কাশ্মীর ইস্যুতে সীমান্তের পাক সেনাকেও গুরুত্ব দিচ্ছে না ভারত

201

১২ ই আগষ্ট ভারত পাক সীমান্ত বরাবর পাকিস্তান সেনাদের আড়ম্বর দেখে মনে হয়েছিল; এই বুঝি পাকিস্তান রাগের চোটে যুদ্ধই শুরু করে দিল বুঝি! পাকিস্তানের তোরজোড় ছিল তেমনই। তবে ১৩ই আগষ্ট ভারতীয় সেনাপ্রধান জেনারেল বিপিন রাওয়াত জানিয়ে দিলেন; ভারত পাকিস্তান সিমান্তে পাক বাহিনীর সেনা ট্যাংক জমায়েত ও শক্তিবৃদ্ধি একটি সতর্কতামূলক পদক্ষেপ; কিন্তু তার জন্য ভারতের উদ্বেগ হওয়ার কিছু নেই।

পাকিস্তানের জোর করে পায়ে পা লাগিয়ে ঝামেলা বাধানোর যে ইচ্ছে; তা সম্পূর্ণ উড়িয়ে দিল সেনাপ্রধান জেনারেল বিপিন রাওয়াত। উপরন্তু ভারত পাক দ্বন্দ্বে; ভারতের পাশেই আছে গোটা বিশ্ব। সেখানেও কোণঠাসা হতে হচ্ছে পাকিস্তানকে। তাই পাকিস্তানের কোন বোকামিকেই পাত্তা দিচ্ছে না ভারত।

আরও পড়ুনঃ এবার কাশ্মীরি টুইটার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিলো মোদী সরকার

পাকিস্তানি সাংবাদিক হামিদ মির এর বক্তব্য অনুযায়ী; গতকাল পাকিস্তান নিজেই যুদ্ধ ট্যাঙ্ক ও বড় সেনাবাহিনী নিয়ে ভারত পাক সীমান্তে হাজির হয়েছিল। কাশ্মীর সীমান্ত বরাবর; অতিরিক্ত সেনার পাশাপাশি; ভারী যুদ্ধাস্ত্রবাহী বিমান ও কপ্টার ও ট্যাংক মোতায়েন করছিল পাকিস্তান।

ভারত এই বিষয়ে ভয়ের আশঙ্কা করলেও। মঙ্গলবার সেনাপ্রধান জানিয়ে দেন; ‘যদি প্রতিপক্ষ নিয়ন্ত্রণরেখায় গতিবিধি বৃদ্ধি করে; সেটা তাদের ব্যাপার। প্রত্যেকেই সতর্কতামূলক সেনা নিয়োগ করে থাকে; তাই নিয়ে আমাদের বিশেষ চিন্তা করার দরকার নেই। সেনাবাহিনী ও অন্যান্য ব্যবস্থার বিষয়ে; আমরা সদা সতর্ক রয়েছি’।

আরও পড়ুনঃ কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তান বোকার স্বর্গে বাস করছে, কেঁদে ফেললেন পাক বিদেশমন্ত্রী

তাঁর এই বক্তব্য থেকে সহজেই অনুমেয়; পাকিস্তানের আক্রমণের বিরুদ্ধ প্রতিক্রিয়া নেওয়ার জন্য ভারত প্রস্তুত। তবে ভারত কোনরকম যুদ্ধ চায় না। বিপিন রাওয়াত এর মতে; এক্ষেত্রে ভারতীয় সেনাবাহিনী মানুষের পাশে আছে। সম্প্রীতি বজায় রাখাই প্রত্যেক ভারতীয়র উদ্দেশ্য হওয়া দরকার এখন।

তবে চিন, রাশিয়া, তালিবান এমনকি মার্কিন দেশ থেকেও প্রত্যাখ্যাত হওয়ার পর পাকিস্তানের গাম্ভীর্য নিয়ে আর মাথা ঘামাচ্ছে না ভারত। তবে প্রয়োজন মতো নিরাপত্তা বজায় রাখা হচ্ছে সর্বত্র। স্বাধীনতা দিবস পর্যন্ত কড়া নজরদারি বজায় থাকবে উপত্যকার পাশাপাশি সমগ্র ভারতে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন