মমতার জাগো বাংলার জন্য কলম ধরলেন, গণশক্তির প্রয়াত সম্পাদক অনিল বিশ্বাস কন্যা অজান্তা

5708
মমতার জাগো বাংলার জন্য কলম ধরলেন, গণশক্তির প্রয়াত সম্পাদক অনিল বিশ্বাস কন্যা অজান্তা
মমতার জাগো বাংলার জন্য কলম ধরলেন, গণশক্তির প্রয়াত সম্পাদক অনিল বিশ্বাস কন্যা অজান্তা

মমতার জাগো বাংলার জন্য কলম ধরলেন; গণশক্তির প্রয়াত সম্পাদক অনিল বিশ্বাস কন্যা অজান্তা। বিখ্যাত সিপিএম নেতা অনিল বিশ্বাস কন্যা অজান্তা বিশ্বাস; এবার কলম ধরলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল মুখপত্র জাগো বাংলার জন্য। যে খবরে শোরগোল; রাজ্য রাজনীতিতে। তৃণমূলের মুখপত্রে শুধু লেখাই প্রকাশিত হয়নি অনিল-কন্যা অজন্তার; সেখানে নারীশক্তি নিয়ে উল্লেখ রয়েছে মমতারও! অজন্তা অবশ্য আপাতদৃষ্টিতে কোনও; রাজনৈতিক নিবন্ধ লেখেননি। তাঁর লেখার বিষয়; ‘বঙ্গ রাজনীতিতে নারীশক্তি’। তবে তাতে বিতর্ক; থামছে না।

তৃণমূলের দৈনিক মুখপত্রে বুধবার, একটি সম্পাদকীয় লিখেছেন; প্রয়াত সিপিএম নেতা ও গণশক্তির প্রয়াত সম্পাদক অনিল বিশ্বাস কন্যা অজন্তা বিশ্বাস। যা নিয়ে ইতিমধ্যেই শোরগোল পড়েছে; বঙ্গ রাজনীতিতে। বুধবার লেখাটির প্রথম কিস্তি প্রকাশিত হয়েছে; বৃহস্পতিবার পরের কিস্তি প্রকাশিত হবে। জাগো বাংলার পক্ষে, তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বুদ্ধি করেই অজান্তাকে দিয়ে; ‘বঙ্গ রাজনীতিতে নারীশক্তি’ বিষয়ক লেখা লিখিয়েছেন। কারণ কুণাল জানেন, এই লেখা মমতাকে বাদ দিয়ে; কোনোরকমেই লেখা যাবে না।

অনিল বিশ্বাস কন্যা অজন্তা; পেশায় অধ্যাপক। তিনি রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের; ইতিহাস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক। তৃণমূলের মুখপত্রে সে ভাবেই; তাঁর পরিচয় দেওয়া হয়েছে। কিন্তু উল্লেখযোগ্যভাবে ওই লেখার সঙ্গে যে লাইন ব্যবহার করা হয়েছে; তাতে হেডার রয়েছে ‘বাসন্তীদেবী থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়’। লেখার শিরোনামের উপরে বিষয় সংক্রান্ত পরিচিতিতে লেখা হয়েছে; ‘প্রাক্ স্বাধীনতা পর্ব থেকে সাম্প্রতিককালের ইতিহাসের চলচিত্রে বাঙালি মহিলাদের অবদান’।

আরও পড়ুনঃ লক্ষ্য গ্রাম পঞ্চায়েতের গদি, ১১ জন তৃণমূল সদস্যকে ‘গানপয়েন্টে’ অপহরণ তৃণমূল নেতারই

প্রত্যাশিতভাবেই সেই ‘অবদান’-এর প্রশ্নে; মমতার নাম এসেছে। নারীশক্তির আন্দোলন এবং অবদানের ইতিহাসে; অজান্তার লেখায় বাসন্তীদেবীর সঙ্গেই নাম এসেছে ঊর্মিলাদেবী, সুনীতিদেবী, সরোজিনী নাইডু, মোহিনী দাশগুপ্তা প্রমুখের। প্রথম কিস্তিতে অবশ্য; কোথাও মমতার নাম আসেনি। তবে পরের কিস্তিতে আসবে বলেই; মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

একজন ইতিহাসের অধ্যাপক এই ধরণের লেখা লিখতেই পারেন; কিন্তু যেহেতু অজন্তার পিতার নাম অনিল বিশ্বাস এবং তাঁর লেখা বেরিয়েছে; তৃণমূলের দৈনিক মুখপত্রে এবং লেখার বিষয়ে রয়েছেন মমতা; তাই বিষয়টি নিয়ে প্রত্যাশিতভাবেই শোরগোল শুরু হয়েছে। এখন দেখার, লেখার পরের কিস্তিতে; তিনি মমতা সম্পর্কে কী লেখেন! তবে রাজনৈতিক লেখা না হলেও; রাজনৈতিক বিতর্ক কিন্তু শুরু হয়ে গেছে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন