মহাকাশ থেকে ছাদ ফুটো করে পড়ল উল্কা পিণ্ড, রাতারাতি কোটিপতি বাড়ি মালিক

2380
মহাকাশ থেকে ছাদ ফুটো করে পড়ল উল্কা পিণ্ড, কোটিপতি বাড়ি মালিক
মহাকাশ থেকে ছাদ ফুটো করে পড়ল উল্কা পিণ্ড, কোটিপতি বাড়ি মালিক

উপরওয়ালা যখন দেন; ছপ্পর ফাঁড়কেই দেন! ঠিক তেমনটাই ঘটল; জসুয়া হুটাগালুং এর ক্ষেত্রে। কে জানত এক রাতের মধ্যে; কোটিপতি হয়ে যাবেন জসুয়া হুটাগালুং! মাত্র ৩৩ বছর বয়সে, তাঁর জীবনে এমন কাণ্ড ঘটল, যা শুনলে তাজ্জব হয়ে যাবেন সকলেই। মহাকাশ থেকে ছাদ ফুটো করে পড়ল উল্কা পিণ্ড; রাতারাতি কোটিপতি বাড়ি মালিক জসুয়া। অগস্ট মাসে একদিন বাড়ির বাইরে; কাজ করছিলেন ইন্দোনেশিয়ার বাসিন্দা জসুয়া। এমন সময় বাড়ির ছাদ ফুঁড়ে; একটি গ্রহাণুর ২.১ কেজি ওজনের; একটি অংশ এসে পড়ে বাড়ির মধ্যে। বাড়ির ছাদ ভেঙে যাওয়ায়; প্রথমে হা হুতাশ করেছিলেন তিনি। তারপরের ঘটনা চমকে দেওয়ার মত। ঘটনার কয়েকদিন পর থেকেই; মহানন্দে রয়েছেন তিনি। কারণ, এই গ্রহাণুর অংশটির দাম উঠেছে; প্রায় ১০ লক্ষ পাউন্ড, ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৯.৮ কোটি টাকা।

জসুয়া বনেছেন, “শব্দটি এত জোরে ছিল যে; বাড়ি কেঁপে ওঠে; ফুটো হয়ে যায় ছাদ। শব্দে কেঁপে ওঠে; গোটা এলাকা। আমি যখন এটি তুলেছিলাম; তখনও পাথরটি গরম ছিল”। তারপরেই ঘটনার ছবি ও পাথরের ছবি; তিনি ফেসবুকে শেয়ার করেন। মুহূর্তে মধ্যেই; ভাইরাল হয় ছবি। ভিড় জমে যায় তাঁর বাড়িতে।

আরও পড়ুনঃ মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের নতুন টিমে, দুই বাঙালি সহ ২১ জন ভারতীয় বংশোদ্ভূত

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবর অনুসারে; এমন কিছু পদার্থ এই গ্রহাণুর অংশে রয়েছে; যার বয়স ৪৫০ কোটি বছর। গ্রাম পিছু সেই ধাতব বস্তুর দাম; প্রায় ৬৩ হাজার টাকা। আর এই পাথরটির ওজন ২কেজি ১০০গ্রাম। ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ১০ কোটির কাছাকাছি। টাকার অঙ্ক শুনে; হতবাক হয়ে যান জসুয়া।

উল্কাটির ধাতু কার্বনেসিয়াস কনড্রাইটাইট; যা একটি অত্যন্ত বিরল জাতের ধাতু; যা অনুমান করা হয় ৪.৪ বিলিয়ন বছর পুরানো। এটির প্রতি গ্রামের দাম প্রায় ৬৪৫ পাউন্ড; ভারতীয় মুদ্রায় প্রতি গ্রামের দাম; ৬৩ হাজার টাকা বলে জানা গেছে। এই গ্রহাণুটি পাওয়ার পর একজন পাথর সংগ্রাহকের কাছে; তিনি এটি বিক্রি করে দিয়েছেন। তারপর সেটি; আরও আরেকজনের হাতে গিয়েছে। আপাতত এটি তরল নাইট্রোজেনে ডুবিয়ে; রাখা আছে অ্যারিজোনা স্টেট ইউনিভার্সিটিতে। তবে তার আগে কোটিপতি করে গেছে; জসুয়া হুটাগালুং-কে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন