের বিশ্বরেকর্ড

২০১৭ সালে ডোকলামে ৭০ দিন ধরে; ভারত-চিন সেনার সংঘাত বেধেছিল। ভুটানের এই বিতর্কিত জায়গাকে; নিজেদের বলে দাবি করে চিন। সেখানে রাস্তা তৈরি করার নামে; ঘাঁটিও গাড়ে তারা। পালটা জবাব দেয় ভারতীয় সেনা। দুদেশের সেনাই; সেই সময় ৭০ দিন মুখোমুখি দাঁড়িয়েছিল।

ভারতীয় সেনার পাল্টা হামলায়, ৫টি পাক সেনা ছাউনি ধ্বংস

সেনা সূত্রে খবর; নাকু লা সংঘাতে জড়িয়ে পড়েন; প্রায় ১৫০ জন জওয়ান। হাতাহাতিতে জখম হয়েছেন; ভারতের তিন ও চিনের পাঁচ জওয়ান। পরে দুপক্ষের স্থানিয় কর্তারা আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টি মিটিয়ে নেন। সেনার এক কর্তা জানান; “দুদেশের মধ্যে নির্দিষ্ট সীমান্তরেখা না থাকায়; এই জায়গায় মাঝে মধ্যেই এধরনের ঘটনা ঘটে থাকে। তবে, স্ট্যান্ডার্ড প্রোসিডিওর অনুযায়ী; দুপক্ষের স্থানীয় সামরিক নেতৃত্বের মধ্যস্থতায় সংঘাত মিটিয়ে নেওয়া হয়।

জুন জুলাইয়ে ভারতে ভয়ঙ্কর রূপ নেবে করোনা

সেনা সূত্রের খবর, নাকু লা সেক্টরে সাধারণত; কোনও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে না। মুগুথাং এলাকার কাছে অবস্থিত; এই সেক্টর শান্তিপূর্ণ এলাকা নামেই পরিচিত। সেখানেই বিবাদে জড়াল দুদেশের সেনা। করোনা পরিস্থিতিতেও চিনা আগ্রাসন বন্ধ নেই; যার উপযুক্ত জবাব দিল ভারতীয় সেনা জওয়ানরা।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন