প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হলেই বি’দ্রোহের আ’শঙ্কা, তৃণমূল ভবনে ডাক নেতাদের

8434
প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হলেই বি'দ্রোহের আ'শঙ্কা, তৃণমূল ভবনে ডাক নেতাদের
প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হলেই বি'দ্রোহের আ'শঙ্কা, তৃণমূল ভবনে ডাক নেতাদের

প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হলেই বি’দ্রোহের আ’শঙ্কা; তৃণমূল ভবনে ডাক নেতাদের। তৃণমূল ভবনে চলছে; কলকাতা কেন্দ্রিক নেতাদের বৈঠক। তৃণমূল ভবনে এই বৈঠক উপস্থিত আছেন; কলকাতা পুরসভার বিদায়ী কাউন্সিলররা। বৈঠকে যোগ দিয়েছেন; কলকাতার সব সাংসদ ও বিধায়করা। বৈঠকে আছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়; সুব্রত বক্সি। আছেন পার্থ চট্টোপাধ্যায় এবং প্রশান্ত কিশোর। ৭ই মার্চ মোদীর ব্রিগেডের আগেই; শহর কলকাতা তৃণমূলের পতাকায় মুড়ে ফেলতে; সব কাউন্সিলরদের দলিয় পতাকা দিয়ে দেওয়া হয়। তবে, বৈঠকের প্রধান কারণ হল; কাউন্সিলরদের মাঠে ময়দানে নেমে ভোট প্রচারের কাজ করতে হবে। নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, প্রার্থী নিয়ে দলের সিদ্ধান্ত মানতে হবে; তাঁর হয়েই প্রচার করতে হবে। কোন কাউন্সিলর যেন; দলের সিদ্ধান্ত নিয়ে বিরোধীতা না করে।

কলকাতা জেলার ওয়ার্ড কো অর্ডিনেটর বা পুর প্রতিনিধিরাও; তৃণমূল ভবনে এই বৈঠকে রয়েছেন। তাঁদের সঙ্গে কথা বলছেন; দলের শীর্ষস্থানীয় নেতারা। বৃহস্পতিবার তপসিয়ার তৃণমূল ভবনে এই বৈঠকে একদিকে যেমন রয়েছেন; অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, পার্থ চট্টোপাধ্যায়, সুব্রত বক্সী, প্রশান্ত কিশোররা। অন্য দিকে রয়েছেন, এই জেলার সব ওয়ার্ডের কো অর্ডিনেটার, কাউন্সিলাররা। অতীন ঘোষ, দেবাশীষ কুমার, বৈশ্বানর চট্টোপাধ্যায়ের মতো নেতারাও; রয়েছেন এই বৈঠকে।

আরও পড়ুনঃ বাংলা বিধানসভা ভোট, তৃণমূলের সঙ্গে আছেন ‘অমিতাভ বচ্চন’

কলকাতা জোনের মোট ৫১ টি আসন; এবার ভোটে তৃণমূলের পাখির চোখ। লোকসভা ভোটে বিজেপি কলকাতা জোনে; খুব বিরাট কামড় বসাতে না পারলেও, বেশ কয়েকটি আসনে উল্লেখযোগ্য ভাবে এগিয়েছিল। বিশেষত মুখ্যমন্ত্রীর নিজের কেন্দ্র ভবানীপুর বা রাসবিহারীর মতো কেন্দ্রে; পিছিয়ে ছিল তৃণমূল। আর এই জায়গাটাই দলের শীর্ষ নেতাদের মাথাব্যথা। সেই কারণেই সর্বাত্মক প্রচারে; জোর দিতে চাইছে দল।

আরও পড়ুনঃ তৃণমূল করে ভুল করেছেন, কান ধরে ওঠবোস করে শুভেন্দুর সভায় বিজেপি যোগ

ওয়ার্ড পিছু নেতাদের, কাউন্সিলরদের ডেকে; সেই কারণেই এই তড়িঘড়ি মিটিং। তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বরা বিলক্ষণ জানেন; কলকাতা জোনে ভালো ফল করতে পারলে; বিধানসভা ভোট যুদ্ধে লড়াইটা অনেকটাই সুবিধাজনক হবে। সেই সঙ্গে মোদীর ব্রিগেডের আগে; গোটা কলকাতা ঘাসফুল পতাকায় ঢেকে ফেলতে; সব নেতাদের দলিয় পতাকার বান্ডিল দিয়ে দেওয়া হয়েছে। ফিরহাদ হাকিম বলেছেন; “ভোট প্রচারে ঝাঁপাতেই এই বৈঠক”।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন